রেজাউল ইসলাম পলাশ: ঝালকাঠির রাজাপুরে নবনির্মিত মুক্তিযোদ্ধা সংসদের তিনতলা কমপ্লেক্স ভবনটি আনুষ্ঠানিক হস্তান্তরের আগেই বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় ফাটল দেখা দিয়েছে। ঠিকাদারের একগুঁয়েমি ও নির্মাণকাজে নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহারের কারণেই তিন কোটি আঠারো লক্ষ টাকা ব্যয়ে নবনির্মিত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সটিতে ফাটল দেখা দেওয়ায় মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ। অভিযুক্ত ঠিকাদারের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন উপজেলার মুক্তিযোদ্ধারা। ভবনটি হস্তান্তরের আগেই ফাটলের বিষয়টি তদন্ত করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার দাবি জানান তারা।
রবিবার দুপুরে (৭ এপ্রিল) নবনির্মিত তিনতলা ভবনটি ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক মোঃ হামিদুল হক ঠিকাদারের কাছ থেকে হস্তান্তরের জন্য আসেন। এ সময় স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার শাহ-আলম নান্নু সহ অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধারা ভবন নির্মানের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ তুলে ধরেন। জেলা প্রশাসক ভবনটি পরিদর্শন করেন এবং ভবনটি মুক্তিযোদ্ধ সংসদের কাছে হস্তান্তর না করে ১০ কর্ম দিবসের মধ্যে ঠিকাদার রাজাপুর সদর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আনোয়ার হোসেন মৃধা মজিবরকে ভবনের সম্পূর্ন ত্রæতি মুক্ত করতে নির্দেশ প্রদান করেন। এ সময় জেলা প্রশাসকের সাথে ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মনিরউজ্জামান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সোহাগ হাওলাদার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফরোজা আক্তার লাইজু, রাজাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ জাহিদ হোসেন সহ স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের জেলা ও উপজেলা কর্মকর্তাগণ । উল্লেখ্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে ৩ কোটি ১৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বহু প্রতিক্ষিত ও কাঙ্খিত স্বপ্নের তিনতলা বিশিষ্ট কমপ্লেক্স ভবনটির নির্মান কাজ শুরু হয়। ২০১৬ সালের ১৪ই ডিসেম্বর স্থানীয় এমপি বজলুল হক হারুন এ ভবনটির নির্মান কাজের উদ্বোধন করেন।

Previous articleপ্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপরুপ লীলাভূমি বাংলাদেশ
Next articleসুন্দরগঞ্জে ল্যাংগা খালের উপর ব্রিজ নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।