সুন্দরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন

আবু বক্কর সিদ্দিক: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাধারণ নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনার মধ্য দিয়ে মঙ্গলবার সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে সুন্দরগঞ্জ পৌরসভাসহ ১৫ টি ইউনিয়নের ১শ’ ১১টি ভোট কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচন চলাকালে বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শনে জানা যায়, ভোটারদের উপিস্থিতি ছিল অত্যন্ত কম। তবে দু-একটি কেন্দ্রে কিছু ভোটার দেখা গেলেও তা বিগত দিনের তুলনায় নয়। অধিকাংশ কেন্দ্রেই প্রার্থীর এজেন্টরা ভোটারদের স্লিপ নিয়ে অপেক্ষা করছেন। সকাল সাড়ে ১১টায় শোভাগঞ্জ উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে দু-একজন ভোটার ছাড়া এর বেশি কিছু চোখে পড়েনি। এ কেন্দ্রে মোট ভোটার ২ হাজার ১শ’ ৩০ জনের মধ্যে মাত্র ৩০ জন ভোটার ভোট প্রয়োগ করেন। এ ব্যাপারে কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার হামিদুল ইসলাম বলেন, গ্রামাঞ্চলে কাজের কারণে বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারের উপস্থিতি বাড়তে পারে। এরপর উত্তর মরুয়াদহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খামার পাঁচগাছি দাখিল মাদ্রাসা পরাণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঝিনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হুড়াভায়াখাঁ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সুন্দরগঞ্জ ডি ডব্লিউ ডিগ্রী কলেজ, চাচীয়া মীরগঞ্জ, মনমথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বামনডাঙ্গা এমএম উচ্চ বিদ্যালয়, চাচিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ কেন্দ্রসহ বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি একই রকম লক্ষনীয়। দুপুরে মনমথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টায় করায় ৩ জনকে আটক করে প্রশাসন এ কেন্দ্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসার আব্দুল হাই জানান, তিন আটককৃত বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীর মধ্যে ১ জনের নাম জানেন। তার নাম স্বপন। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সুত্র জানায়, উপজেলায় ১শ’ ১১টি ভোট কেন্দ্রে মধ্যে প্রত্যেক কেন্দ্রে ১ জন করে প্রিজাইডিং কর্মকর্তা, সমসংখ্যক সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ও প্রয়োজনীয় সংখ্যক পোলিং কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে। অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন সম্পন্ন করতে প্রত্যেক কেন্দ্রে পুলিশ, আনসার, গ্রাম পুলিশসহ ১৬ জন করে আইন-শৃঙ্খলাবাহীনির সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া চরাঞ্চলসহ গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে অতিরিক্ত আইন-শৃঙ্খলাবাহীনির সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। পাশাপাশি নির্বাচনকে ঘিরে পুরো উপজেলা জুড়েই কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। নির্বাচনের মাঠে ১৬ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও একজন বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেটসহ ৪ প্লাটুন র‌্যাব ও ৫ প্লাটুন বিজিবি সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। এই নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রার্থীরা হচ্ছেন চেয়ারম্যান পদে আশরাফুল আলম সরকার লেবু (নৌকা), আহসান হাবীব খোকন (লাঙল), গোলাম আহসান হাবীব মাসুদ (মোটরসাইকেল) ও খয়বর হোসেন সরকার মওলা (ঘোড়া)। ভাইস চেয়ারম্যান পদে সফিউল আলম (চশমা), শওকত আলী (টিয়াপাখী), আবদুর রাজ্জাক তরফদার (টিউবয়েল), আল শাহাদত জামান জিকো (তালা), আসাদুজ্জামান মনি (লাঙল), সুরুজিত কুমার সরকার (বৈদুৎতিক বাল্ব)। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে হোসনে আরা বেগম (লাঙল), আল্পনা রানী গোস্বামী (ফুটবল), উম্মে সালমা (হাঁস), ফেরদৌসী বেগম (প্রজাপতি) ও হাফিজা বেগম কাকলী (কলস)। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সেকেন্দার আলী জানান, মেয়াদ উত্তীর্ণ না হওয়ায় এ উপজেলা পরিষদের সাধারন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। গত ৯ মে গাইবান্ধার অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও রিটার্নিং কর্মকর্তা আলমগীর কবির এ নির্বাচন সংক্রান্ত গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেন। ঘোষিত তফশীল মোতাবেক ২১ মে পর্যন্ত মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমাদান, ২৩ মে মনোনয়নপত্র বাচাই, ৩০ মে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ও ১৮ জুন ভোটগ্রহণ। তিনি আরও জানান, ১৫টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত এ উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৩৯ হাজার ২শ’ ১৮ জন। এরমধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৬৫ হাজার ৩শ’ ৪৪ ও মহিলা ১ লাখ ৭৩ হাজার ৮শ’ ৭৪ জন। ১শ’ ১১টি ভোট কক্ষের সংখ্যা নির্ধারণ করা হয় ৮শ’ ১৫টি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও সহকারি রিটানিং কর্মকর্তা মো. সোলাইমান আলী বলেন, সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ চলছে। কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। এ ছাড়া নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরাও কোন বিষয়ে অভিযোগ করেননি।