কুতুপালং ট্রানজিট ক্যাম্পে আশ্রয় নিচ্ছে শত শত রোহিঙ্গারা

কায়সার হামিদ মানিক: রোহিঙ্গাদের এনআইডি প্রাপ্তি ও ভোটার তালিকাভুক্তির ঘটনা নিয়ে সর্বত্র তোলপাড় চলছে। কোনো কোনো এলাকায় প্রশাসন কড়াকড়ি আরোপ করছে অবৈধভাবে রোহিঙ্গাদের অবস্থান উচ্ছেদ করতে। সংশ্লিষ্টদের কঠোর অবস্থানের কারণে গত এক সপ্তাহে কয়েক শত রোহিঙ্গা পুরনো এলাকা ছেড়ে উখিয়ার কুতুপালং ট্রানজিট ক্যাম্পে এসে আশ্রয় নিয়েছে।
বুধবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বেলা তিনটার দিকে উখিয়ার কুতুপালংয়ে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার ট্রানজিট ক্যাম্পের পাশে গাট্টি-পোঁটলা নিয়ে বেশ কিছু মানুষের জটলা দেখা যায়। এগিয়ে গিয়ে জানা গেল তারা আজই চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলা থেকে এখানে এসেছে। অন্তত ১৭-১৮ পরিবারের ৭৫-৮০ জনের মতো নারী, পুরুষ ও শিশু এসেছে।
তাদের মধ্যে মিয়ানমারের রাখাইনের বুচিডং টাউন শিপের খানসামা এলাকার আমির হামজার ছেলে জাহেদ আলম (২৮) স্ত্রী নছিমা ও এক কন্যাশিশুসহ কুতুপালং ট্রানজিট ক্যাম্পে এসেছেন। একই সাথে ১২ পরিবারের ৫৩ জন এসেছে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার ছিপাতলী জমিদারখিল থেকে। মিয়ানমারের উত্তর রাখাইনের সাহেববাজার এলাকার মৃত আবদুল আমিনের ছেলে আবুল কালাম (২৫) এসেছেন পটিয়ার একই এলাকা থেকে। সাথে তার স্ত্রী ও ছোট দুই ছেলেমেয়ে রয়েছে।
আবুল কালাম জানালেন, পটিয়ায় বেশ কয়েক দিন ধরে পুলিশ গ্রামে গ্রামে মাইকিং করে অবৈধভাবে অবস্থানকারী রোহিঙ্গাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে থানায় এসে আত্মসমর্পণ করার ঘোষণা দেয়। বেশ কিছু রোহিঙ্গাকে পুলিশ আটক করে জেলে দিয়েছে। তিনিও তিন দিন হাজত খেটেছেন বলে জানান। প্রশাসনের কড়াকড়ির মুখে কোনো উপায় না দেখে কুতুপালং ট্রানজিট ক্যাম্পে চলে আসতে বাধ্য হন বলে রোহিঙ্গারা জানান।
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির সাধারণ সম্পাদক, পালংখালী ইউপির চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, সারা দেশে ক্র্যাশ কর্মসূচির মাধ্যমে অবৈধভাবে বসবাসকারী রোহিঙ্গাদের আটক করে ক্যাম্পে ফিরিয়ে আনা প্রয়োজন।
উখিয়ার কুতুপালং ট্রানজিট ক্যাম্পে খবর নিয়ে জানা গেছে, গত দুই দিন আগে ওই ক্যাম্পে ৭৬টি পরিবার ছিল। সোম ও মঙ্গলবার এসেছে ৪২ পরিবার আর বুধবার এসেছে ১৮ পরিবার। তবে শরণার্থী সংস্থার ওই ক্যাম্পের কেউ কোনো তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানান।
উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নিকারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে-ছড়িয়ে থাকা রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পে ফেরাতে কাজ করছে সরকার। আমরা নিজেরাও এ নিয়ে কঠোরভাবে কাজ করে আসছি। যেসব রোহিঙ্গা নিজ উদ্যোগে ক্যাম্পে ফিরবে না তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে ট্রানজিট ক্যাম্পে রোহিঙ্গা আশ্রয়ের ব্যাপারে তিনি অবহিত নন বলে জানান।