চিরনিদ্রায় শায়িত বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ

মুখলেসুর রাহমান সুইট: বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(বুয়েট) ছাত্রলীগের নির্যাতনে নিহত আবরার ফাহাদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। আজ মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) বেলা পৌনে ১১টায় তৃতীয় জানাজা শেষে স্থানীয় রায়ডাঙ্গা কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

এর আগে কুষ্টিয়ায় আবরার ফাহাদের দ্বিতীয় জানাজা সম্পন্ন হয়।
আজ মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৬ টায় শহরের পিটিআই রোডে ফাহাদের নিজ বাড়ির সামনে এ জানাজা সম্পন্ন হয়। আত্মীয়-স্বজন, এলাকাবাসী জানাজার নামাজে অংশগ্রহণ করেন।
এরপর সকাল দশটায় কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার রায়ডাংগা গ্রামে তৃতীয় দফা জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে আবরারের দাফন সম্পন্ন হয়।
এদিকে সোমবার (৭ অক্টোবর) রাত পৌনে ১০টার দিকে বুয়েটের কেন্দ্রীয় মসজিদের সামনে ফাহাদের জানাজা সম্পন্ন হয়। রাত সাড়ে নয়টায় ফাহাদের লাশ মসজিদের সামনে আনা হয়। এ সময় মসজিদের মাইকে ঘোষণা করা হয়; নিহতের জানাজা রাত ৯টা ৪৫ মিনিটে অনুষ্ঠিত হবে। পরে ঘোষণা অনুযায়ী যথা সময়ে জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। জানাজায় অংশ নেন আবরার ফাহাদের বাবা বরকত উল্লাহ এবং বুয়েটের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, প্রশাসনের কর্মকর্তা ও অসংখ্য সাধারণ মানুষ।
উল্লেখ্য, রবিবার (৬ অক্টোবর) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে বুয়েটের শেরে বাংলা হলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বুয়েট শাখার বিরুদ্ধে আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করার অভিযোগ রয়েছে । পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। নিহত ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি শের-ই বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন।