রাজাপুরে বিষখালী নদীতে ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ, সচেতনতা বাড়াতে নেওয়া হয়নি যথেষ্ট উদ্যোগ

রেজাউল ইসলাম পলাশ: ঝালকাঠির রাজাপুরের ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম ৯ অক্টোবর থেকে ৩০ অক্টোবর মা ইলিশ নিধনে সরকারি নিষেধজ্ঞা জারি করা হয়েছে। আশ্বিনের পূর্ণিমার চারদিন আগে এবং পরের ১৮দিন মোট ২২দিন বিষখালি নদীতে ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এই সময় আইনানুযায়ী সারাদেশে ইলিশ আহরণ, পরিবহন, মজুত, বাজারজাত, কেনাবেচা ও বিনিময় সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ থাকবে। মূলত এ মৌসুমে ডিমওয়ালা মা ইলিশ সাগর থেকে স্রোতযুক্ত বিষখালি নদীতে মিঠাপানিতে এসে ডিম ছাড়ে বলে প্রতিবছরের মতো এবারও ইলিশের প্রজনন নির্বিঘœ করতে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। মা ইলিশ রক্ষা কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সারাদেশের ন্যায় রাজাপুর উপজেলায় সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কার্যক্রম গুরুত্বপূর্ণ সড়ক, নদী ও হাটবাজারে মাইকিং, ব্যানার, পোস্টারিং, প্রচারপত্র বিতরণ, জেলেদের সঙ্গে মতবিনিময় ও উঠান বৈঠক করা হয়েছে বলে সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার দপ্তর থেকে দাবি করলেও সচেতন নাগরিকরা বলছেন প্রকৃত জেলেদের সচেতন করতে তাঁদের নিয়ে মতবিনিময় সভা করার কথা থাকলেও নামমাত্র কথিত জেলেদের দিয়েই দায়সারা ভাবে এবছরের প্রচার অভিযান শেষ করা হয়েছে। অপরদিকে শহর ও উপকূলীয় এলাকায় ইলিশ নির্ভর বরফ কল গুলো বন্ধ রাখতে প্রশাসনের তরফ থেকে দেওয়া হয়নি কোন লিখিত নোটিশ। অনুসন্ধানে জানা গেছে, কোন কোন ক্ষেত্রবিশেষ সরকারি তালিকাভুক্ত জেলেরা নিষেধাজ্ঞা মানলেও মৌসুমি জেলেরা অপ্রতিরোধ্য। তারা একশ্রেণীর অসৎ কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে নদী থেকে ইলিশ ধরে গ্রামে গ্রামে ফেরি করে বিক্রি করে চলে। অথচ ঐ সময়ই তালিকাভুক্ত জেলে পরিবারগুলোর দিন কাটে খেয়ে না খেয়ে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে নদী এলাকার অনেকেই জানান, নিষিদ্ধকালীন সময়ে প্রতি জেলে নৌকায় সতর্কবাণী পৌঁছানোর জন্য এক থেকে দেড় হাজার টাকা চুক্তিতে সোর্স রাখা থাকে। চলতি বছর ইতোমধ্যে উপজেলাযর এক হাজার ১৪৭ জন নিবন্ধিত জেলের মধ্যে “মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান- ২০১৯” কর্মসূচির আওতায় বিষখালি নদী তীরবর্তী ৩১৪ জন জেলের নামে বরাদ্দের বিশেষ ভিজিএফের চাল বরাদ্দ হলেও এখনও বিতরণ করা হয়নি।

বিষখালি নদী তীরবর্তী এলাকায় ভিজিএফ তালিকা ছাড়াও আরো অনেক হতদরিদ্র জেলে রয়েছে। বিষখালী নদী উপকূলীয় এলাকা থেকে কয়েক বছর ধরে অবৈধ ভবে রপ্তানি করা হচ্ছে ইলিশের ডিম। তবে স্থানীয়ভাবে ইলিশের ডিমের চাহিদা কম থাকলেও বিদেশে এর চাহিদা অনেক বেশি। আড়াই কেজি করে ইলিশের ডিম প্রতিটি বাক্সে ভর্তি করার পর বরফজাত করা হয়। পরে ককশিটের ভেতর ঢুকিয়ে চট্টগ্রাম পাঠানো হয়। প্রতিদিন অন্তত ৫০০ কেজি করে ইলিশের ডিম প্রক্রিয়াজাত করার পর ছোট ছোট বাক্সে করে পাঠানো হয় চট্টগ্রামে। সেখান থেকে এসব ইলিশের ডিম বিভিন্ন দেশে পাঠানো হয়। ইলিশের প্রজনন মৌসুমে এক মণ ইলিশে প্রায় ৭-৮ কেজি ডিম পাওয়া যায়। ইলিশ ডিম পাড়ে স্বাদু পানিতে এবং পরে লবণাক্ত পানিতে ফিরে যায়। মূলত এ মৌসুমে ডিমওয়ালা মা ইলিশ সাগর থেকে বিষখালী নদীতে স্রোতযুক্ত মিঠাপানিতে এসে ডিম ছাড়তে এসে মারা পরে। অবরোধকে সামনে রেখে উপজেলার মঠবাড়ি ও বড়ইয়া ইউনিয়নের মৌসুমি জেলেরা ইতি মধ্যে বিষখালি তীরবর্তী গ্রামগুলো ফিরে এসেছে। তারা স্বল্প মূল্যে ইলিশ নিধনের জন্য ৪ থেকে ৫ টি করে নৌকা ও জাল ক্রয় করে প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে উপজেলার বিষখালি তীরবর্তী গ্রামগুলো ঘুরে এ তথ্য জানাগেছে। অসাধু মৌসুমি জেলেরা যে কোন মূলে তারা ইলিশ মাছ নিধন করবে বলে বদ্ধ পরিকর। রাজাপুর উপজেলায় সুষ্ঠুভাবে মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান বাস্তবায়নে সহায়তা প্রদানের নিমিত্ত জনাব হাদিউল ইসলাম কে (মৎস্য সম্প্রসারন কর্মকর্তা আশাশুনি সাতক্ষীরা) সাময়িকভাবে সংযুক্ত করা হলেও তিনি এখন পর্যন্ত সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার দপ্তরে যোগদান করেননি।

এ ব্যাপারে রাজাপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সোহাগ হাওলাদার জানান, অবরোধকে সফল করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল রকমের প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে। তবে স্থানীয় সকলের সহযোগীতা প্রয়োজন। ইতি মধ্যে জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে বিভিন্ন স্থানে অনেকগুলো সভা করা হয়েছে। সবাই প্রশাসনকে সহযোগীতা করবে বলে আসস্থ করেছেন। সকলের সহযোগীতা পেলে প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ নিধন রোধ করা সম্ভব হবে বলে নির্বাহী কর্মকর্তা আশা প্রকাশ করেন। উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আবুল বাসার জানান, এবারের অবরোধ সফল করতে প্রশাসন অনড় রয়েছেন, জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।