থানায় কেক কেটে, নেচে-গেয়ে-খেয়ে ওসির যোগদানের বর্ষপূর্তি উদযাপন !

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বিশাল আকৃতির কেক সাজিয়ে রাখা হয়েছে টেবিলে। নানা রঙের বেলুন টাঙিয়ে সাজানো হয়েছে ঘর। আছে নাচ-গানের জন্য সাউন্ড সিস্টেমও। অতিথিদের আপ্যায়নের জন্য মাছ-মাংসসহ হরেক পদ। যাকে ঘিরে এই রাজকীয় আয়োজন তিনিও চোখ ধাঁধানো সাজগোজে হাজির। দামি পাঞ্জাবিতে তাকে দেখতে বরের মতোই লাগছে। অতঃপর তিনি কেক কেটে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করলেন। মুহুর্মুহু করতালিতে মুখর হলো অনুষ্ঠানস্থল।

এমনই বর্ণাঢ্য আয়োজনে পালন করা হলো সিলেটের ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম আল মামুনের এই থানায় যোগদানের বছরপূর্তি। বৃহস্পতিবার রাতে থানা কম্পাউন্ডেই এই অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। আর এই অনুষ্ঠানের ছবি, ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ার পর তা নিয়ে অনলাইনে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। সেগুলো শোয়ার হওয়ার পাশাপাশি কমেন্টও করছেন অনেকে। বেশির ভাগ মন্তব্যই তির্যক। অনেকেই বলছেন, এমন অনুষ্ঠান তাদের জীবনে দেখেননি। কেউ বলেছেন, ওসির কামাই-রোজগার ভালো, তাই অনুষ্ঠানও হয়েছে একটু জমকালো।

জানা যায়, ওসি এসএম আল মামুনের থানায় যোগদানের বছরপূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে ওসমানীনগর থানার পুলিশ কর্মকর্তাদের স্ত্রী-সন্তান, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দসহ শতাধিক অতিথি উপস্থিত ছিলেন। থানা কম্পাউন্ডের ভেতরে সাউন্ড সিস্টেমের মাধ্যমে গভীর রাত পর্যন্ত চলে নাচ-গান। অনুষ্ঠানের শুরুতে শেরওয়ানি পরে বরের বেশে এসে বিশাল আকারের একটি কেক কাটেন ওসি আল মামুন। নৈশভোজে মাছ, মাংসসহ অনেক ধরনের খাবার পরিবেশন করা হয়। এই আয়োজনে উপজেলাজুড়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

ওসমানীনগর উপজেলা যুবলীগের সহসভাপতি ইকবাল আহমদ তার ফেসবুক আইডিতে অনুষ্ঠানের ছবি সংবলিত একটি লেখা পোস্ট করেছেন। তার পোস্টে ওসির শেরওয়ানি পরিহিত ছবি দেখে সুজ্জাল এফএক্স নামের একটি আইডি থেকে মন্তব্য করা হয়েছে, ‘আমি মনে করেছি ওসি সাহেবের বিবাহ বার্ষিকী’। মাওলানা হুছাইন আহমদ নামের অপর আইডি থেকে লেখা হয়েছে ‘ইনকাম অনুযায়ী আপ্যায়ন, হয়তো ওনার ইনকাম বেশি হচ্ছে, তাই’। শাহ আবদুর রব নামের আইডি থেকে লেখা হয়েছে ‘মগের মুল্লুক মনে হচ্ছে, তাই থানা হয়ে গেছে বাংলোবাড়ি’।

বালাগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা তুহিন মনসুর লিখেছেন, বালাগঞ্জ থানার পাশেই আমার বাড়ি। আমার জীবনেও এমন অনুষ্ঠান দেখিনি, এই প্রথম দেখলাম।

এ ব্যাপারে ওসমানীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান চৌধুরী নাজলু বলেন, ওসি সাহেবের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক দাওয়াত পেয়ে সেখানে গিয়েছিলাম। দাওয়াত খেয়ে চলে এসেছি। ওসির যোগদানের বর্ষপূর্তিতে এ ধরনের অনুষ্ঠান আগে কখনো দেখিনি।

ওসমানীনগর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আনা মিয়া বলেন, দাওয়াত পেয়ে অনুষ্ঠানে গিয়ে দেখি ওসির যোগদানের বর্ষপূর্তি উপলক্ষে বর্ণাঢ্য আয়োজন করা হয়েছে। আমি দাওয়াত খেয়ে চলে এসেছি।

এ ব্যাপারে ওসমানীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদাল মিয়া বলেন, দাওয়াত পেয়ে থানায় গিয়ে দেখি এ আয়োজন।

অনুষ্ঠান আয়োজন করা প্রসঙ্গে ওসি এসএম আল বলেন, সহকর্মীরা এই আয়োজন করেছিল। সকলের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠান সুন্দর হয়েছে।

ওসমানীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার বলেন, কর্মস্থলে যোগদানের বর্ষপূর্তিতে এ ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজনের কোন নিয়ম নেই। এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না। আমাকে কেউ কিছু বলেনি।

পুলিশের সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি কামরুল হাসান বিপিএম বলেন, সিলেট রেঞ্জে যোগদানের আমারও তো প্রায় তিন বছর হয়ে গেল। কই, কখনো তো এ ধরনের অনুষ্ঠান করিনি। ওসমানীনগরের ওসির বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান আয়োজনের ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে জানবেন বলে জানান ডিআইজি।