কলাপাড়ায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ভুমি দখলের অভিযোগ

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক কেন্দ্রীয় যুবলীগের সহ-সম্পাদক এ্যাড. শামিম আল সাইফুল সোহাগের বিরুদ্ধে পাঁচ ভূমিহীন পরিবারের ভূমি দখলের অভিযোগের তদন্ত কার্য্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়েছে শনিবার সকাল ১১ টায়। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম রাকিবুল আহসানের উপস্থিতিতে কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: মুনিবুর রহমান উক্ত তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করেন। এসময় উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) অনুপ দাশ ছিলেন। তদন্ত শেষে উপস্থিত জনসাধারণ ও সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম রাকিবুল আহসান বলেন, সরকারি খাল উন্মুক্ত থাকবে। যার মালিকানাধীন সম্পত্তি সে ভোগদখল করবে। কেউ কারো ভোগ দখলে হস্তক্ষেপ করতে পারবে না। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: মুনিবুর রহমান, ৫ ভূমিহীন পরিবারের বন্দোবস্ত পাওয়া ভূমি সঠিকভাবে মাপ দিয়ে সীমানা পিলার স্থাপনের মাধ্যমে ভূমিহীনদের বুঝিয়ে দেয়ার জন্য তহশীলদারসহ ভূমি অফিসের সার্ভেয়ারদের নির্দেশ দেন। তদন্তকালে পটুয়াখালী জেলা রাখাইন এসোমিয়েশনের সভাপতি উথান তালুকদার,ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি আনছার মুন্সীরদের কাজ থেকে জানাযায়,পাঁচ ভূমিহীন পরিবার তাদের বন্দোবন্ত প্রাপ্ত ভূমিতে ঘরবাড়ি তৈরী করে ও নাল জমি চাষাবাদ করে ভোগদখল করে আসছেন। উক্ত জমি থেকে ভূমিহীনদের উচ্ছেদ অথবা বেদখল করার কোন ঘটনা ঘটে নাই। এ ব্যপারে ভূমিহীন পরিবারের সদস্য ও অভিযোগ দাতা ইনারা বেগম বিরোধীয় জমিতে তাদের দখল স্বত্ব স্বীকার করে বলেন, ঘেরে চাষ করা গ্রাস কার্প ও সরপুটি মাছ তাদের রোপন করা আমন ফসল ক্ষতি করছে এ জন্য তিনি যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে উক্ত অভিযোগ দিয়েছেন। যুবলীগ নেতা সোহাগ জানান, ইনারা বেগম গংদের বন্দোবন্ত পাওয়া জমিতে তিনি কোন ধরনের কার্যক্রম করেননি। যার জমি তার তার ভোগ দখলে আছে।এ ব্যপারে একটি মহল তাকে রাজনৈতিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য ভূমিহীনদের ব্যবহার করছে।