অধ‌্যক্ষের প্রলোভনে সম্ভ্রম হারিয়ে ছাত্রী নিজেই আসামি

সদরুল আইন: অধ‌্যক্ষের প্রলোভনে সম্ভ্রম হারিয়ে ছাত্রী নিপা নিজেই এখন আসামি। ন‌্যায়বিচার পাওয়ার আশায় আদালতের শরণাপন্ন হওয়ায় তিনি জীবন সংকটে আছেন বলেও অভিযোগ করেছেন।

ঘটনাটি ঘটেছে মোহাম্মদপুর সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী নিপার (ছদ্মনাম) জীবনে।

উচ্চশিক্ষার স্বপ্ন নিয়ে তিনি কলেজে ভর্তি হন। কিন্তু অধ‌্যক্ষের লালসার শিকার হন তিনি।

জানা গেছে, কলেজের তৎকালীন অধ‌্যক্ষ একেএম রেজাউল করিম নিপার দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে তার সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলেন।

তিনি বর্তমানে বহিষ্কৃত উপসচিব। দুই সন্তানের জনক রেজাউল করিম বিভিন্নভাবে মিথ‌্যা প্রলোভন দেখিয়ে নিপাকে তার কব্জায় নিয়ে আসেন। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গড়ে তোলেন শারীরিক সম্পর্ক।

কিছুদিনের মধ্যেই নিপা যখন জানতে পারেন তিনি বিবাহিত এবং স্ত্রী, সন্তানদের নিয়ে সংসার করছেন তখন ধর্ষণের অভিযোগ এনে রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন রেজাউল করিম। ধীরে ধীরে তার আসল চেহারা বেরিয়ে আসতে থাকে। তিনি নিপাকে গাড়ি চাপা দিয়ে হত‌্যার চেষ্টা করেছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

এখানেই শেষ নয়, এরপর রেজাউল করিম নিপার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দেন। এখন সেই মামলা সামাল দিতে আদালতে দৌড়ঝাঁপ করেই সময় চলে যাচ্ছে নিপার।

নিপা বলেছেন, ‘এমন পরিস্থিতিতে পড়তে হবে কখনো ভাবিনি। বিচার চাইতে গিয়ে উল্টো আসামি হয়েছি। মামলা তুলে নিতে বারবার হুমকি দিচ্ছেন রেজাউল করিম।

বিভিন্নজনকে দিয়ে ফোন করিয়ে আজেবাজে কথা বলছেন। কিন্তু এখন আমার পিছিয়ে আসার উপায় নেই। কারণ মামলা তুলে নিলে তারা আমাকে মেরে ফেলবে।’

আসামি প্রভাবশালী। তার ভয়ে আতঙ্কে জীবন কাটাচ্ছেন জানিয়ে নিপা বলেন, ‘একটা প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করে সংসার চালাচ্ছিলাম। রেজাউল করিমের কারণে চাকরি চলে গেছে।

এখন টিউশনি করে কোনমতে দিন চালাচ্ছি। অনেক কষ্ট হচ্ছে। তারপরও লড়ে যাচ্ছি ন‌্যায়বিচারের আশায়।

আসামিপক্ষ আপোসের প্রস্তাব দিয়েছিল। আমি রাজি হইনি। তিনি যদি অপরাধী না-ই হন তাহলে আপোসের প্রস্তাব দিচ্ছেন কেন? আমি তার সর্বোচ্চ সাজা চাই।’

রেজাউল করিমের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হয়। সাংবাদিক পরিচয় দেয়ায় তিনি কথা বলতে রাজি হননি। তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে নিপা ২০১৮ সালের ২৮ জুলাই ধানমন্ডি থানায় মামলা করেন।

মামলায় উল্লেখ রয়েছে কীভাবে রেজাউল করিম নিপার দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে মিথ‌্যা স্বপ্ন দেখিয়ে তার সর্বনাশ করেছেন।

এমনকি তাদের শারীরিক সম্পর্কের রেকর্ড রেখে আসামী পরবর্তী সময়ে নিপাকে পুনরায় শারীরিক সম্পর্কে বাধ‌্য করেছেন বলেও মামলায় উল্লেখ রয়েছে। প্রতিকার চাইলে মারধরেরও শিকার হয়েছেন নিপা।

গত বছর ১৯ জানুয়ারি আদালতে মামলার চার্জশিট দাখিল করা হয়। ২৫ জুন আসামির বিরুদ্ধে চার্জগঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত।

এ আদেশের বিরুদ্ধে আসামিপক্ষ উচ্চ আদালতে যায়। সম্প্রতি উচ্চ আদালত তাদের আবেদন খারিজ করে দেন।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর জেসমিন আক্তার বলেন, ‘বিচার দ্রুত শেষ করার লক্ষ্যে প্রতি তারিখে আমরা আদালতে সাক্ষী হাজির করছি। বাদীপক্ষ যেন ন্যায়বিচার পান আমাদের সেই চেষ্টা থাকবে।’

এদিকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য রেজাউল করিম নিপাকে বারবার চাপ দিচ্ছেন। বিচারের আশায় নিপা আসামির বিরুদ্ধে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে গত বছর ২৫ সেপ্টেম্বর অভিযোগ দেন।

রেজাউল করিম বিষয়টি জানতে পেরে ১ অক্টোবর নিপার বাসায় যান। সেখানে গিয়েও তিনি নিপাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ ঘটনায় নিপা রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে ৭ অক্টোবর হাজারীবাগ থানায় আরেকটি ধর্ষণ চেষ্টা মামলা দায়ের করেন।

রেজাউল করিম কোনোভাবেই নিপাকে মামলা থেকে নিবৃত্ত করতে না পেরে এবার অন‌্য পথ ধরেন। তিনি গত বছর ১ জুলাই বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে নিপার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

অভিযোগ নিপা ফেইসবুকে তার বিরুদ্ধে মিথ‌্যা স্ট‌্যাটাস দিচ্ছেন। আদালত হাজারীবাগ থানার ওসিকে অভিযোগের বিষয়ে তদন্তের নির্দেশ দেন। বর্তমানে তদন্ত চলছে।