সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪
Homeসারাবাংলাপাঁচবিবির বাগজানা রেল স্টেশনটি এখন শুধুই স্মৃতি

পাঁচবিবির বাগজানা রেল স্টেশনটি এখন শুধুই স্মৃতি

প্রদীপ অধিকারী: জয়পুরহাটের পাঁচবিবি-হিলির মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থিত বাগজানা রেল স্টেশনটি এখন ২টি ইউনিয়নবাসীর নিকট শুধুই স্মৃতি। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত স্টেশনটিতে নেই আর শত শত নারী-পুরুষ ট্রেন যাত্রীদের কোলাহল। জানাগেছে, বাগজানা রেলস্টেশনটি স্থাপনের আগে উপজেলার বাগজানা ও ধরঞ্জি ইউনিয়নের হাজার হাজার সাধারণ মানুষের যানবাহন ও রাস্তাঘাটের অবস্থা ছিল করুন। দু’টি ইউনিয়নবাসীর কষ্ট লাঘোবের কথা মাথায় রেখে নেতৃস্থানীয় আনোয়ার হোসেন চৌধুরী, আওফের হোসেন, মোবারক আলী, মরহুম আকরাম হোসেন, মরহুম মাহমুদুল হক, সাখাওয়াত হোসেন, দুলাল অধিকারী প্রমুখ ব্যক্তিগণ স্থানীয় যুবসমাজকে সঙ্গে নিয়ে রেল সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন মন্ত্রাণালয়ে দিনের পর দিন ধর্ণা দিয়ে অবশেষে ১৯৭৪ সালে কাংখিত স্বপ্ন পুরণ করেন। পরে তৎকালীন বিদ্যুৎ ও জ্বালানী মন্ত্রী এবং জয়পুরহাটের কৃতি সন্তান ডাঃ মফিজ চৌধুরী বাগজানা রেল স্টেশনটি প্রথম মৌখিক ভাবে উদ্বোধন করেন। এর কিছুদিন পর স্টেশনটি বন্ধ হয়ে যায়। পরে ১৯৭৯ সালে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মন্ত্রী সভার সদস্য মশিউর রহমান যাদু জয়পুরহাটের চকবরকতের জনসভায় বাগজানা স্টেশনটি পুনরায় স্থাপনের ঘোষণা দেন। নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের নিজস্ব উদ্যোগে স্থানীয়রা বাঁশ-খড় দিয়ে তৈরী করে অস্থায়ী টিকিট ঘর। এই টিকিট ঘরটি তখন যাত্রীদের যাতায়াতের উৎসাহ যোগায়। ক্রমান্বয়ে স্টেশনটিতে যাত্রী সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে। তখন বেড়ে যায় সরকারের রাজস্ব আয়। এতে খুশি হয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ঢেউটিন দ্বারা নির্মাণ করেন টিকেট ঘর। নিয়োগ দেন টিকেট মাষ্টার ও পোটারম্যান। প্রতিদিন ভোর থেকে রাত ২টা পর্যন্ত এই স্টেশনে ২ মিনিটের জন্য প্রায় ৮টি লোকাল ট্রেন দাড়াতো। এদিকে যাত্রী সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি ও রাজস্ব বৃদ্ধির কারণে রেল কর্তৃপক্ষ টিন সেডের বদলে পাকা টিকেট ঘর নির্মানের কাজ হাতে নেয়। ঘরটি আংশিক তৈরীও হয়। কিন্তু হতভাগা বাগজানাবাসীর সেই সুখ আর বেশী দিন রইল না। পরে ১৯৮৬ সালে এরশাদ সরকারের শাসনামলে রেল কর্তৃপক্ষ লোকসান দেখিয়ে স্টেশনটি বন্ধ করে দেয়। আবার ১৯৮৮ সালে জয়পুরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য মরহুম অলিউজ্জামান আলমের অক্লান্ত পরিশ্রমের পর তৎকালীন খাদ্য প্রতিমন্ত্রী ও পাঁচবিবির কৃতি সন্তান মরহুম আবু নাছের খান ভাসানী স্টেশনটি চালু করেন। এভাবে কিছুদিন চলার পরে কর্তৃপক্ষ আবারও স্টেশনটি বন্ধ ঘোষণা করে। পরে আবার ১৯৯২ সালে রেল ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সচিব নুরুল ইসলাম এলাকার অবহেলিত মানুষের কথা বিবেচনা করে স্টেশনটি চালু করেন। আবারও বেশ কিছুদিন চলার পরে ২০০৫ সালে রেল সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ লোকবল আর ইঞ্জিন সংকটের কারণ দেখিয়ে পুনরায় স্টেশনটি বন্ধ ঘোষনা করে দেয়। সেই থেকে রেল স্টেশনটি এখনও বাগজানাবাসীর নিকট শুধুই স্মৃতি হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। এলাকাবাসীর দাবি যেহেতু হিলি রেল স্টেশনটি ভারত ও বাংলাদেশে জিরো পয়েন্টে অবস্থিত দিবারাত্রীর কোন ট্রেন স্টপেজ নেই সেহেতু বাগজানা রেল স্টেশনটি সংস্কার করে পার্বতীপুর থেকে খুলনা গামী রকেট মেল ও পার্বতীপুর হতে রাজশাহী গামী উত্তরা এক্সপ্রেস ট্রেন দু’টি দাঁড় করানো উদ্যোগ গ্রহণ করা হোক। তাহলে আবারও এই বাগজানা স্টেশনটি ফিরে পাবে আগের সেই প্রাণ চাঞ্চল্যতা।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments