পাঁচবিবিতে বাংলাদেশের প্রথম আদিবাসী ভাস্কর্য নির্মিত

প্রদীপ অধিকারী: জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি উপজেলায় ধরঞ্জী ইউনিয়নের অন্তর্গত নন্দইল গ্রামে ১৯৭১ সালে শহীদ আদিবাসী মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে বাংলাদেশের প্রথম আদিবাসী ভাস্কর্য নির্মিত হয়েছে । স্থানীয়রা জানায় ভাষ্কর্যটি নির্মানে আদিবাসী সম্প্রদায় অগ্রনী ভূমিকা রাখেন, কিন্তু কয়েক বছরের ব্যবধানে ভাস্কর্যটি সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ, অযত্নে আর অবহেলার কারনে ভাস্কর্যটির সৌন্দর্য হারাতে বসেছে। বিভিন্ন দিবসে শুধুমাত্র পুষ্পস্তবক দেওয়া হয় তবে সঠিকভাবে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা বা সংরক্ষণের অভাবে স্মৃতিসৌধ চত্তর সহ আশপাশের এলাকায় মাদকের আখরা গড়ে উঠেছে বলে অভিযোগ রয়েছে । প্রত্যক্ষদর্শী মিঃ সুজিত টুডু জানান এখানে চার জন আদিবাসী মুক্তিযোদ্ধা শায়িত আছে তারা হলেন ১-জোহন সরেন, পিতা- কালু সরেন, ২-ফিলিপ সরেন, পিতা-ল²ণ সরেন, ৩-খোকা হেমরন, পিতা- লক্ষণ হেমরন ,৪-মন্টু হেমরন, পিতা- লক্ষণ হেমরন পাঁচবিবি উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ্ব মিছির উদ্দিন প্রতিনিধিকে জানান পাঁচবিবি উপজেলার ধরঞ্জী ইউনিয়নের মধ্যে বাংলাদেশের একমাত্র শহীদ আদিবাসী মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরনে ভাস্কর্য নির্মিত হয়েছে । কিন্তু দুঃখের বিষয় বৈকাল হলেই উঠতি বয়সের ছেলে মেয়েদের উক্ত ভাস্কর্য মাঠে আড্ডার আসর বসায় শুধু তাই নয় আসর বসিয়ে ফেন্সিডিল, গাঁজা, ইয়াবা এবং অনৈতিক অপকর্মে লিপ্ত হয় এমন অভিযোগও রয়েছে । ভাস্কর্যটি সংরক্ষনের জন্য মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয় সহ সরকারের উচ্চ মহলের প্রতি আহবান জানায় আদিবাসী সম্প্রদায়। ধরঞ্জী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা বলেন ভাস্কর্যটির সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য একটি লাইব্রেরি স্থাপন করা প্রয়োজন তাহলে ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর আহবানে এ দেশ যে স্বাধীন হয়েছে তার প্রকৃত ইতিহাস এবং মুক্তিযুদ্ধে আদিবাসীদের ভূমিকা নতুন প্রজন্ম জানতে পারবে।