মহানবীর ১০ হাদিস

* একটি যুগ আসবে যখন মানুষ উপার্জন করতে একথা চিন্তা করবে না যে,আমি হালাল পন্থায় উপার্জন করছি,নাকি হারাম পন্থায়! [সহিহ বুখারী,হাদিস নং ১৯৪১]

* যে ব্যক্তি পছন্দ করে যে, সে দোযখ থেকে নিস্তার লাভ করে জান্নাত প্রবেশ করবে সে ব্যক্তির জন্য উচিত, যেন তার মৃত্যু তার কাছে সেই সময় আসে, যে সময় সে আল্লাহতে ও পরকালে ঈমান রাখে। আর লোকেদের সাথে সেইরূপ ব্যবহার করে যেরূপ ব্যবহার সে নিজের জন্য পছন্দ করে। (মুসলিম ৪৮৮২)

* যখন তুমি নামাজ পড়তে দাঁড়াবে, তখন মনে করবে, তোমার সামনে মহান আল্লাহতায়ালা, পেছনে আজরাইল, ডানে জান্নাত, বামে জাহান্নাম, নিচে পুলসিরাত।

* সব কাজই নিয়তের উপর নির্ভর করে, আর প্রত্যেক ব্যক্তি যা নিয়ত করে সে তাই পায়। (সহিহ বূখারীঃ০১-মুসলিমঃ১৯০৭)

* বান্দা যখন সিজদায় থাকে তখন সে তার রবের সবচাইতে নিকটবর্তী হয়।

* যে ব্যক্তি আমাদের এ দ্বীনে (ইসলামে) নতুন কিছু উদ্ভাবন করবে যা এতে নেই,তা প্রত্যাখ্যাত। বুখারী ও মুসলিম

* মীজানের পাল্লায় সচ্চরিত্রের চেয়ে অধিক ভারী আর কিছুই নেই। [সুনানে আবু দাউদ-৪৭৯৯]

* যখন গরমের প্রচন্ডতা কঠোর আকৃতি ধারন করে,তখন ঠান্ডা করে যোহরের নামায আদায় কর। কেননা জাহান্নামের অত্যাধিক উত্তাপের কারণেই গরমের প্রচন্ডা কঠোরতর হয়ে থাকে। সহিহ বুখারী