শহিদুল ইসলাম: যশোরের বেনাপোল ও শার্শায় পৃথক দুই শিশু ধর্ষনের অভিযোগ উঠেছে। ধর্ষনের অভিযোগে শার্শার রামপুর গ্রামের শাহাজান আলীর ছেলে সাগর হোসেনকে (১৫) আটক করেছে পুলিশ।

অপরদিকে, ধর্ষনের অভিযোগে বেনাপোল দারুস সালাম কওমি মাদ্রাসার ৪ জন শিক্ষককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ তাদের থানায় নিয়ে এসেছে। তাদের বয়স ৫-৬ বছর।

শার্শা ইউপি সদস্য কবির হোসেন বলেন, ঘটনাটি জানার পর মেয়ে বাবা মাকে থানায় পাঠানো হয়েছে। এবং থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

অপরদিকে, বেনাপোল পোর্ট থানার ভবেরবেড় গ্রামের ওই শিশুর পিতা অভিযোগ করার পর শিশুকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। শিশুর পিতা বলেন, তার মেয়ের রক্তক্ষরন হচ্ছে। সে সকাল ৯ টায় মাদ্রাসায় পড়তে যায়। আজ সকলকে ছুটি দিয়ে ওই মাদ্রাসায় নতুন যোগদান করা একজন শিক্ষক তার মেয়েকে ধর্ষন করেছে। আমরা এর সুষ্টু বিচার চাই।

শিশুটি বলে নতুন হুজুর তার সাথে খারাপ কাজ করেছে।
আর ধর্ষন সন্দেহে ভবেরবেড় দারুস সালাম কওমী মাদ্রাসার ৪ শিক্ষককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে।
নতুন হুজুরের নাম জানতে চাইলে ওই মাদ্রাসার জনৈক শিক্ষক বলেন, তার নাম হাফেজ সালমান।
হাফেজ সালমানের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সাথে জড়িত নয় বলে জানান।

বেনাপোল পোর্ট থানার এসআই রোকন বলেন, শিশুটি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। শিশুটি আসার পর ধর্ষনকারীকে সনাক্ত করা হবে।
শার্শা থানার ওসি বদরুল আলম বলেন, শিশু ধর্ষনের ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। যার নং- ২৯ তারিখ: ২৪/১/২০২১