জি.এম.মিন্টু: ২৫ জানুয়ারি সোমবার (আজ) বাংলা সাহিত্যের অমিত্রাক্ষর ছন্দের প্রবর্তক মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৭তম জন্মবার্ষিকী। এ উপলক্ষে প্রতিবছর কবির জন্মস্থানকে ঘিরে কপোতাক্ষ নদ স্মৃতি বিজড়িত কেশবপুরের সাগরদাঁড়িতে আয়োজন করা হয়ে থাকে সপ্তাহব্যাপী মধুমেলার। তবে এ বছর করোনা ভাইরাসের কারণে মধুমেলা হচ্ছে না। শুধুমাত্র মধুমঞ্চে ২৫ জানুয়ারি (সোমবার) মধুকবির জীবনীর উপর আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। সংক্ষীপ্ত পরিসরে অনুষ্ঠিত এই মধুমেলা প্রধান অতিথি হিসেবে উদ্বোধন করবেন যশোর জেলা প্রশাসক মোঃ তমিজুল ইসলাম। এক দিনেই মধুমেলার সমাপ্তি তাই এবছর দেশ-বিদেশের বরেণ্য কবি- সাহিত্যিকের কোন আনাগোনা সাগরদাঁদিতে নেই বলেল চলে। ঐতিহ্যবাহী যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার কপোতাক্ষ নদের তীরে সাগরদাঁড়ি গ্রামে ১৮২৪ খ্রিষ্টাব্দের ২৫ জানুয়ারী জন্মগ্রহণ করেছিলেন বাংলা সাহিত্যের ক্ষনজন্মা মহাপুরুষ, প্রাণের কবি, অমিত্রাক্ষর ছন্দের প্রবর্তক আধুনিক বাংলা কাব্যের রূপকার মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত। সাগরদাঁড়ি গ্রামের স্থানীয় জমিদার পিতা রাজনারায়ন দত্ত এবং মাতা জাহ্নবী দেবীর কোল আলোকিত করে সোনার চামচ মুখে নিয়ে প্রিয় কবি এই পৃথিবীতে আর্বিভূত হন। ছেলে বেলায় নিজ গ্রামের এক পাঠশালায় মাওলানা লুৎফর রহমানের কাছে শিশু মধুসূদন তার শিক্ষা জীবন শুরু করেন। পাশাপাশি গৃহ শিক্ষক হরলাল রায়ের কাছে বাংলা ও ফারসি ভাষায় শিক্ষা লাভ করেন। কিন্তু গাঁয়ের পাঠশালায় তিনি বেশি দিন শিক্ষা লাভ করতে পারেননি। আইনজীবি পিতা রাজনারায়ন দত্ত কর্মের জন্য পরিবার নিয়ে কলকাতার খিদিরপুরে গিয়ে বসবাস শুরু করেন। ওখান থেকে ইংরেজী ভাষার প্রতি দূর্বল হয়ে পাড়ি জমান পশ্চিমা দেশ ফ্রান্সে। অবস্থান করেন ভার্সাই নগরীতে। বিদেশী ভাষায় জ্ঞানার্জন করার পাশাপাশি এখানে বসেই তিনি রচনা করেন বাংলায় সনেট বা চর্তুদ্দশপদী কবিতা। সেখানে চলাফেরার এক পর্যায়ে মধুসূদন পর্যায়ক্রমে ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়েন। শেষ জীবনে ভয়ংঙ্করভাবে অর্থাভাব, ঋণগ্রস্থ ও অসুস্থতায় মাইকেল মধুসূদন দত্তের জীবন দূর্বিষহ হয়ে উঠেছিল। ফিরে আসেন আবারো কলকাতায়। এসময় তার পাশে ২য় স্ত্রী ফরাসি নাগরিক হেনরিয়েটা ছাড়া আর কেউ ছিল না। এরপর সকল চাওয়া পাওয়াসহ সকল কিছুর মায়া ত্যাগ করে ১৮৭৩ সালের ২৯ জুন কলকাতার একটি হাসপাতালে মাত্র ৪৯ বছর বয়সে মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত শেষ নিঃশ্বাস

ত্যাগ করেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম এম আরাফাত হোসেন বলেন, করোনা ভাইরাসের কারনে এবছর সাগরদাঁড়িতে সপ্তাহব্যাপি মধুমেলা মেলা হচ্ছে না। শুধুমাত্র কবির জন্মবার্ষিকী পালন হচ্ছে।