জি.এম.মিন্টু: কেশবপুরে স্থানীয় প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতা ও প্রভাবশালীদের ম্যানেজ করে অবাদে কাটা হচ্ছে ফসলী জমির মাটি, আর এই মাটি বিক্রি করে দেওয়া হচ্ছে পাশ্ববর্তি ইট ভাটায়। স্থানীয় মাটি কেনা-বেচা সিন্ডিকেটের সহায়তায় শহরের প্রধান সড়ক দিয়ে অবৈধ ট্রাক্টর দিয়ে এই মাটি নেওয়া হচ্ছে ভাটায়। বাঁধাহীনভাবে কৃষি জমির মাটি কাটার ফলে একদিকে যেমন আশানারুপ ফসল উৎপান ব্যাহত হচ্ছে অন্য দিকে যন্ত্র-তন্ত্র ভাবে বে-পরোয়া গতিতে মাটিভর্তি ট্রাক্টর চলাচলের কারনে যাতায়াতের রাস্তা বিনষ্টের পাশাপাশি সড়কে দূর্ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। জানা গেছে, কেশবপুর পৌর শহরসহ উপজেলাব্যাপী প্রতিদিন শতাধিক মাটিভর্তি অবৈধ ট্রাক্টর উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে বেপরোয়া গতিতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। আর এই ট্রাক্টরের মাটি মেইন সড়কে পড়ে রাতের কুয়াশায় কর্দমাক্ত হয়ে প্রায় প্রতিদিনই দূর্ঘটনা ঘটে চলেছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই মরনযান বন্ধে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন না করায় দিন দিন তারা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। গত ০৮ মার্চ উপজেলা পরিষদের মাসিক আইন শৃংখলা কমিটির সভায় উপজেলা প্রশাসন ভ্রাম্যমান আদালত ও থানা পুলিশ ট্রাফিক আইনের প্রয়োগ করে ট্রাক্টরের চলাচল বন্ধের ব্যবস্থা গ্রহনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সম্প্রতি ট্রাক্টরের ছবি তুলতে গিয়ে চ্যানেল এস প্রতিনিধিকে হুমকি ও তার ক্যামেরা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। এতকিছুর পরের অদ্যবধি এই সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে কঠোর কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করায় প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। ট্রাক্টর চালক ও মালিকদের গঠিত কমিটি দ্বারা প্রভাবিত হওয়ার কারনে স্থানীয় প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে ভুক্তভুগিদের অভিযোগ। একাধিক সূত্রে জানা গেছে, কেশবপুর পৌর শহরে জামান ব্রিকসসহ সবকটি ব্রিকসে প্রতিদিন কৃষি জমি থেকে ট্রাক্টরে মাটি আনা নেয়া করা হচ্ছে। কৃষি জমির মাটি কাটা বা বিক্রি করার পিছনে স্থনীয় মাটি খেগো একটি সিন্ডিকেট জড়িত। এই সিন্ডিকেট স্থানীয় প্রশাসন থেকে শুরু করে রাজনৈতিক নেতা বা প্রভাবশালীদের ম্যানেজ করে থাকেন। মাটি বহনকারী ট্রাক্টর মেইন সড়ক দিয়ে চলাচলের সময় মাটি ছিটে রাস্তায় পড়ে রাতের কুয়াশায় সেটি কর্দমাক্ত হয়। যার ফলে সড়কে দূর্ঘটনার সৃষ্টি হয়। এছাড়াও বিভিন্ন নিচু জমিতে মাটি নিয়ে ভরাট করা হচ্ছে। খরচ কম হওয়ায় সর্বক্ষেত্রেই ট্রাক্টরের ব্যবহার করা হচ্ছে। ড্রাইভিং লাইসেন্স বিহীন এই মরনযান কিশোর ও অল্প বয়স্ক ছেলেরা ড্রাইভিং করছে। তারা বেপরোয়া গতিতে শহরের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। এমনিতে মাটি ভর্তি ট্রাক্টরের চাপে রাস্তাটির বেহাল দসা হচ্ছে তার পর আবার ট্রাক্টরের মাটি রাস্তায় পড়ে রাতের কুয়াশায় পিচের রাস্তা কর্দমাক্ত হয়ে যাচ্ছে। যার ফলে সড়কে যাতায়াত করতে গিয়ে প্রতিনিয়ত পথচারীরা দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। উপজেলা ট্রাক্টর সমিতির সভাপতি মিন্টু জানান, কেশবপুরে প্রায় অর্ধ শতাধিক ট্রাক্টর রয়েছে এর মধ্যে ৩৪ টি ট্রাক্টরে মাটি, বালি ও ইট বহন করার কাজে ব্যবহৃত হয়। ট্রাক্টর সড়কে চলাচল করা অবৈধ সেটা আমরা জানি কিন্তু সরকারি কাজ ও মানুষের প্রযোজনে অহরহ ট্রাক্টর ব্যবহার করা হয়। অবৈধ হওয়ায় সড়কে চলাচল করতে গিয়ে অনেক ঝুটঝামেলা হয় যে কারনে ৫ বছর আগে ৩৪ জন ট্রাক্টর মালিকদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়। সড়কে সমস্যা হলে ওই কমিটির মাধ্যমে সবকিছু ম্যানেজ করা হয়। সড়কে অনেক অবৈধ যানবাহন চলাচল করে তাদের বিরুদ্ধে তেমন ব্যবস্থা নেয়া হয় না কিন্তু ট্রাক্টর মালিকদের নানাবিধ ভোগান্তির শিকার হতে হয়। কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ জসীম উদ্দীন বলেন, ট্রাক্টরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে তিনটি ট্রাক্টর আটক করে ট্রাফিক আইনে মামলা দেয়া হয়েছে। ট্রাক্টরের বিরুদ্ধে থানা পুলিশের অভিযান অব্যহত রয়েছে। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম এম আরাফাত হোসেন বলেন, ট্রাক্টরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। সম্প্রতি এক ট্রাক্টর চালককে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা করা হয়েছে। এ অভিযান অব্যহত থাকবে।

Previous articleরাজাপুরে কোচিং পরিচালনায় ৪ শিক্ষকের জরিমানা
Next articleশীতলক্ষ্যায় ডুবে যাওয়া লঞ্চে মিলল আরও ২২ মরদেহ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।