ছবিটি ভূঞাপুরের ভালকুটিয়া এলাকা থেকে তুলেছেন আব্দুল লতিফ তালুকদার।

আব্দুল লতিফ তালুকদার: বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে অতি বৃষ্টিপাত আর উজানের ঢলের কারণে আবারো টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের যমুনাসহ জেলার কয়েকটি নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় দেখা দিয়েছে ভাঙ্গন, তলিয়ে যাচ্ছে নিম্নাঞ্চল।

ক্ষতি হচ্ছে বীজতলা, সবজি, বোরা, আমনসহ বিভিন্ন ফসল। বেশ কয়েক দিন ধরে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় নদী তীরবর্তী ভূঞাপুরের বিভিন্ন এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে উপজেলার ভালকুটিয়া, কষ্টাপাড়া, খানুরবাড়ি ও চিতুলিয়াপাড়া অংশে বসতবাড়ি ভেঙ্গে গৃহহীন হচ্ছে অনেক পরিবার। আতঙ্কে দিন কাটছে অনেকের। কিছু কিছু জায়গায় জিও ব্যাগ ফেললেও আবার অন্য জায়গায় দেখা দিচ্ছে ভাঙ্গন। এর আগে, গেল মাসে ব্যক্তি উদ্যোগে ভালকুটিয়া গ্রামের ননী গোপাল শীল তার পৈতিক বসতভিটা ভাঙ্গন রোধে ৬’শ বস্তা জিও ব্যাগ ফেলেছেন। গেল বছর তার বাড়ির ৭০ শতাংশ আগ্রাসি যমুনার পেটে চলে যায়। ইতিমধ্যে থাকার ঘরের অর্ধেক চলে গেছে নদীরগর্ভে। এভাবে ভাঙ্গন অব্যাহত থাকলে নদী তীরবর্তী এই গ্রামগুলো মানচিত্র থেকে মুছে যাবে চিরতরে।

ভাঙ্গররোধে শীঘ্রই স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসি। টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘন্টায় যমুনা নদীর পানি ২৩ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ১০৬ সে.মি নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ ছাড়া ধলেশ্বরীর নদীর পানি ২৬ সে.মি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৭৪ সে.মি নিচ দিয়ে, পুংলী নদীর পানি ২৫ সে.মি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৫৬ সে.মি নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ বিষয়ে টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, উজানের ঢলে জেলার সবকটি নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। এভাবে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে বন্যার আশঙ্কা রয়েছে। নদী তীরবর্তী যেসব এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে, সেসব এলাকায় ভাঙন ঠেকাতে জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে। ক্যাপশন: ছবিটি ভূঞাপুরের ভালকুটিয়া এলাকা থেকে তুলেছেন আব্দুল লতিফ তালুকদার।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে মদের কারখানার সন্ধান, আটক ২
Next articleনোয়াখালীতে ইয়াবা, বিদেশি বিয়ারসহ গ্রেফতার ৪
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।