অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলে বিভিন্ন চরে ভূমিহীনদের নামে বরাদ্দ দেয়া জমির মাটি ইটভাটার জন্য কেটে নিচ্ছে প্রভাশালী সংঘবদ্ধ চক্র। প্রতিদিন বিভিন্ন চর থেকে কমপক্ষে ২৫-৩০টি ট্রলারে মাটি কেটে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

য়। এরফলে জেগে ওঠা চরে নতুন করে ভাঙনের সৃষ্টি হচ্ছে বলে এলাকাবাসীরা জানান। ওই চক্রের ভয়ে ভূমিহীনরা জমির কাছেও যেতে পাড়ছেননা। এযেন মরার উপর খরার ঘাঁ। জানা গেছে, বাউফলের কাছিপাড়া, কনকদিয়া ইউনিয়নে কারখানা ও লোহালিয়া নদীর ভাঙনে প্রায় ৫টি গ্রাম বিলীন হয়ে নতুন করে চরগরবদী, চর রঘুনদ্দী নামে কয়েকটি চর জেগে উঠেছে। ওই চরগুলো পার্শ্ববর্তী বাকেরগঞ্জ উপজেলার সীমানার মধ্যে পড়লেও নদী ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্তরা সিকস্তি হিসেবে খাজনা দিয়ে আসছে। এদিকে ওই চরগুলোর জমি কাছিপাড়া ও কনকদিয়ার ইউনিয়নের ভুমিহীন কৃষকদের মাঝে বন্দোবস্ত দিয়েছেন বাউফল উপজেলা ভুমি অফিস। কিন্তু ওই দুটি চর থেকে বেশ কয়েক বছর ধরে বাকেরগঞ্জের নলুয়া ও ফরিদপুরের বেশকিছু ইটভাটায় মাটি সরবরাহ করে আসছে একটি প্রভাবশালী চক্র। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, বাউফলের কালিশুরী ইউনিয়নের সিংহেরাকাঠির গ্রামের মনির হাওলাদার নামের এক ব্যাক্তি সিন্ডিকেট তৈরী করে ভূমিহীনদের নামমাত্র টাকা দিয়ে ট্রলার ও নৌকার মাধ্যমে ইটভাটায় মাটি সরবরাহ করে আসছেন। স্থানীয় ইব্রাহিম সিকদার নামের এক ব্যাক্তি অভিযোগ করে বলেন, ২০১৯ সালে ভুমিহীনদের মাটি লুট করে বিত্রিুর জন্যে বাউফল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছিলাম। মামলার পর পুলিশ মাটিসহ দুটি ট্রলার জব্দ করে জড়িমানা করে ছেড়ে দিয়েছেন। পরে আর তিনি নিজের খেয়ে শত্রুতা বাড়াতে চাইনি। একটি ট্রলার মালিক নাসির খাঁ জানান, তিনি প্রতি কড়া(৩ শতাংশ) জমির মাটি সাত হাজার টাকায় ক্রয় করে ইটভাটায় প্রতিফুট সাতটাকা দরে বিক্রি করেন। রশিদ নামের এক কৃষক জানান, নদীতে তার ভিটে- মাটি ভেঙ্গে গেছে। পরে চর পড়েছে। ওই চরে তিনি জমিও পেয়েছেন। কিন্তু চাষাবাদ করতে গেলে প্রভাবশালীরা ভয় দেখিয়ে হাতে কিছু টাকা ধরিয়ে দিয়ে মাটি কেটে নিয়ে যায়। এব্যাপারে মীম ইটভাটার মালিক আবুল হোসেন জানান, ট্রলার মালিকদের কাছ থেকে তারা ৭ টাকা ফুট দরে মাটি কিনে নেন, তবে কার মাটি সেটা তারা জানেনা। সিন্ডিকেটের প্রধান বলে খ্যাত মনির হোসেন হাওলাদারের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি কোন উত্তর দেননি। বাউফল উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মরিয়ম বেগম নিশু বলেন, তার নিজ ইউনিয়নেই এঘটান ঘটছে। বিষয়টি তিনি উপজেলা পরিষদের আইনশৃঙ্খলা সভায় উত্থাপণ করবেন। কাছিপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ রফিকুল ইসলাম তালুকদার বলেন, তার ইউনিয়নের হাজীপুর, বাহেরচর ও কাছিপাড়া এই তিনটি গ্রাম নদীগর্ভে বিলিন হয়ে নতুন করে চর জেগেছে। ওই চরগুলো থেকে এক শ্রেণির মাটি খেকো দৃর্বৃত্ত দিন রাত মাটি লুট করে নিয়ে যাচ্ছে। তারা সরকার দলীয় পরিচয়ে চলে বিধায় কেই কিছু বলতে সাহস পাচ্ছেনা। বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী

অফিসার মাধবী রানী রায় বলেন, তার উপজেলায় বেশকিছু ইটভাটা রয়েছে। ইটের মৌসুমে অভিযান করে বেশ কয়েকটি ভাটা তিনি বন্ধ করে দিয়েছেন। তবে চরের মাটি কেটে ইটভাটায় বিক্রির বিষয়টিা সম্পর্কে খবর নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleদেড় বছর পর রংপুর মেডিকেল কলেজে প্রাণ ফিরেছে
Next articleশ্রীমঙ্গলে আবারো লোকালয় থেকে বিশালাকৃতির অজগর সাপ উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।