ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: ‘মুজিববর্ষে’ চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় ৫ বীরাঙ্গনাসহ ২৯ জন অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধা পাচ্ছেন ‘বীর নিবাস’। এর মধ্যে শিবগঞ্জ উপজেলায় ১২ জন, সদর উপজেলায় ৯ জন, নাচোল উপজেলায় ৩ জন ও গোমস্তাপুর উপজেলায় ৫ জন। তাঁদের মধ্যে গোমস্তাপুর উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নে ৫ বীরাঙ্গনা পাবেন ৫টি বীর নিবাস।

মঙ্গলবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করে শিবগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম জানান, ১২টি বীর নিবাসের মধ্যে শিবগঞ্জ পৌর এলাকায় একটি, ধাইনগরে একটি, পাঁকায় দুটি, মনাকষায় চারটি, উজিরপুরে একটি, নয়ালাভাঙ্গায় একটি, শ্যামপুরে একটি ও বিনোদপুরে একটি করে বীর নিবাস নির্মাণ করা হবে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম আরো জানান, এ প্রকল্পটির মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের নিজস্ব ভিটায় পাকা দুটি বেডরুম, দুটি টয়লেট, একটি রান্নাঘর, একটি ডাইনিং রুম ও একটি ড্রইংরুমসহ একতলা ভবন নির্মাণ করা হবে। ৬৩৫ বর্গফুটের বাড়িটি হবে ফ্ল্যাট বাড়ি। প্রতিটি বাড়ির নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৩ লাখ ৪৩ হাজার ৬১৮ টাকা। যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে খুবই দ্রুত সময়ের মধ্যে কাজ শুরু হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাকিব-আল-রাব্বি জানান, এরই মধ্যে টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। শিগগিরই বীর নিবাসের নির্মাণ কাজ শুরু হবে। পর্যায়ক্রমে উপজেলার সকল অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধারা পাবেন এই বীর নিবাস। ১২টি বীর নিবাস নির্মাণে ব্যয় হবে ১ কোটি ৬১ লাখ ২৩ হাজার ৪১৬ টাকা।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধা-বিরাঙ্গনা-শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা, প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিধবা স্ত্রী ও সন্তানদের সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি ও আর্থ-সামাজিক অবস্থান উন্নয়নের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর গৃহীত পদক্ষেপ ও উপহার হিসেবে’ এই প্রকল্প নেয়া হয়েছে বলে জানান সাকিব-আল-রাব্বি।
নাচোল উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবিহা সুলতানা জানান, নাচোল উপজেলায় আপাতত ৩ জন অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধকে অনুরূপ বাড়ি নির্মাণ করে দেয়া হবে।
সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মৌদুদ আলম খাঁ জানান, বিভিন্ন ইউনিয়নে ৯ জন অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধার জন্য ৬টি ফ্ল্যাটবাড়ি নির্মাণ করা হবে।

গোমস্তাপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান জানান, উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নে ৫ জন বীরাঙ্গনাকে একটি করে ফ্ল্যাটবাড়ি বীর নিবাস নির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে।
ভোলাহাট উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাউছার আলম সরকার জানান, ভোলাহাটে এখনো বরাদ্দ আসেনি।
দউল্লেখ্য, প্রতিটি বীর নিবাস নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৩ লাখ ৪৩ হাজার ৬১৮ টাকা। বীর নিবাসের সংখ্যা আরো বাড়বে বলে জানা গেছে।

Previous articleরংপুরে আট পত্রিকার প্রকাশনা নিষিদ্ধ
Next articleপ্রেমের নিশান: আদিত্য রহমান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।