আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার পাহাড় কোলঘেঁষা গ্রামটির নাম বগা। ওই গ্রামে আব্দুল কুদ্দুস নামে সাত জনের বাস। অনেক খোঁজাখুঁজির পর অবশেষে দেখা হলো কাঙ্খিত কুদ্দুসের (৪৮) সঙ্গে। সরল স্বভাবের কদ্দুস পেশায় ভ্যান চালক। স্ত্রী, দুই ছেলে এক মেয়ে নিয়ে তার সংসার। পঞ্চম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় মেয়েকে বিয়ে দিয়েছিলেন আট মাস আগে।

মেয়ের কথা আসতেই চোখের কোণ দিয়ে গড়িয়ে পড়ছে জল। কাঁধে থাকা গামছা দিয়ে চোখ মুছে জানালেন, অনেক ছোট বয়সে তিনি মা’কে হারিয়েছেন। মায়ের আদর দিয়ে বড়বোন তাকে মানুষ করেছেন। বোনের সেই অধিকার থেকে ভাইয়ের মেয়েকে ছেলের বউ করে ঘরে নিবেন। বোনের সেই আবদার নাকি ফেলতে পারেননি কদ্দুস। বিয়ের বয়স হয়নি মেয়ের, তাই বিয়ের রেজিষ্ট্রি করা হয়নি। স্থানীয় মসজিদের ইমাম দিয়ে বিয়ে পড়ানোর কাজ শেষ করেন। বধূবেসে শিশুটি আজ স্বামীর ঘরে। পুতুল খেলার বয়সের মেয়েটি স্বামীর সংসারে দু’মাসও টিকতে পারেনি। নানা জটিলতায় ফিরে এসেছে বাবার ঘরে। মেয়ের জীবনটা নষ্ট হয়ে গেল! বলতে বলতে কুদ্দুসের চোখে ফের জল। স্বামীর ঘরে আর নয়, মেয়ে আবার যাবে স্কুলে। তার মতো এমন ভুল করতে মানা করলেন অন্যদের। জসীম উদ্দীনের ‘কবর’ কবিতায় দাদা তার নাতীর কাছে স্ত্রীর কথা বর্ণনা করেছেন, ‘এতটুকু তারে এনেছিনু ঘরে সোনার মতন মুখ, পুতুলের বিয়ে ভেঙ্গে গেল বলে কেঁদে ভাসাইত বুক’। একবিংশ শতাব্দীর এ যুগে এসেও কবির সেই বাল্যবধূর দেখা। শিক্ষায় প্রাথমিকের গন্ডি ওরা কেউ পার না হতে পারলেও বধূসেজে এলাকার গন্ডি পার হয়ে আজ স্বামীর ঘরে। মহামারি করোনার কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের সময় টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার প্রাথমিকের ১৬ জন ছাত্রী বাল্যবিয়ের শিকার হয়েছে। উপজেলায় মোট প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১৭২ টি। তাদের মধ্যে চতুর্থ শ্রেণির ৩ জন এবং পঞ্চম শ্রেণির ১৩ জনের বিয়ে হয়েছে। বিয়ের পিঁড়িতে বসা শিশুদের পরিবারের সঙ্গে কথা ও এলাকাবাসি জানায়, দারিদ্রতা, শিক্ষার অভাব, আত্মীয়স্বজনসহ আশেপাশের মানুষের চাপেই বিয়েগুলো হয়েছে। একইসঙ্গে মেয়েদের সামাজিক নিরাপত্তার বিষয়েও কথা তোলেন তারা। বাল্যবিয়ের শিকার সংশ্লিষ্ট স্কুলের শিক্ষকরা জানান, বিয়ে হলেও কেউ কেউ আবার স্কুল ক্লাস করতেছে।

নাম প্রকশে অনিচ্ছুক একজন প্রধান শিক্ষক বলেন, করোনায় স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা বিয়ের শিকার হয়েছে। তবে প্রতিষ্ঠান খোলায় আগের তুলনায় বিয়ে দেওয়ার হার অনেকটাই কমে এসেছে। জানা যায়, উপজেলায় স্কুল বন্ধকালিন সময়ে বাল্যবিয়ে বন্ধে কোনো কাউন্সেলিং লক্ষ্য করা যায়নি। এ বিষয়ে টাঙ্গাইল জেলা মহিলাবিষয়ক উপ-পরিচালক মেহেরুন্নেছা মনি বলেন, করোনাকালে এ বিষয়ে আমাদের শুধু ভার্চুয়াল সভা হয়েছে, উঠান বৈঠক করা সম্ভব হয়নি। এ সংক্রান্ত ওপরের কোনো নির্দেশনা ছিলনা। স্কুল কলেজ খোলার পর আমরা জানতে পারলাম কি সর্বনাশ হয়ে গেছে! মাঠে গিয়ে আমরা নতুন করে আবার কাজ শুরু করছি। নবম-দশম শ্রেণির যে সকল শিক্ষার্থীর বিয়ে হয়েছে, এরই মধ্যে তারা অনেকেই গর্ভবতী হয়ে গেছে। ঘাটাইলে মাধ্যমিক বিদ্যালয়েও বাল্যবিয়ের শিকার হয়েছে বহু শিক্ষার্থী। এখানে মাধ্যমিক স্তরে স্কুল ও মাদ্রাসার সংখ্যা ৯২টি। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, এ পর্যন্ত ৪৫ প্রতিষ্ঠান বাল্যবিয়ের তথ্য দিয়েছে। প্রাপ্ত তথ্যমতে ১৩০ জন শিক্ষার্থীর বিয়ে হয়েছে। কিন্তু অনুসন্ধানে জানা যায়, এক স্কুলেই বিয়ে হয়েছে ৫৫ জন ছাত্রীর। তবে ওই প্রতিষ্ঠান প্রধানের দাবি সব ক্লাসের তথ্য এখনো পাওয়া যায়নি, এর সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। শিক্ষার মাধ্যমিক স্তরেই শুধু শিক্ষার্থীরা বাল্যবিয়ের শিকার হচ্ছে না, প্রাথমিকের গন্ডির ভেতরেও ঘটছে এমন ঘটনা। এদিকে কোভিডের শুরুতে কিছু বেসরকারি সংস্থা বাল্যবিয়ের ওপর জরিপ চালিয়েছিল। গত বছরের এপ্রিল থেকে অক্টোবরে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের জরিপ বলছে, ২১ জেলায় ১৩ হাজার ৮৮৬ টি বাল্যবিবাহ হয়েছে। অর্থ্যাৎ মাসে প্রায় ১ হাজার ৯৮৩ জন বাল্যবিয়ের শিকার হয়েছে। এ বিষয়ে ঘাটাইল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান বলেন, যেহেতু করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল, তাই বাল্যবিয়ে রোধে কোনো পদক্ষেপ নেয়া যায়নি। ঘাটাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সোহাগ হোসেন বলেন, বাল্যবিয়ে রোধে অভিভাবকদের সচেতন করা হবে। যে মেয়েগুলোর বিয়ে হয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে সঙ্গে নিয়ে তাদের বিদ্যালয়ে ফেরানোর ব্যবস্থা করা হবে।

Previous articleতালেবানকে যে শর্ত দিলেন এরদোগান
Next articleবিসিএস প্রিলিতে উত্তীর্ণ ঢাবির সাবেক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।