তাবারক হোসেন আজাদ: পাওয়ার ট্রলি দিয়ে শত শত বিঘা জমির উপরিভাগের মাটি কেটে ইটভাটায় নেওয়া হচ্ছে। ভাটা মালিকদের অর্থের লোভে কৃষকরা মাটি বিক্রি করে দিচ্ছেন। এতে জমিগুলো উর্বরতা হারাচ্ছে। আর জমিগুলো অনাবাদি হয়ে যাচ্ছে। এ ঘটনা ঘটছে বুধবার (২৬ ডিসেম্বর) লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার দক্ষিন চরবংশী ইউপির মিয়ারহাট সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা রাহুলের মাছঘাট সংলগ্ন টুনিরচর গ্রামে। কৃষকরা বলছেন, প্রশাসন জানলেও ব্যবস্থা নিচ্ছে না। ভাটা মালিকদের দাবি, প্রশাসনকে ম্যানেজ করে চলছে কাজ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চরকাছিয়া গ্রামের টুনিরচর এলাকার মাটি ব্যবসায়ী ইদ্রীস মোল্লা, দাদন ও মহিউদ্দিন মোল্লাসহ ৫ জন ব্যবসায়ী ১০/১২ জন শ্রমিক দিয়ে সরিষা ক্ষেত ও ধানী জমি থেকে ৬/৭ ফুট করে মাটি কেটে নিচ্ছেন। প্রতিদিন বিপুল সংখ্যাক ট্রাকে মাটিগুলো ইটভাটায় নেওয়া হচ্ছে। এতে ওইসব জমির পার্শ্ববর্তী মিলন, বেল্লাল ও তোতা মিয়াসহ ৭-৮ জন কৃষকের ফসলি জমি ভাঙনের মুখে পড়েছে।

চরকাছিয়া গ্রামের মাটি ব্যবসায়ী ইদ্রীস মোল্লা. ফসলি জমির মাটি কেটে নেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, আমার মতো আরো কয়েকজন ব্যবসায়ী ফসলি জমির মাটি কেটে ইটভাটায় বিক্রি করছেন। গভীর করে মাটি কেটে নেওয়ায় পাশের জমির মালিকের ও রাস্তার ক্ষতির কথাও স্বীকার করেন তারা। এসব মাটি তারা রায়পুরসহ জেলার বিভিন্ন জনের ইটভাটায় বিক্রি করছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে রায়পুরে দক্ষিন চরবংশি ইউপির এক ইটভাটা মালিক জানান, ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি ইটভাটায় বিক্রি করা মানে ওই জমি ও কৃষকের ক্ষতি করা। উপজেলার ১০ ইউনিয়নে অন্তত ৫টি ইটভাটা চালু রয়েছে। এসব ভাটা মালিকরা দালালদের মাধ্যমে ফসলি জমি থেকে উর্বর মাটি কিনছেন। স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই মাটি ব্যবসা চলছে।

চরবংশি গ্রামের কৃষক আসগর আলী জানান, বেশি টাকা পাওয়ার কারণে তার দুই বিঘা ফসলি জমির মাটি বিক্রি করে দিয়েছেন। পরে ওই জমিতে আগের মতো আর ফসল হবে কিনা তা তিনি জানেন না।

দক্ষিন-চরবংশি ইউনিয়নের সদস্য নজরুল ইসলাম বেপারি বলেন,জমির মূল উর্বরতা শক্তি থাকে উপরিভাগে। এ মাটি (টপ সয়েল) কেটে নিলে জমির উর্বরতা শক্তি সঞ্চয় করতে সময় লাগে অন্তত এক যুগ। ইটভাটা মালিকেরা লোভ দেখিয়ে কৃষকের থেকে জমির মাটি কিনতে পারলেই, অন্য কৃষককেও বাধ্য হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, রায়পুরের মতো সারাদেশেই যেভাবে ফসলি জমির টপ সয়েল কেটে নেওয়া হচ্ছে, তাতে আগামী ১০-১২ বছর পর অনেক কৃষি জমি অনাবাদি হবে। আর এতে দেশে ধান-চালের বাম্পার ফলন হবে না। ফসলি জমির মাটি আর কাটবে না বলে মাটি ব্যবসায়ী ও ইটভাটা মালিক বললেও তারা তা শুনছে না।।

রায়পুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জোবায়ের হোসেন জানান, সরকারি নিয়ম না মেনেই ফসলি জমিতে অনেক ইটভাটা তৈরি হয়েছে। আর এসব ভাটার জন্য মাটির প্রয়োজন। তাই উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষকদের জমির টপ সয়েল তারা নিচ্ছে। এতে ফসলি জমি ও কৃষকদের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। আর এ টপ সয়েল কেটে নেওয়া বন্ধ করার ক্ষমতা আমাদের নেই। এসিল্যান্ড দেখবেন।

এ প্রসঙ্গে রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অনজন দাশ বলেন, ফসলি জমির মাটি কেটে নেওয়ার কথা মৌখিকভাবে শুনেছেন। খোঁজ নিয়ে মাটি ব্যবসায়ী ও ইটভাটা মারিকদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleমানুষ এখন ভালো আর্থিক অবস্থার মধ্যে আছে, তাদের অর্থ খরচের সামর্থ্য রয়েছে: অর্থমন্ত্রী
Next articleদেশে করোনায় আরও ১ জনের মৃত্যু, বেড়েছে সংক্রমণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।