জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষরা ৪ মহিলাকে পিটিয়ে আহত করাসহ চোখে ছুরিকাঘাত করে এক যুবকের চোখ নষ্ট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মুমূর্ষু অবস্থায় ওই যুবকে ঢাকার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় কেশবপুর থানায় মামলা হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, রোকসানা আক্তারের পিতা উপজেলার রাজনগর বাকাবর্শী গ্রামের নজরুল ইসলামের সাথে একই গ্রামের আব্দুল্লা আল বাকি ও সোবহান গাজীর দীর্ঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এবিরোধের জের ধরে গত ১ এপ্রিল বিকেলে রাজনগর বাকাবর্শী গ্রামের তরিকুল ইসলামের মৎস্য ঘেরের দক্ষিণ পাড়ে আব্দুল্লা আল বাকির ছেলে রোরহান দফাদার, সোবহান গাজীর ছেলে আব্দুল খালেক গাজী, হাবিবুর রহমান, মামুন, কামাল হোসেনসহ ৭/৮ জন যুবক রোকসানা আক্তারের স্বামী আজিজুর রহমানকে একা পেয়ে তার পথরোধ করে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করতে থাকে। এ সময় আব্দুল খালেক গাজীর নের্তৃত্বে তার স্বামী আজিজুর রহমানকে এলোপাতাড়িভাবে মারপিট করে মারাতœক জখম করে। এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষরা তার বাম চোখে চাকু দিয়ে আঘাত করায় তার বামচোখ রক্তাক্ত জখম হয়। ওইদিনই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্যে ঢাকার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এসময় আজিজুর রহমানকে ঠেকাতে গিয়ে কোহিনুর বেগম, তাসলিমা বেগম, আলেয়া বেগম, তাসলিমা বেগম ও আলামিন গাজী আহত হয়।

রোকসানা আক্তার অভিযোগ করেন, ঢাকা চক্ষু হাসপাতালের ডাক্তাররা তাকে জানিয়েছেন মারাতœক আঘাতের জন্যে তার বামচোখ নষ্ট হয়ে গেছে। যা আর ভালো হওয়ার সুযোগ নেই। এ ঘটনায় তিনি বাদি হয়ে ৭ জনের নামে কেশবপুর থানায় মামলা করেছেন। যার নং- ০৩, তাং- ০৪/০৪/২০২২। বর্তমান আসামীরা তাকে মামলা তুলে নেয়ার জন্যে অব্যাহতভাবে হুমকি দিচ্ছেন। যে কারণে তার পরিবার ভয়ে ভয়ে রাত্রি যাপণ করছে।

Previous articleকেশবপুরে চাঁদার টাকা না পেয়ে মৎস্য ঘেরের ক্ষতিসহ লুটপাটের অভিযোগ
Next articleঅকেজো হয়ে পড়ে আছে কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত খাবার পানি সরবরাহ বরেন্দ্র বহুমূখী প্রকল্প
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।