গিয়াস কামাল: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার বারদী বাজারে আধিপত্য বিস্তার ও ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাবেক চেয়ারম্যান জহিরুল হক ও বর্তমান চেয়ারম্যান লায়ন বাবুলের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, সংঘর্ষ ও বাড়িঘর ভাংচুর, অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটনা ঘটেছে। বুধবার দুপুরে থেকে দফায় দফায় এ সংঘর্ষ হয়।

সংঘর্ষে দুপক্ষের কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশংকাজনক। জানা যায়, উপজেলার বারদী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাবেক চেয়ারম্যান জহিরুল হক ও বর্তমান চেয়ারম্যান লায়ন বাবুলের সমর্থকদের মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। বুধবার দুপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বারদী বাজারে জহিরুল হকের ভাই তাজুল ইসলামকে মারধর করে লায়ন বাবুলের সমর্থকরা। পরে জহিরুল হকের লোকজন একত্রিত হয়ে ঘটনাস্থলে আসলে তাদের উপরও হামলা চালায়। এ সময় দুপক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া সংঘর্ষ ও দোকানপাট, বাড়িঘর ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে সাবেক চেয়ারম্যান জহিরুল হকের পক্ষের ইউপি সদস্য নাজমুল হোসেন, তাজুল ইসলাম, হযরত আলী, নাজিম মিয়া, বরকত উল্লাহ, আলী মোহাম্মদ, আমজাদ হোসেন, মজিবুল্লাহ, সোহেল সরকার, কবির এবং বর্তমান চেয়ারম্যান লায়ন বাবুলের পক্ষের মাসুম সরকার, বাসেদ সরকার, মামুন সরকার, হুমায়ুন সরকার সহ দুপক্ষের ২০ জন আহত হয়। আহতদের সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতদের মধ্যে হযরত আলী ও আলী মোহাম্মদের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। বর্তমানে ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমান চেয়ারম্যান লায়ন বাবুলের সমর্থক ইব্রাহিম খলিল ইবু জানান, নির্বাচনের পর থেকে বারদী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জহিরুল হক ও তার সমর্থক ইউপি সদস্য নাজমুল হোসেনের লোকজন প্রভাব দেখিয়ে আসছে। এ নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটি নিয়ে তারা আমাদের বাড়িঘর ভাংচুর, অগ্নি সংযোগ ও হামলা চালিয়ে পিটিয়ে আহত করে। অপরদিকে জহিরুল হকের সমর্থক ইউপি সদস্য নাজমুল হোসেন বলেন, ইবু ও তার লোকজন হামলা চালিয়ে আমাকে সহ আমার লোকজনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে। পরে তাদের নিজেদের বাড়িতে নিজেরাই অগ্নিসংযোগ ও বাড়িঘর ভাংচুর করে আমাদের লোকজনের উপর দায় চাপাচ্ছেন।

বারদী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জহিরুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বারদী মারকার্জ মসজিদের পাশে একটি সরকারী পুকুর রয়েছে। ওই পুকুরে মাছ চাষ করে মসজিদের আয় ও ব্যয় নির্বাহ করা হয়। সম্প্রতি বর্তমান চেয়ারম্যান লায়ন বাবুলের ছোট ভাই আমিনুল ইসলাম ও তার লোকজন ওই পুকুর লিজ নিতে উঠে পড়ে লাগে। এতে কথাকাটাকাটি হওয়ার এক পর্যায়ে সংষর্ষের ঘটনা ঘটে। সোনারগাঁও থানার ওসি মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান বলেন, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়েছে। বর্তমানে ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Previous articleসাপাহারে ঘুমন্ত অবস্থায় গৃহবধূর মাথার চুল কেটে মধ্যযুগীয় নির্যাতন
Next articleবাবার কোলে থাকা শিশুকে গুলি করে হত্যা, আটক ৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।