আহম্মদ কবির: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওর ওয়াচ-টাওয়ার সংলগ্ন হাওরের কান্দায় উপচে পানি প্রবেশ করছে ও একই এলাকার গুরমার হাওর বর্ধিতাংশ উপ-প্রকল্পের ২৭নং প্রকল্পের ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে গলগলিয়া, নয়হাল,কাউয়ারখাল,পানা,খাইজ্যাউরী সহ ৬টি হাওরের প্রায় ৫বিঘা জমির ধান পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও পার্শ্ববর্তী মধ্যনগর উপজেলার বংশীকুন্ডা দক্ষিণ ইউনিয়নের হানিয়া কলমা সহ ৪ টি হাওরের ৩বিঘা জমির ধান পানিতে তলিয়ে যাওয়ার হুমকিতে রয়েছে।

আজ(১৭এপ্রিল) রবিবার সকাল থেকে উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের টাঙ্গুয়ার হাওর ওয়াচ-টাওয়ার সংলগ্ন কান্দা দিয়ে উপচে পানি প্রবেশ করছে, সকাল থেকেই উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় লোকজন উপচে পড়া পানি আটকানো চেষ্টা করছে।অপরদিকে বেলা ৩টার দিকে একই এলাকার গুরমার বর্ধিতাংশ উপ-প্রকল্পের ২৭নং প্রকল্পের ফসল রক্ষা বাঁধটি ভেঙে যায়।এতে তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর দক্ষিণ ও শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের নয়হাল,গলগলিয়া, কাউয়ারখাল,পানা,খাইজ্যাউরী,সহ ৫-৬টি হাওরের ৫বিঘা জমির ধান কৃষকের সামনেই পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে।ফলে তলিয়ে যাওয়া পাকা ও আধাপাকা ধান নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়ছে স্থানীয় কৃষক।

জানা যায়, সপ্তাহ ব্যাপী ধরে ভারি বৃষ্টিপাত সহ শিলাবৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা ভারতীয় পাহাড়ি ঢলে অস্বাভিকভাবে নদীর পানি বৃদ্ধি পেতে থাকে।

রবিবার বিকেলে সরেজমিনে টাঙ্গুয়া সহ গুরমার হাওর ঘুরে দেখা যায়, অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধির কারনে হাওরের চারদিকেই উচু কান্দাগুলো উপচে পানি প্রবেশ করছে।

পানার হাওরের কৃষক সাইফুল ইসলাম শেখ (৬৫) জানান, তিনি এ হাওরে ৩ বিঘা জমিতে ধান লাগিয়েছিল। রবিবার ২৭ নং প্রকল্পের বাঁধ ভেঙ্গে তার সমস্ত জমির আধাপাকা ধান তলিয়ে গেছে।

গলগলিয়া হাওরের কৃষক শফিক নুর জানান, গলগলিয়া একটি ছোট হাওর এখানে প্রায় ৫০/৬০ টি কৃষক পরিবার জমি চাষাবাদ করেছিলেন, কিন্তুু গুরুমার হাওরের একটি ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙে আমাদের সর্বনাশ হয়ে গেছে।

মধ্যনগর উপজেলার দক্ষিণ বংশিকুন্ডা ইউনিয়নের কৃষক হাবিব মিয়া বলেন, তাহিরপুর উপজেলার গুরমার হাওরে পানি প্রবেশ করায় আমাদের সবগুলো হাওর এখন ঝুঁকিতে রয়েছে, যেকোনো সময় আমাদের হাওরের ফসল পানিতে তলিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য শিমুল আহমেদ বলেন, নদীতে অস্বাভিক পানি বৃদ্বির ফলে রবিবার বিকেলে হঠাৎ গুরমার হাওরের বাঁধ ভেঙ্গে যায়। এতে আট-দশটি গ্রামের কৃষকের শতশত বিঘা জমির ধান পানিতে ডুবে নষ্ঠ হয়েছে।

ভেঙে যাওয়া বাঁধ পরিদর্শন করেছেন তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো: রায়হান কবির ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. হাসান উদ দৌলা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. হাসান উদ দৌলা বলেন, তাহিরপুর উপজেলার দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নের গুরমার হাওরের বর্ধিতাংশ উপ প্রকল্প ২৭ নং বাঁধটি ভেঙে যাওয়ায় গলগলিয়া ও পানার হাওরের প্রায় ৩শত বিঘা জমির ধান পানিতে তলিয়ে গেছে। আর কিছু ধান কৃষক ইতিমধ্যে কেটে ফেলেছেন।

কৃষি কর্মকর্তা জানান, হাওরের পাকা ধান কেটে ফেলায় ক্ষতির পরিমাণ কম হয়েছে। ২ টি হাওরেই ধান কাটা মাড়াইয়ের কাজ শুরু হয়েছিলো।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ সহকারী প্রকৌশলী মো আসাদুজ্জামান সেলিম বলেন, গুরমার বর্ধিতাংশ উপ প্রকল্পের ২৭নং বাঁধটি কেনো ভেঙে গেছে এবং প্রকল্পের কাজে কোনো অনিয়ম হয়েছে কি- না তা আমরা খোঁজ নিয়ে দেখছি। বাঁধের কাজে গাফেলতি থাকলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রায়হান কবির বলেন , পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে ২৭ নং প্রকল্পের বাঁধটি ভেঙে গেছে । বাঁধ নির্মাণ কাজে অনিয়ম আছে কি-না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। নদীতে অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধির ফলেও হয়তোবা বাঁধটি ভেঙে যায়। আমরা ক্ষতির পরিমান ও ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের তালিকা করবো।

Previous articleআমিরাতে কর্মস্থলে প্রবাসীর মৃত্যু
Next articleছাত্রদলের নয়া সভাপতি শ্রাবন, সম্পাদক জুয়েল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।