শফিকুল ইসলাম: সরকারি কাজে বাঁধা দেওয়ায় জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার রায়কালী ইউনিয়ের চার নম্বর ওর্য়াডের ইউপি সদস্য মুক্তার হোসেনকে (৩৬) দুই মাসের করাদণ্ড দিয়েছেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস,এম হাবিবুল হাসান বৃহস্পতিবার বিকেল তিনটায় রায়কালী ইউনিয়নের রায়কালী বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার সময় তাঁকে এই দণ্ড দিয়েছেন।

পুলিশ তাঁকে কারাগারে পাঠিয়েছে।
মুক্তার হোসেন রায়কালী খাঁ পাড়া গ্রামের মৃত হাফেজ উদ্দীনের ছেলে। পুলিশ সাজাভোগের জন্য বৃহস্পতিবার বিকেলে তাঁকে জয়পুরহাট কারাগারে পাঠিয়েছে। আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুর রহমান তাঁকে কারাগারে পাঠানোর নিশ্চিত করেছেন।

ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা গেছে, আজ বৃহস্পতিবার ইউএনও এস,এম হাবিবুল হাসান রায়কালী বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করছিলেন। বিকেল তিনটায় দিকে রায়কালী ইউনিয়ন পরিষদের চার নম্বর ওর্য়াডের ইউপি সদস্য মুক্তার হোসেন ইউএনও কাছে গিয়ে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করতে বাঁধা দেন। তিনি সেখানের ইউএনওর সঙ্গে অসৌজন্যমুলক আচরণও করেন। সেখানে ভ্রাম্যমান আদালতে তাঁকে দুই মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। পুলিশ তাঁকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এরপর তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, মুক্তার হোসেন অনেক আগে থেকে উশৃঙ্খল প্রকৃতির ছিলেন। ইউপি সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে উশৃঙ্খলার মাত্রা আরও বেড়ে যায়। মুক্তার হোসেন বিবাহিত। সম্প্রতি তিনি রায়কালী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রীকে অপহরণ করে নিয়ে যান। এঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা মুক্তারের বিরুদ্ধে আক্কেলপুর থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন। পুলিশ ওই ছাত্রীকে উদ্ধার ও মুক্তার হোসেনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়েছিল। তখন মুক্তার হোসেন দাবি করেছিলেন, ওই ছাত্রীর সঙ্গে তাঁর প্রেমের সর্ম্পক ছিল। স্বেচ্ছায় স্কুল ছাত্রীর তাঁর কাছে এসেছিলেন।

ইউএনও এস,এম হাবিবুল হাসান বলেন, বৃহস্পতিবার রায়কালী ইউনিয়নের রায়কালী বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করছিলাম। এসময় ইউপি সদস্য মুক্তার হোসেন এসে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার কাজে বাঁধা দেন ও আমার সঙ্গে অসৌজন্যমুলক আচরণ করেন। ভ্রাম্যমান আদালতে তাঁকে দুই মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।
আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুর রহমান বলেন, ভ্রাম্যমান আদালত ইউপি সদস্য মুক্তার হোসেনকে দুই মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন। সাজাভোগের জন্য বিকেকে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এরআগে মুক্তার হোসেনের বিরুদ্ধে স্কুল ছাত্রী অপহরণের মামলা হয়েছিল। স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার ও আসামি মুক্তার হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। পরে আদালত থেকে জামিন পেয়েছিলেন।

Previous articleদোকানের সামনেই গুলি করে নোয়াখালীর প্রবাসীকে হত্যা
Next articleডিমলায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।