জয়নাল আবেদীন: সরকারি প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী দেশের সকল সরকারি ও আধা-সরকারি অফিস, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষের প্রধান ও শাখা কার্যালয়, সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ছবি সংরক্ষণ ও প্রদর্শনের নিয়ম থাকলেও বিএনপিপন্থী এক ইউনিয়ন চেয়ারম্যান তা মানছেন না।

চেয়ারম্যানের এমন নেতিবাচক মনোভাবের কারণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকেই। রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার আলমবিদিতর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের কক্ষে টাঙানো হয়নি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি। তবে ছবি টাঙানো হয়েছে ইউপি সচিবের কক্ষে।

গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে গংগাচড়া উপজেলার ৮ নং আলমবিদিতর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করে বিএনপি নেতা মোকাররম হোসেন সুজন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এর আগে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন জাতীয় পার্টির আফতাবুজ্জামান আফতাব। সেইসময় তার কক্ষে ছবি টাঙানো ছিল।মোকাররম হোসেন সুজন দায়িত্ব গ্রহণের পর ছবি দুটো নামিয়ে ইউনিয়ন সচিবের কক্ষে টাঙানোর নির্দেশ দেন।

বুধবার (২২ জুন) সাড়ে তিনটায় সরেজমিনে গিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিবের কক্ষ বন্ধ পাওয়া যায়। মুঠোফোনে বিষয়টি স্বীকার করে ইউপি সচিব মো. নুরুন্নবী সুজন বলেন, চেয়ারম্যান মহোদয় সব সময় অফিসে থাকেন না। ঢাকাসহ বিভিন্ন জায়গায় ওনাকে যেতে হয়। যেহেতু দাফতরিক সব কার্যক্রম সচিবকে সামলাতে হয় তাই চেয়ারম্যানের নির্দেশে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি সেখান থেকে নামিয়ে আমার কক্ষে যথাযতভাবে টাঙানো হয়েছে।

এদিকে চেয়ারম্যানের কক্ষে ছবি না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকেই। এ বিষয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হারুন অর রশীদ বলেন, চেয়ারম্যান এমন কাজ করতে পারেন না। সরকারি নির্দেশনা মেনে না থাকলে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গঙ্গাচড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আনিছুর রহমান আনিছ বলেন, বিষয়টি শুনেছি। তিনি কাজটি ঠিক করেননি।

সরেজমিনে দেখতে এবং এ নিয়ে কথা বলতে চেয়ারম্যানের কক্ষে কয়েকবার গেলেও তা বন্ধ থাকায় সম্ভব হয়নি। বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে ইউপি চেয়ারম্যান মোকাররম হোসেন সুজনের মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এরশাদ উদ্দিন বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি টাঙানোর বিষয়ে চেয়ারম্যানকে কয়েকবার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এরপরও তিনি নির্দেশনা না মানলে বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।

এব্যাপারে গতকাল বৃহস্পতিবার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ পরিচালক জিলুফা সুলতানা এবং রংপুর বিভাগীয় পরিচালক ফজলুল কবীরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাঁরা দুজনই আজই জেনেছেন বলে জানান এবং আজই বিষয়টি তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেলে ব্যাবস্থা নেবেন বলে এ প্রতিবেদককে জানান।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জ আদালতে হাজির হয়ে ক্ষমা চাইলেন ওসি
Next articleঢাবিতে হলের দরজা ভেঙ্গে শিক্ষার্থীকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।