জয়নাল আবেদীন: রংপুরের পীরগাছা উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়নে ১২ কিলোমিটার কাটানদী খাল পুন খনন করায় ৯ গ্রামের ৪ শ ৯০টি কৃষক ও মৎস চাষি পরিবারের ভাগ্যের চাকা ঘুরে গেছে ।এই খালটি পুন খননের মাধ্যমে ধান উৎপাদন হচ্ছে আগের চেয়ে দ্বিগুণ ।

ইতোমধ্যে প্রাণী সম্পদ, মৎস, এবং আবাদে কৃষকের যে উপকার হয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা । আর এটিকে টিকিয়ে রাখার দায়িত্ব কিন্তু সুবিধাভোগী সকল সদস্যদের । গতকাল বুধবার তাম্বুলপুর ইউনিয়নের পশ্চিম দেবু দাখিল মাদ্রাসা মিলনায়তনে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আয়োজনে ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্প দ্বিতীয় পর্যায়ের আওতায় কাটা নদী খাল উপ প্রকল্পের উপকারভোগী সদস্য এবং সদস্যাদের নিয়ে দিন ব্যাপি প্রশিক্ষণ চলাকালে এসব কথা বলেন বক্তারা ।

উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদান করেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: রেজাউল হক, বিশেষ অতিথির বক্তব্য প্রদান করেন পীরগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ শামসুল আরেফিন, উপজেলা প্রকৌশলী মনিরুল ইসলাম,তাম্বুলপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বজলুর রশীদ এবং পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতির সাধারন সম্পাদক নাজমুল হক্। দিনব্যাপি প্রশিক্ষন প্রদান করেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের সোসিওলজিষ্ট লুৎফা খাতুন বুবলী, ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্প দ্বিতীয় পর্যায়ের সহকারী প্রকৌশলী এস এম নাহিদ হাসান ,পীরগাছা উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা: আব্দুস ছালাম,উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল আলম, উপজেলা মৎস কর্মকর্তা হাকিবুর রহমান,উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা শামসুন্নাহার । এই প্রশিক্ষণে সুবিধাভোগী দুই শতাধিক নারী পুরুষ উপস্থিত থেকে হাঁস মুরগি,গরু ভেড়া পালন ও রোগ বালাই প্রতিকার সম্পর্কে জানতে পারেন।

সমিতির নারী ও পুরুষ সদস্য আয়বৃদ্ধিমূলক কর্মকান্ড ও সহায়তা প্রদান, মানসম্মত শষ্যবীজ উৎপাদন সংরক্ষণ বসতবাড়ীর আঙ্গিনায় শাক সবজি চাষ জৈব সার, কেঁচো সার তৈরি, ব্যবহার বিপনণ সম্বনিত ব্যবস্থাপনা । এছাড়াও ধান ক্ষেতে মাছ চাষ প্রাকৃতিক মৎস উৎপাদন ও সংরক্ষণ, পুকুরে মাছ চাষ পোনা উৎপাদন, খাচায় মাছ চাষ সহ অনুমোদিত মূলধণ সমপরিমান শেয়ার ক্রয়/বিক্রয়, নিয়মিত সঞ্চয় আদায় পরিকল্পনা ও রক্ষনাবেক্ষণ পরিকল্পনা ক্ষুদ্র ঋণ বাস্তায়ন, ঋণ আদায় ও সঞ্চয় আদায় কৌশল সম্পর্কে ব্যাপক ধারণা লাভ করেন ।

উল্লেখ্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আয়োজনে ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্প দ্বিতীয় পর্যায়ের আওতায় কাটানদী খাল খননের ফলে পূর্বের চেয়ে বর্তমানে ফলন হচ্ছে দিগুণ । সুবিধাভোগী রিপন, আলেয়া বেগম, জরিনা সমিতির সভাপতি সম্পাদক এ প্রতিনিধিকে জানান খননের আগে মোট আবাদ হয়েছিলো ২৩০০ মেট্রিকটন ধান । খননের পরে এ বছর তা অতিক্রম করে উৎপাদন হয়েছে ৪০০০ হাজার মেট্রিক টন ধান। প্রকল্পের আওতায় মোট এলাকা হচ্ছে ৮শ২০ হেক্টর জমি এর মধ্যে উপকৃত এলাকা হচ্ছে ৭শ১০ হেক্টর জমি ।

Previous articleসুবর্ণচরে মিনি ক্যাসিনো থেকে ৬ মোটরসাইকেল আটক
Next articleপ্রতিমা বিসর্জন দিতে গিয়ে জয়পুরহাটে নদীতে ডুবে দুই শিক্ষার্থী নিখোঁজ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।