মোঃ পাভেল মিয়া: জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব বিবেচনায় বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম ঝুঁকিপূর্ণ একটি দেশ। জার্মান ওয়াচ গে-াবাল-এর জলবায়ু ঝুঁকি সূচক (সিআরআই-২০২১) অনুযায়ী, জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য বাংলাদেশ শীর্ষ দশ দেশের একটি। ঝুঁকি ও ক্ষতিগ্রস্তের দিক বিবেচনায় এ দেশের অবস্থান সপ্তম। দেশের অন্যান্য অঞ্চলের ন্যায় জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে দেশের উত্তরের জেলা কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার জনগোষ্ঠীর জীবন-জীবিকা, কৃষি এবং প্রাকৃতিক পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। পাশাপাশি প্রভাব পড়েছে পরিবেশ বান্ধব জীবিকায়নে।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে এ অঞ্চলে জিডিপি প্রবৃদ্ধি যাতে লেগেছে ধাক্কা। দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনে উৎপাদন, পাইকারি ও খুচরা ব্যবসা, পরিবহন, নির্মাণ ও কৃষি খাত উল্লেখযোগ্য অবদান রাখলেও এ উপজেলার অর্থনীতি কৃষি নির্ভর। ভারতীয় সীমান্ত ঘেঁষা এ উপজেলার মোট আয়তন ১৬৩ দশমিক ৬৩ বর্গকিলোমিটার। মোট জনসংখ্যা ১ লক্ষ ৪০ হাজার ৩৯২ জন এবং মোট আবাদি জমি ১২ হাজার ৪৪৫ হেক্টর। এসব জমিতে ধান, পাট, ভুট্টা ও শাক-সবজি চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করেন প্রায় ৩৮ হাজার কৃষক পরিবার। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রান্তিক কৃষক। ব্যাহত হচ্ছে এ অঞ্চলের কাক্ষিত কৃষি উৎপাদন। এছাড়াও হাঁস মুরগী, গবাদিপশু পালনসহ মৎস্য চাষের মতো পরিবেশ বান্ধব জীবিকায় টিকে থাকাও কঠিন হয়ে পড়ছে দিনে দিনে।

সাম্প্রতিক কালে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে প্রাকৃতিক প্রতিকূলতার মুখোমুখি হতে হয়েছে উপজেলার ধান, পাট, ভুট্টাসহ শাক- সবজি চাষিদের। গত ইরি-বোরো মৌসুমে অসময়ের অতিবৃষ্টিতে চরম বিপাকে পড়েছিলো গোটা উপজেলার কৃষক। বোরো খেতের পাকা ধান, শাক- সবজির খেত পানিতে তলিয়ে বহু কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। খেতের ফসল ঘরে তুলতে গিয়ে বজ্রাঘাতে কৃষক হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে। টানা বৃষ্টিতে চাষিরা খেতের ভুট্টা সময় মতো ঘরে তুলতে পারে নি এবং আমনের বীজতলা বাঁচাতেও হিমসিম খেতে হয়েছে। অতিবৃষ্টির কারণে ব্যাহত হয়েছে পাট চাষাবাদ। কয়েক দিন পরেই আবার দেখা গেছে উল্টো চিত্র। দেখা দিল খরার খরগ। পানির অভাবে পাট জাগ দিতে ভোগান্তির শিকার হতে হয়েছে পাট চাষিদের। ধরার কারণে থমকে ছিল আমন চাষাবাদ। জলবায়ু পরিবর্তনের এমন প্রভাব মোকাবিলা করে চলছে কৃষকের সংগ্রাম। খরার করাল গ্রাস কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই চাষাবাদে এবারে বাঁধ সেধেছে তাপমাত্রা। দিন ও রাতের তাপমাত্রায় অস্বাভাবিক তারতম্যে রোগাক্রান্ত হয় ধানখেতসহ শাক-সবজির খেত। আর খেতের ফসল বাঁচানোর তাগিদে স্বাস্থ্যঝুঁকির তোয়াক্কা না করে কৃষকরা নির্দ্বিধায় ফসলের খেতে কীটনাশক প্রয়োগ করতে থাকেন। ফলে চাষাবাদের খরচ বৃদ্ধির পাশাপাশি নষ্ট হয়। উৎপাদিত ফসলের পুষ্টিগুণ।

Previous articleঈশ্বরদীতে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে বিজিবি’র অভিযানে মিললো ৫১ কেজি কচ্ছপের হাড়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।