শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০২৪
Homeসারাবাংলাঝালকাঠিতে বাস উল্টে পুকুরে ১৭ জনের মৃত্যু, ৩ কারণ শনাক্ত

ঝালকাঠিতে বাস উল্টে পুকুরে ১৭ জনের মৃত্যু, ৩ কারণ শনাক্ত

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঝালকাঠির সদর উপজেলার ছত্রকান্দায় একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পুকুরে পড়ে ১৭ জন নিহতের ঘটনায় দুর্ঘটনার তিনটি কারণ শনাক্ত করেছে জেলা প্রশাসনের গঠন করা তদন্ত কমিটি। একই সাথে বেশ কয়েকটি সুপারিশও করা হয়েছে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে।

বৃহস্পতিবার (৩ আগস্ট) সকালে এসব তথ্য জানিয়েছেন তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মামুন শিবলী।

মোহাম্মদ মামুন শিবলী জানান, দুর্ঘটনা ও প্রাণহানির জন্য প্রথমত বাসটির চালকের খামখেয়ালিপনা, দ্বিতীয়ত চালকের অপেশাদারি আচরণ এবং তৃতীয়ত বিধি ভেঙে সড়কের পাশে বড় পুকুর খনন করা হয়েছিল। দুর্ঘটনা কবলিত বাসটির ফিটনেস থাকলেও চালক মোহন খানের ড্রাইভিং লাইসেন্স ছিল হালকা গাড়ি চালানোর। কিন্তু তিনি বাসের মতো একটি ভারী যানবাহন চালাচ্ছিলেন দীর্ঘদিন ধরেই।

তদন্ত কমিটির প্রধান বলেন, ‘তদন্তে আমাদের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে যে সড়কের পাশের বড় ও গভীর পুকুরটি মৃত্যুকূপ হিসেবে রূপ নিয়েছে। ঝালকাঠি থেকে পিরোজপুর বা মঠবাড়িয়া, পাথরঘাটা সড়কটি অত্যন্ত পুরাতন। এই সড়ক প্রশস্ত না করায় জমির মালিক সেখানে পুকুর খনন করে মাছচাষ করেছে। সড়কটির দু’পাশে যদি মহাসড়কের মতোই ১০ থেকে ১২ ফুট জমি অধিগ্রহণ করা থাকত, তাহলে দুর্ঘটনা ঘটলেও এত প্রাণহানি হতো না।’

মোহাম্মদ শিবলী মামুন বলেন, বাস মালিক পক্ষের উচিত কার হাতে গাড়ি দিচ্ছে তার যথাযথ মনিটরিং করা। তদন্তকারী আরো দুটি সংস্থার প্রতিবেদনে উঠে এসেছে যে প্রকৃতপক্ষে চালক মোহন খানের খামখেয়ালিপনায় দুর্ঘটনা হয়। এর আগে বাসের চালক তার সিটে বসে অতিরিক্ত যাত্রী তোলা নিয়ে তর্ক করছিলেন আর মোবাইল চালাচ্ছিলেন বলেও তদন্তে উঠে আসে। বাস মালিক সমিতি ও মালিক পক্ষ আয় বাড়ানোর ওপর জোর দিলেও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল নয়, পরিবহন চলাচলে নির্দেশনা মেনে চলতে গড়ি-মসির কথা উঠে এসেছে। প্রতিবেদনে ওঠে এসেছে, সম্প্রতি সড়কে গাড়ির চাপ বাড়লেও তা অনুপাতে সড়ক প্রশস্ত না করার প্রসঙ্গ।

উদ্ধারকারী সংস্থা ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স ঝালকাঠির উপ-পরিচলক ফিরোজ কুতুবী বলেন, ‘আমাদের তদন্ত কাজ প্রায় শেষ। এখন প্রতিবেদন সম্পূর্ণ করে জমা দেয়ার প্রক্রিয়া। তদন্তে দুর্ঘটনার কারণ আর প্রতিবন্ধকতা সব বিষয় উঠে এসেছে।’

ঝালকাঠির জেলা প্রশাসক ফারাহ গুল নিঝুম বলেন, ‘প্রতিবেদন পেয়েছি। সুপারিশ অনুসারে পদক্ষেপ নেয়া হবে।’

ঝালকাঠি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দিন বলেন, ‘দুর্ঘটনায় তিনজনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের হয়েছে। ইতোমধ্যে দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপরজনকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে। নিহতদের দাফনের সহায়তায় আইজিপি স্যারের বরাদ্দের এক লাখ টাকা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

২২ জুলাই সকাল ১০টার দিকে গাবখান ধানসিড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সামনে পিরোজপুর জেলার ভাণ্ডারিয়া থেকে বরিশালগামী একটি বাস ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের কাছে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের পুকুরে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই ১৩ জন ও পরে ৪ জন নিহত হয়। এছাড়া আহত হয় অন্তত ৩৫ জন। দুর্ঘটনার সময় বাসটিতে যাত্রী ছিল ৬০ জনেরও বেশি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments