বুধবার, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
Homeসারাবাংলারাজধানীর বেইলি রোডের  আগুনে প্রাণ হারানো ছেলে ও বউ-নাতনিকে হারিয়ে নির্বাক বৃদ্ধ...

রাজধানীর বেইলি রোডের  আগুনে প্রাণ হারানো ছেলে ও বউ-নাতনিকে হারিয়ে নির্বাক বৃদ্ধ আবুল কাশেম

কায়সার হামিদ মানিকঃ রাজধানীর বেইলি রোডের ‘গ্রিনফ কোজি কটেজ’ ভবনে লাগা আগুনে প্রাণ হারালো স্ত্রী সন্তান সহ উখিয়ার শাহজালাল। শুক্রবার নিহতের মরদেহ শনাক্ত করেছে তাদের পরিবার।এদিকে নিহত শাহজালালের বাড়ি উখিয়া উপজেলার হলদিয়াপালং ইউনিয়নের পশ্চিম মরিচ্যা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. আবুল কাশেমের বাড়িতে চলছে কান্নাররোল।
শনিবার সকাল ৮টায় বাড়ির সামনে বসা ছিলেন বয়োবৃদ্ধ এই মুক্তিযোদ্ধা। বাড়ির ওঠানে সারিবদ্ধ চেয়ার বসানো। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়িতে আত্মীয়-স্বজন আর গ্রামের মানুষের ভিড় বাড়তে থাকে। বাড়ির একটু দূরে পশ্চিম মরিচ্যা জামে মসজিদের পাশে পারিবারিক কবরস্থানে তৈরি করা হচ্ছে ৩টি কবর। যেখানে শায়িত করা হবে বীর মুক্তিযোদ্ধার ছেলে কাস্টমস কর্মকর্তা শাহজালাল উদ্দিন (৩৭), তার স্ত্রী মেহেরুন নেসা হেলালী (২৪) এবং তাদের মেয়ে ফাইরুজ কাশেম জামিলাকে (৪)।  রাজধানীর বেইলি রোডের ‘গ্রিন কোজি কটেজ’ ভবনে আগুন লেগে এই তিনজন মারা যান।
এদিকে সকাল সাড়ে ৯টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গ থেকে তিনজনের মরদেহ গ্রহণ করেন শাহজালালের বড় ভাই শাহজাহান সাজু।মরদেহবাহী গাড়ি নিয়ে তিনি ঢাকা থেকে মরিচ্যার গ্রামের বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন।
সন্তান হারিয়ে অনেকটা নির্বাক আবুল কাশেম। তিনি বলেন, ‘শাহজালাল ২০১৭ সালে কাস্টমসের চাকরিতে যোগ দেয়। নারায়ণগঞ্জ জেলার পানগাঁও কাস্টমস অফিসে কর্মরত ছিল। প্রতিদিন ৩-৪ বার ফোন করত। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার পর আমার সঙ্গে তার সর্বশেষ কথা হয়েছে। ৩ দিনের ছুটি পাওয়ায় বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা থেকে স্ত্রী-সন্তানকে নিয়ে খাগড়াছড়ি ভ্রমণে যাওয়ার কথা ছিল। আমি ধারণা করেছিলাম শাহজালাল সবাইকে নিয়ে খাগড়াছড়ি বেড়াতে গেছে।
শাহজালালের ছোট ভাই হাশেম বিন লিংকন বলেন, বেইলি রোডে আগুনের ২৪ ঘণ্টা পর ভাইয়ের এক সহকর্মী ফোন করে জানান- ফেসবুকে অজ্ঞাত পরিচয়ে যে কয়েকজনের মরদেহ দেখা যাচ্ছে সেগুলোর মধ্যে তার ভাবি ও মেয়ের ছবি দেখা যাচ্ছে। তারপর শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ভাবির বাবা ইঞ্জিনিয়ার মোক্তার হোসেন হেলালী ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মর্গে গিয়ে তাদের পোশাক দেখে মরদেহ শনাক্ত করেন।
নিহতের বড় ভাই উখিয়ায় হলদিয়া পালং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহজান সাজু মর্মাহত ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। রামুর বাসিন্দা নিহতের ও শ্বশুর মোক্তার হোসেন হেলালী বলেন, ‘আমার মেয়ের জামাই দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের পোর্টে কাস্টম ইন্সপেক্টর হিসেবে কর্মরত ছিল। দুদিনের ছুটি নিয়ে গ্রামের বাড়ি কক্সবাজার যাওয়ার জন্য সে ঢাকায় আসে এবং গ্রিন লাইন বাসের টিকিটও কাটে। ঢাকায় আসার পর পুরো ফ্যামিলি নিয়ে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে খেতে যায়। এরপর তারা আর ফিরে আসেনি। কথাগুলো বলতে বলতে কান্নায় ভেঙে পড়ে তিনি। তিনি দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের কাস্টমস কোয়াটারে থাকতেন।
শনিবার রাত ৮ টা ৪০ মিনিটের সময় শশুর বাড়ি রামুতে মরদেহ পৌঁছেছে সেখানে রাত ১০ টার সময় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর গ্রামের বাড়ি উখিয়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা রয়েছে। আজ রবিবার সকাল ১১ টার দিকে উপজেলার মরিচ্যা পালং মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে নিহতদের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।
আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments