রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
Homeসারাবাংলাচৌহালীতে চাঞ্চল্যকর শিশু ধর্ষণ ও হত্যার ৭ বছর পর পিবিআইয়ের রহস্য উদঘাটন,...

চৌহালীতে চাঞ্চল্যকর শিশু ধর্ষণ ও হত্যার ৭ বছর পর পিবিআইয়ের রহস্য উদঘাটন, গ্রেফতার ২

মারুফা মির্জা: সিরাজগঞ্জের চৌহালীর উমারপুর ইউনিয়নের মধ্য শিমুলিয়ায় চাঞ্চল্যকর শিশু সুবর্ণা ধর্ষনের পর শ্বাসরোধে হত্যার ঘটনার ৭ বছর পর রহস্য উন্মোচন করেছে পিবিআই। এ ঘটনায় জড়িত দত্তকান্দি গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে ভিকটিমের ফুফাতো ভাই ছাব্বির হোসেন (২০) ও গ্রামের ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আরফান আলীর ছেলে শাকিব খান (২১) কে আটক করেছে। তারা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দি দিয়েছে।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সিরাজগঞ্জ এর পুলিশ সুপার মোঃ রেজাউল করিম রবিবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনে জানান, চৌহালী থানার দত্তকান্দি গ্রামের শুকুর আলীর মেয়ে স্কুল ছাত্রী সুবর্ণা খাতুন গত ২০১৭ সালের ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে দত্তকান্দি হাই স্কুলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দেখতে যায়। অনুষ্ঠান দেখে ভিকটিম বাড়ীতে না আসলে পরদিন মধ্য শিমুলিয়া চরের ফসলী জমিতে তার মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে স্বজনদের সহযোগীতায় চৌহালী থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার ও ময়নাতদন্ত করেন। এ ঘটনায় ভিকটিমের পিতা শুকুর আলী বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। এতে বাদী নারাজি আবেদন করেন। পরে আদালত মামলাটি সিরাজগঞ্জ পিবিআইকে তদন্তের আদেশ দিলে এসআই আশিকুর রহমান তদন্ত শুরু করেন।

এরপর ভিকটিমের সুরতহাল প্রতিবেদন ও ময়না তদন্ত রিপোর্ট পর্যালোচনায় ভিকটিম সূবর্ণাকে ধর্ষনের পর শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে নিশ্চিত হয়ে তথ্য প্রযুক্তি এবং গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে ১৯ এপ্রিল আসামী ছাব্বির হোসেন (২০) ঢাকার শ্যামলী হতে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে চৌহালী সোলের বাজার হতে শাকিব খান (২১) গ্রেফতার করা হয়।

পিবিআইয়ের এসপি রেজাউল করিম আরো জানান, গ্রেফতারকৃত আসামীরা গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয় এবং দত্তকান্দি গ্রামের বশির মেম্বারের ছেলে মোঃ মিলন পাশা সহ আরো ৫ জন জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণ করতে থাকে শিশু সুবর্ণাকে। তখন নিস্তেজ হয়ে যাওয়া মেয়েটি সবাইকে ঘটনার কথা জানিয়ে দেবে বললে তাকে পড়নের ওড়না দিয়ে গলায় প্যাঁচ দিয়ে শ্বাস রোধে হত্যা করে এবং ভিকটিমের শরীরে মাটি ছিটিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। এর পর পিবিআই মামলার তদন্তের দায়িত্ব পেয়ে তাদের দুজনকে আটক করে। এছাড়া বাকিদের আটকে অভিযান চলছে বলে তিনি জানান।

এদিকে মামলার বাদী নিহত মেয়েটির বাবা শুকুর আলী জানান, অমানষিক নির্যাতনে আমার মেয়ে হত্যার দীর্ঘ দিন পর হলেও রহস্য উদঘাটিত হয়েছে এজন্য পিবিআইয়ের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা। বাকি আসামীদেরর চাই দ্রুত আটক করা হোক। আদালত এমন রায় দিক আর যেন কোন বাবার শিশু মেয়ে এভাবে ধর্ষন ও হত্যার শিকার না হয়। ফাঁসির রায় দেয়া হোক দায়ী সবার তাহলেই আমার নিরাপরাধ শিশু মেয়ের আত্তা শান্তি পাবে।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments