বাংলাদেশ প্রতিবেদক: প্রতিবার বস্তিতে আগুন লাগে, চোখের পলকে পোড়ে তিল তিল করে গড়া স্বপ্ন। নিঃস্ব হয়ে মানুষ পথে বসে। আবার বস্তিতে ওঠে নতুন ঘর। প্রতিবারই প্রশ্ন ওঠে অবৈধ বিদ্যুৎ আর গ্যাস সংযোগ নিয়ে। কিন্তু কিছুদিন পরই সবাই তা ভুলে যায়। বরাবরের মতো সেসব বিদ্যুৎ আর গ্যাস সংযোগ ব্যবহার করতে থাকনে সবাই।

সোমবার (০৭ জুন) ভোরে মহাখালীর সাততলা বস্তিতে লাগা আগুনের পরও সেই অবৈধ বিদ্যুৎ আর গ্যাস সংযোগকে দায়ী করা হয়। প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে এসব অবৈধ সংযোগ দিচ্ছে কারা?

ঢাকা ইলেক্ট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি (ডেসকো) বলছে, অবৈধ সংযোগ স্থাপনের জন্য একটি চক্র গড়ে উঠেছে। যারা বিদুৎ কোম্পানির নিয়ন্ত্রণের বাইরে। যদিও এ বিষয়ে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ কথা বলেনি। তবে বস্তি খালি করার জন্য অগ্নিকাণ্ডে প্রভাবশালী মহলেরও হাত থাকতে পারে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

ফায়ার সার্ভিসের হিসেবে, শুধু ২০২০ সালেই সারা দেশে ২১ হাজার ৭৩টি অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে। আরেকটি হিসেব বলছে, শুধু রাজধানীতেই গত দেড় বছরে প্রায় অর্ধশত বস্তিতে আগুন লেগেছে। এ অগ্নিকাণ্ডের পেছনে আসলে কী?

ফায়ার সার্ভিসের সাবেক পরিচালক মেজর (অব.) শাকিল নেওয়াজ বলেন, বস্তিতে অনেক রাজনীতি থাকে, অনেক কোন্দল থাকে। প্রভাবশালীরা অনেক সময় জায়গা খালি করতে আগুন লাগিয়ে দিতে পারে।

যদিও অপরিকল্পিত, ঘিঞ্জি আবাসনে আগুন লাগার জন্য ঘুরেফিরে দায়ী করা হচ্ছে, অবৈধ বিদ্যুৎ এবং গ্যাস সংযোগকেই। তবে বার বার প্রশ্ন ওঠে, বস্তিগুলোয় অবৈধ সংযোগ দেয় কারা?

ডেসকোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কায়সার আমির আলী বলেন, বস্তিতে বিদ্যুতের লাইন দেয়ার মতো যথেষ্ট জায়গা নেই। যারা ওয়ার্নিং করে, তারা দুর্বল ক্যাবল ব্যবহার করে।

একই সঙ্গে সেবা সংস্থাগুলোর চরম সমন্বয়হীনতাকেও দায়ী করেন তিনি।

Previous articleদেশে করোনায় বেড়েছে শনাক্ত
Next articleঢাকা-১৪ আসনে আ’লীগের মনোনয়ন ফরম কেনার হিড়িক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।