করোনা সামলাতে আরও ১৫০ বিলিয়ন পাউন্ড দেবে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: করোনাভাইরাসের কারণে ক্ষতির মুখে পড়া অর্থনৈতিক ধাক্কা সামাল দিতে যুক্তরাজ্যের অর্থনীতিতে আরও ১৫০ বিলিয়ন পাউন্ড বিনিয়োগ করবে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড। বৃহস্পতিবার (৫ নভেম্বর) ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে এই অর্থ ঋণে সুদের হার রাখা হচ্ছে রেকর্ড দশমিক ১ শতাংশ।

লকডাউন জোরদার করা, ইংল্যান্ডের বিভিন্ন এলাকায় নতুন নতুন বিধিনিষেধ আরোপ- এসব কারণ যুক্তরাজ্যের অর্থনীতিকে আবার নিচের দিকে নিয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। যখন আর্থিক মন্দা কাটাতে পরিকল্পনা করছে ব্যাংকটি তখন সরকারের দেয়া করোনাকালীন সহায়তা শেষে বেকারত্ব বাড়ারও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের পূর্বাভাস, চলতি বছরের শেষ প্রান্তিকে দেশটির অর্থনীতি ২ শতাংশ সংকুচিত হবে। বছরজুড়ে হিসাবে এবছর এই সংকোচন হবে ১১ শতাংশ। তবে, ২০২১ সালে যখন বর্তমানের বিধি নিষেধগুলো শিথিল করা হবে তখন আবার ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করবে নিম্নমুখী এই অর্থনীতি।

আশঙ্কা করা হচ্ছে আগামী বছরের মাঝামাঝিতে দেশটির বেকারত্ব হার প্রায় ৮ শতাংশে (৭.৭৫) পৌঁছবে। ২০১৩ সালের পর যা সর্বোচ্চ।

ব্যাংক ইংল্যান্ডই যুক্তরাজ্যের অর্থনীতিতে অর্থ সরবরাহ করে থাকে। কোয়ান্টিটেটিভ ইজিং (কিউই) পদ্ধতিতে ব্যাংকটি ইলেকট্রনিক্যালি অর্থ তৈরি করবে ও সরকারি বন্ড কিনে নেবে। কিউই-কে মাঝে মাঝে এভাবে সংজ্ঞায়িত করা হয় যে, অর্থনোট ছাপানো হবে কিন্তু তার বস্তুগত উপস্থিতি থাকবে না। সরকারি বন্ড কেনাও একধরনের বিনিয়োগ

হিসাব বলছে, ব্যাংক অব ইংল্যান্ড বিভিন্ন সময়ে কিউই পদ্ধতিতে যুক্তরাজ্যের অর্থনীতিতে বিশাল অঙ্কের বিনিয়োগ করেছে। যেমন, ২০০৯ সালে আর্থিক মন্দাকালে ২০০ বিলিয়ন পাউন্ড, ২০১২ সালে ইউরোজোনের ঋণ মন্দায় ৩৭৫ বিলিয়ন পাউন্ড, ২০১৬ সালে ব্রেক্সিট নিয়ে গণভোট চলাকালে ৪৪৫ বিলিয়ন পাউন্ড বিনিয়োগ করেছে। আর এবার করোনা মহামারিকালে অর্থনৈতিক ধাক্কা সামাল দিতে এরই মধ্যে ৮৯৫ বিলিয়ন পাউন্ড বিনিয়োগ করেছে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড।