বাংলাদেশ ডেস্ক: বছরের শেষ সময়ে এসে রফতানি আয়ে চমক দেখাল দক্ষিণ এশিয়ার দেশ পাকিস্তান। করোনা মহামারি, অভ্যন্তরীণ রাজনীতি, প্রতিবেশীদের সঙ্গে খারাপ সম্পর্ককে ছাপিয়ে উন্নতির পথে হাটতে চায় দেশটি। তারই ধারাবাহিকতায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান নিচ্ছেন নানা উদ্যোগ। করে যাচ্ছেন একের পর এক বাণিজ্য চুক্তি।

শনিবার (০২ জানুয়ারি) দেশটির জাতীয় দৈনিক দ্যা ডনের এক প্রতিবেদনে রফতানি আয় আগের বছরের (২০১৯) ডিসেম্বরে চেয়ে গেল বছরের (২০২০) সালের ডিসেম্বরে ১৮ দশমিক ৩ শতাংশ বৃদ্ধির খবর প্রকাশ করা হয়।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, টানা চতুর্থবারের মতো পাকিস্তানের রফতানি আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। ডিসেম্বরে দেশটির মোট রফতানি ছিল ২৩৬ কোটি মার্কিন ডলার। যা নভেম্বরেও ছিল ১৯৪ কোটি মার্কিন ডলার। ফলে একমাসের ব্যবধানে রফতানি বৃদ্ধি পেয়েছে ৪২ কোটি মার্কিন ডলার। যা শতাংশের হিসেবে ১৮ দশমিক ৩ শতাংশ।

দ্যা ডন বলছে, পোশাক খাতের উন্নয়ন ও রফতানি বৃদ্ধি, চিকিৎসা সরঞ্জাম এবং চামড়াজাত পণ্যের রপ্তানির ওপর ভর করে এ উন্নতি করেছে পাকিস্তান।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এক টুইট বার্তায় এ উন্নতির জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে লেখেন, ‘সবাইকে অভিনন্দন। আমরা আগের বছরের চেয়ে এ বছরের ডিসেম্বরে ১৮ শতাংশের বেশি রফতানির মাধ্যমে রেকর্ড করতে পেরেছি। এ ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। সরকারের অন্যতম ভিত্তি হচ্ছে অর্থনীতি। অর্থনীতির উন্নয়নকে আরো বেশি তরান্বিত করতে আমরা সংশ্লিষ্টদের সব ধরনের সহযোগিতা করে যাব।’

দেশটির বাণিজ্য বিষয়ক উপদেষ্টা রাজ্জাক দাউদ বলেন, ‘ডিসেম্বরে ১৮ দশমিক ৩ শতাংশ উন্নতি এ যাবত কালে সর্বোচ্চ।’

অর্থবছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বরে রফতানি বৃদ্ধি পেয়েছে ৪ দশমিক ৯ শতাংশ। যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে অন্তত ১ হাজার ৪শ’ কোটি মার্কিন ডলার বৃদ্ধি পেয়েছে; যা আগের বছর একই সময়ে ছিল ১১ হাজার ৫৩৩ কোটি মার্কিন ডলার আর বিদায়ী বছরে দাঁড়ায় ১২ হাজার ১০৪ কোটি মার্কিন ডলার।

করোনা মহামারির সময়ে সরকার গৃহীত বিশেষ কিছু পদক্ষেপের কারণে এ অর্জন সম্ভব হয়েছে বলে দাবি করেন ইমরান খানের অর্থনৈতিক উপদেষ্টা রাজ্জাক দাউদ।