ঈশ্বরদী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজে প্রশংসপত্র বিতরণে খরচ ১০টাকা, আদায় ৪শ' টাকা!

কামাল সিদ্দিকী: পাবনার ঈশ্বরদী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ থেকে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের স্কুল থেকে প্রশংসপত্র বিতরণের নামে চাঁদাবাজি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। একজনের প্রশংসাপত্র তৈরি করতে সর্বোচ্চ ১০ টাকা খরচ হয়। সেখানে শিক্ষার্থীপ্রতি আদায় করা হচ্ছে ৪০০ টাকা করে। জনপ্রতি ওই হারে আদায় করলে ১২৮ শিক্ষার্থীর কাছ থেকে অবৈধ আদায়ের পরিমাণ ৫১ হাজার ২০০ টাকা।
শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন বলেন, অধ্যক্ষের নির্দেশে অফিস সহকারী প্রশংসাপত্র দেওয়ার সময় জনপ্রতি ৪০০ টাকা করে আদায় করছে। ওই টাকা না দিলে স্কুল থেকে প্রশংসাপত্র দেওয়া হচ্ছে না। শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রকাশ্যে অবৈধ টাকা আদায়ের ঘটনায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
এক শিক্ষার্থী জানায়, আমার বাবা দিনমজুর। অনেক কষ্টে আমাদের তিন ভাইবোনের লেখাপড়ার খরচ যোগায়। আমি তিন শ টাকা নিয়ে গেলে আমাকে প্রশংসাপত্র দেয়নি। অধ্যক্ষের কাছে গিয়ে অনেক অনুরোধ করলাম তারপরও কাজ হয়নি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্কুলের একজন সহকারী শিক্ষক বলেন, প্রশংসাপত্র বানাতে খরচ হয়েছে বড়জোর ১০ টাকা। সেখানে সর্বোচ্চ ৫০ টাকা নিতে পারে। অধ্যক্ষ তাঁর একক সিদ্ধান্তে শিক্ষার্থী প্রতি ৪০০ টাকা করে আদায় করছে। এবার ১২৮ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পাস করেছে। সে হিসেবে শুধু প্রশংসাপত্র বিতরণ করেই ৫১ হাজার ২০০ টাকা আয় করবেন তিনি। ওই টাকার কোনো হিসাব না দিয়ে অধ্যক্ষ একা ভোগ করবেন ওই অবৈধ অর্থ। এভাবে বিভিন্ন পরীক্ষার সময় অতিরিক্ত ফি সহ নানা ফি’র নামে অবৈধভাবে অর্থ আদায় করেন অধ্যক্ষ। যার কোনো হিসাব দেন না তিনি।
অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অধ্যক্ষ আসলাম হোসেন বলেন, এটি একটি বেসরকারি এমপিও ভুক্ত স্কুল। আমি আসার আগে থেকেই স্কুল পরিচালনা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রশংসাপত্র বিতরণে জনপ্রতি ৪০০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। অন্যান্য অভিযোগ তিনি অস্বীকার করেন।
উপজেলা শিক্ষা অফিসার সেলিম আক্তার বলেন, ‘প্রশংসাপত্র বিতরণে কোনো টাকা নেয়ার নিয়ম নেই।’
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আহাম্মদ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ‘আমি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখব।’