১৩ নভেম্বরের মধ্যে বেতন বৈষম্য নিরসন না হলে সমাপনী পরীক্ষা বর্জন করবেন শিক্ষকরা

সদরুল আইন: আগামী ১৩ নভেম্বরের মধ্যে প্রধান শিক্ষকদের ১০ম ও সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে বেতনের দাবি বাস্তবায়ন না হলে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বর্জন করবেন প্রাথমিকের শিক্ষকরা।

পুলিশের বাধায় শহীদ মিনারে শিক্ষকদের পণ্ড হয়ে যাওয়া মহসমাবেশ শেষে এ ঘোষণা দিয়েছিলেন প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য নিরসনে গঠিত মোর্চা বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদের নেতারা।

এরপর বেশ কয়েকবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনসহ মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরেরর কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করে দাবি আদায়ে ফলপ্রসু আশ্বাস পেলেও ১৩ নভেম্বরের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করে নিজেদের দাবি জানাতে চান শিক্ষক নেতারা।

আর এ দিনের মধ্যে প্রধান শিক্ষকদের ১০ম ও সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে বেতনের দাবি বাস্তবায়ন না হলে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বর্জন করার ঘোষণায় শিক্ষকরা অনড় বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন ঐক্য পরিষদের নেতারা।

ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক আনিছুর রহমান সোমবার (৪ নভেম্বর) গণমাধ্যমকে জানান, বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ শিক্ষকদের ন্যায্য দাবি আদায়ে বদ্ধ পরিকর। আমরা আশাকরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিশ্চয়ই আমাদের দাবি পূরণ করবেন।

আগামি ১৩ নভেম্বরের মধ্যে এর কোনো সমাধান না হলে আমাদের পরীক্ষা বর্জনের কর্মসূচি চলমান থাকবে। সেক্ষেত্রে সকলকে দৃঢ় মনোবল নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। আমরা নিশ্চয়ই আমাদের ন্যায্য দাবি আদায়ে সক্ষম হবো।

সাধারণ শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে ঐক্য পরিষদের নেতারা বলেন, এখন কাদা ছোড়াছুড়ি করার সময় নয়। একজন আরেকজনকে সম্মান করুন। ঐক্য পরিষদের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কমিটিগুলোকে আরও বেশি সক্রিয় হতে হবে।

কেন্দ্রীয় কমিটির সাথে যোগাযোগ বৃদ্ধি করতে হবে। যেকোন সময় কেন্দ্রের নির্দেশনা মোতাবেক সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে এবং ঘোষিত কর্মসূচি সফল করতে হবে। যেসব উপজেলায় কমিটি নেই সেগুলোতে কমিটি গঠন করা হবে।

এর আগে বিভিন্ন মেয়াদের চারদিন কর্মবিরতি ও ২৩ অক্টোবর শহীদ মিনারে মহাসমাবেশ শেষে গত ৩১ অক্টোবর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনের সাথে বৈঠক করেন ঐক্য পরিষদের নেতারা।

এরপর গত ২ নভেম্বর ময়মনসিংহ পিটিআইতে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে শহীদ মিনারে আন্দোলনকারী প্রাথমিক শিক্ষকরা বিচ্ছিন্ন গ্রুপ ছিল বলে মন্তব্য করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন।

তিনি বলেন, প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন গ্রেড বৃদ্ধি ও বেতন বৈষম্য নিরসনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত আন্তরিক।