নাজমুল হক: ২০২১ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় পাঁচ জন শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হওয়ার জেরে আজ পাঁচ শিক্ষককে বরখাস্ত করলো রাজধানীর অভিজাত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সাউথ পয়েন্ট স্কুল এন্ড কলেজ কর্তৃপক্ষ।

কলেজটির বারিধারা শাখায় ২০২১ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় ২৬৪ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে যার মধ্যে ৫ জন গনিত ও রসায়নে অকৃতকার্য হয়। যার দরুন কলেজটির বারিধারা শাখার গনিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ মনিরুল ইসলাম লেলিন ও প্রভাষক জামাল হোসেন ভূঁইয়া এবং রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোসলেহ উদ্দিন মুন্সি , প্রভাষক শায়লা রহমান, প্রভাষক সুলতানা কাউসারকে মৌখিক নির্দেশে বরখাস্ত করা হয়।

বরখাস্ত হওয়া রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোসলেহ উদ্দিন মুন্সি আজকের বাংলাদেশকে জানান, ২০ বছর যাবৎ আমি এখানে সফলতার সাথে শিক্ষকতা করেছি। কলেজটিকে আমি প্রচন্ড ভালোবাসি। ২০০৩ সালে ৬৫০০ টাকা বেতনে আমি জয়েন করি। ২০ বছরে আমার বেতন বেড়ে দাড়ায় ২৬,০০০ টাকায়। তারপরও ভালোবাসার টানে প্রতিষ্ঠান ছেড়ে যায়নি। করোন মহামারির কারনে অনলাইনেই প্রায় ২০ মাস ক্লাস হয়েছে। মাত্র দেড় মাস সরাসরি ক্লাস হয়েছে। এতো অল্প সময়ে পুরো বিষয়টি ১% শিক্ষার্থী হয়তো বুঝে উঠতে পারেনি। তাছাড়া অকৃতকার্য শিক্ষার্থীরা অল্প কয়েকদিনের ক্লাসেও ঠিক মতো উপস্থিত ছিলোনা, যা আমরা কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে ছিলাম। তাছাড়া সরকারি নির্দেশনা থাকায় আমরা নির্বাচনী পরীক্ষাও নিতে পারেনি , যার দরুন তাদের যাচাইয়ের কোন রাস্তা আমাদের হাতে ছিলো না। ০২ মার্চ সকালে কলেজ শিক্ষার্থীরা বিষয়টি জানার পর শ্রেণি কক্ষে না গিয়ে ব্যাপক আন্দোলন শুরু করে। পরবর্তীতে তাদের সাথে যোগ দেয় অভিভাবকরা।

এসম্পর্কে প্রতিষ্ঠানের একজন অভিভাবক সাইফুল ইসলাম আজকের বাংলাদেশকে জানান এই সিদ্ধান্ত খুবই অমানবিক। এই শিক্ষকরা ২০ বছর এই প্রতিষ্ঠানে আছে, তারা শিক্ষার্থীদের কাছে খুবই জনপ্রিয়। বারিধারার অধ্যক্ষের স্বৈরাচারী মনোভাবের ফল এইটা। প্রতিষ্ঠানের একজন শিক্ষক নাম গোপনের শর্তে জানান এই প্রতিষ্ঠান এখন শিক্ষা নিয়ে ব্যবসা করছে। এতো বড় প্রতিষ্ঠানে কোন গভর্নিং বডি নেই, নিজেদের স্ত্রী, সন্তান ও আত্মীয় স্বজন দিয়ে নামকাওয়াস্তে একটি কমিটি আছে। যার কোন কার্যক্রম এপর্যন্ত চোখে পরেনি। তিনি আরও জানান অর্থাভাবে মানবেতর জীবন অতিবাহিত করছি আমরা। অথচ এই প্রতিষ্ঠানটি মালিবাগে প্রায় ১২০ কাঠা এবং বারিধারা প্রায় ২০০ কাঠা জমির উপর শত শত কোটি টাকা ব্যয়ে স্থায়ী ক্যাম্পাসের কাজ নির্মানাধীন। এছাড়াও ঢাকার অভিজাত এলাকা বনানী, মিরপুর, উত্তরা ও পুরান ঢাকায় রয়েছে এদের সু-বিশাল ক্যম্পাস। ৬টি ক্যম্পাসে প্রায় ১৫০০০ শিক্ষার্থী নিয়ে একাডেমিক কার্যক্রম চলছে প্রতিষ্ঠানটির। খবর নিয়ে জানা যায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক সেশনচার্জ গড়ে ২০০০০ টাকা এবং বেতন গড়ে ২০০০ টাকা। প্রথম শ্রেণিতে বাংলাভার্সনে ভর্তিতে প্রায় ৩০,০০০ টাকা, যেখানে ডেভেলপমেন্ট চার্জ হিসেবে ৬৫০০ টাকা পরিশোধ করতে হয়। এই সমন্ধে প্লে-গ্রুপের একজন ছাত্রের অভিভাবক শরিফুল ইসলাম জানায় বাংলা ভার্সনে কিছুটা কম হলেও ইংলিশ ভার্সনে তার বাচ্চার ভর্তি বাবদ প্রায় ৪০,০০০ টাকা ব্যয় হয়েছে এবং মসিক বেতন ২৫০০ টাকা। অভিভাবক বা ভর্তি তথ্য বিবেচনা করলে প্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক আয়ের পরিমান প্রায় ১০০ কোটি টাকা। এছাড়া ঢাকার অভিজাত পরিবারের সন্তানদের জন্য এখানে ইংলিশ ভার্সনের পাশাপাশি চালু রয়েছে ইংলিশ মিডিয়ামও। অথচ এই অভিজাত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মূল চালিকা শক্তি যে শিক্ষকরা তারাই অর্থাভাবে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

প্রতিষ্ঠানটির কলেজ শাখায় ফিন্যান্স বিভাগের সাবেক প্রভাষক এনএইচ হক জানান “বাংলাদেশে ৪৭% স্নাততকধারী বেকার যার সংখ্যা প্রায় ৫ কোটি যার দরুন অনেক ভালো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভালো ফলাফল করে বের হওয়া মাষ্টার্সধারীরা বাধ্য হয়েই এখানে চাকরী করে। আমি ২০১৩ সালে এখানে প্রভাষক পদে চাকরী শুরু করি ২০১৩ সালে তখন ১১,০০০ টাকা দিয়ে, ৩ বছর চাকরী করার পর আমার বেতন হয় ১২,৫০০ টাকা অথচ পার্শ্ববর্তী বনানী বিদ্যানিকেতন স্কুল এন্ড কলেজে যোগদানের শুরুতেই প্রায় ৩৫,০০০ টাকা বেতন উত্তোলন করি তাই এই বৈষম্য দূর হওয়া উচিত”। কলেজ শাখার পদার্থ বিজ্ঞান সাবেক সহকারী অধ্যাপক এনামুল হক খুব দুঃখের সাথেই জানান “এই প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের সময় পূর্ণস্কেলে বেতনের আশ্বাস দিলেও পরে আর তা বাস্তবায়ন করেনি। চাকরির বাজার খুব মন্দা হওয়ায় শিক্ষকরা বাধ্য হয়েই প্রতিশ্রুতি বেতন থেকেও কম বেতনে চাকরী করে এখানে, সেই সুযোগ কর্তৃপক্ষ শত শত কোটি টাকার পাহাড় গড়ে তুলছে। অভিজাত কলেজের অধ্যাপক ভেবে অনেক ইচ্ছে থাকলেও টিনশেড বা ঘিঞ্জি পরিবেশে থাকতে পারেনা সেই সুবাদে নূন্যতম বাসা ভাড়া ১২০০০-১৩০০০ টাকা পরিশোধ করে, বাকী ৩০০০-৪০০০ টাকা দিয়ে পুরো মাসের সংসার খরচ চলেনা তাই বাধ্য হয়ে ধার-দেনা করে পরিবার চালাতে হতো। সার্বিক বাস্তবতা তুলেধরে বেতন বৃদ্ধির কথা বললেই কর্তৃপক্ষ বলতো না পুষালে চাকরী ছেড়ে চলে যান। শেষ পর্যন্ত চাকরী ছেড়ে চলে আসলেও আমার পাওনাকৃত সম্পূর্ণ টাকা পরিশোধ করা হয়নি”

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কলেজের এক শিক্ষক ক্ষোভের সঙ্গেই জানায় “বর্তমানে গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন অথবা প্রিন্সিপাল সাহেবের ড্রাইভারের বেতন কলেজ শিক্ষকদের সমান। এছাড়া কলেজের পার্শ্ববর্তী চায়ের দোকানের মালিকও আমাদের চেয়েও বেশি টাকা আয় করে। তাই একবার পরিকল্পনা করেছিলাম প্রফেসর টি হাউজ নামক একটি চায়ের দোকান দিয়ে নিজের আর্থিক সঙ্কট কিছুটা লাঘব করার চেষ্টা করব কিন্তু সহকর্মীরা বাধা দেয়। এত অভাব অনাটনের মাঝে আরও কষ্ট বাড়িয়ে দেয় প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন অনুষ্ঠান। যেখানে একই ধরনের পোশাক বানাতে হয় নিজ খরচে, তখন মনে মনে ভাবি উপরে-ফিট ফাট ভিতরে সদর ঘাট। শেষে ক্ষুব্দ হয়ে উনি জানালেন সাউথ পয়েন্ট চায় তেল কম মচমচা ভাজা অর্থাৎ কম বেতনের শিক্ষক দিয়ে হাড় ভাঙ্গা পরিশ্রম করানো”। এইচ.এস. সি পরীক্ষা-২০১৮ এর ফলাফল প্রকাশের দীর্ঘ ১৫ বছর আইসিটি বিষয়ে শিক্ষকতা করে আসা সহকারী অধ্যাপক জান্নাতুল ফেরদৌস কে শুধু এই বছর ২ জন ছাত্রী সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অকৃতকার্য হওয়ায় পূর্ব নোটিশ বা কারন দর্শানো ছাড়া মৌখিক আদেশ চাকরিচুত্য করা হয়।

একই ব্রাঞ্চে দীর্ঘ ১২ বছর যাবৎ পদার্থ বিজ্ঞানের প্রভাষক সোফিয়া খাতুন এবং মালিবাগ ব্রাঞ্চের একই বিষয়ের প্রভাষক আসমা আজমও একই কারনে পূর্ব নেটিশ বা কারন দর্শানো ছাড়া মৌখিক আদেশে চাকুরিচুত্য হয়। এই বিষয়ে চাকরিচুত্য সেফিয়া খাতুনের সাথে যোগাযোগ করলে জানায় চাকরিটা তখন তার খুব দরকার ছিলো কারন তার মায়ের চিকিৎসা ও বাচ্চাদের খরচ চাকরির বেতনের উপর নির্ভরশীল। বেতন কাঠামো ও চাকরিচুিত্যর ঘটনা নিয়ে বারিধারা শাখার অধ্যক্ষ উইং কমান্ডর এ এম আমজাদ হেসেন (অবঃ) মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ হামিদা আলীর মুঠোফোনটি বন্ধ ছিলো। তবে ২০১৮ সালের বেতন কাঠামো ও চাকরিচুিত্যর ঘটনা নিয়ে বারিধারা শাখার অধ্যক্ষ উইং কমান্ডর এ এম আমজাদ হেসেন (অবঃ) তৎকালীন সময় যুগান্তরকে জানিয়েছিলেন আশে পাশের অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের চেয়েও কম বেতন দিয়ে থাকে এবং চাকরিচুিত্যর ব্যপারটি চেয়ারম্যান সাহেবের এখতিয়ার। তাছাড়া তিনি আরও জানিয়েছিলেন প্রতিষ্ঠানটি ২০১৮ সালে জে. এস. সি পরীক্ষায় ছেলেদের ১৬ টি ট্যালেন্ট পুলে ১৪ টি এবং মেয়েদের ১৬ টি ট্যালেন্ট পুল বৃওি থেকে ১৬ টিই সাউথ পয়েন্ট কলেজ থেকে অর্জিত হয়েছে। ২০০৮ সালের এস. এস. সি পরীক্ষায় ঢাকা শিক্ষা বোর্ডেও শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ২০০৯ সালে এইচ. এস. সি পরীক্ষায় ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে নবম স্থান অধিকারী হয়েছিল। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় বেশিরভাগ শিক্ষকই প্রতিষ্ঠানের কোন বিষয় কথা বলতে নারাজ কারন হিসেবে নিজেদের চাকরিচুিত্যর সম্ভাবনার অসহায়ত্বের কথা প্রকাশ করেছে। সবার কথা একটাই দীর্ঘ ২০ বছর ধরে সাফ্যলের সাথে শিক্ষকতা করে আসা শিক্ষককে মাত্র ২০ সেকেন্ডের মৌখিক আদেশে চাকরিচুত্য করা হয় যা তাদেরকে ভবিষ্যতে এই প্রতিষ্ঠানে টিকে থাকার ব্যাপারে ভীতসন্তস্ত্র করে তুলেছে।

Previous articleকালিহাতীতে বালু উত্তোলনের দায়ে ১৮টি ড্রেজার মেশিন বাজেয়াপ্ত, ৪ শ্রমিকের জেল
Next article‘কলম একাডেমি লন্ডন’র আমিরাত চ্যাপ্টারের কমিটি ঘোষণা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।