ইরফানুল ইসলাম,আমিরাত: ‘অক্ষরে অমরতা’ শ্লোগানের পতাকাবাহী, আন্তর্জাতিক সাহিত্য ও সমাজকল্যাণমূলক সংগঠন ‘কলম একাডেমি লন্ডন’ ইউনাইটেড আরব আমিরাত চ্যাপ্টার কমিটি-২০২২ ঘোষণা করা হয়েছে।

সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ‘সাহিত্যের বাতিঘর’ অধ্যাপক নজরুল ইসলাম হাবিবীর স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে মুহাম্মদ আবু তৈয়ব চৌধুরী সভাপতি ও শাহেদ সরওয়ারকে সাধারণ সম্পাদক এবং মোফাচ্ছেল হোসেন সাহেদকে মিডলইস্টের কো-অর্ডিনেটর করে ২৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির ঘোষনা করেন ।

কমিটির অন্যনারা হলেন উপদেষ্টা পরিষদে জাহাঙ্গীর কবির বাপ্পি, শাহাদাৎ হোসেন পলাশ ও মুহাম্মদ মোরশেদ আলম।

কার্যকরী পরিষদে- সভাপতি- মুহাম্মদ আবু তৈয়ব চৌধুরী, সহ-সভাপতি মুহাম্মদ ইছমাইল, সহ- সভাপতি মুহাম্মদ এসকান্দর, সাধারণ সম্পাদক শাহেদ সরওয়ার,সহ-সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ ইমরান চৌধুরী,সহ-সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ ইরফানুল ইসলাম,যুগ্ম সম্পাদক ইশতিয়াক আসিফ,সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ আনিস,সহসাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ আবদুল্লাহ্ আল মামুন,সহসাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ মেহেদী হাসান মমতাজ,ক্রীড়া সম্পাদক মাহমুদ সুমন, অর্থ সম্পাদক মুহাম্মদ কাওসার উদ্দিন হৃদয়,সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক শামিমা শান্তা, সহসাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক মুহাম্মদ আলী আকবর, দপ্তর সম্পাদক এম.এ মাসুদ,সমাজকল্যাণ সম্পাদক মুহাম্মদ মুসা জাকের হোসেন,প্রচার সম্পাদক জাসেদুল ইসলাম জিকু।সদস্য মণ্ডলী মুহাম্মদ রাজু ইসলাম, মুহাম্মদ আলী চৌধুরী প্রমুখ।

কলম প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক নজরুল ইসলাম হাবিবী বলেন, “অক্ষরে অমরতা” শ্লোগানের পতাকাবাহী, আন্তর্জাতিক সাহিত্য ও সমাজকল্যাণমূলক সংগঠন ‘কলম একাডেমি লন্ডন’ ২০২২ সালের জন্য ইউনাইটেড আরব আমিরাতের কমিটি ঘোষণা করতে পেরে আমি আনন্দিত।

আমি আশা করব, কমিটি দল-দর্শনের বাহিরে এসে সমাজ এবং সাহিত্যের কল্যাণে যথা সম্ভব অবদান রাখবেন।

‘কলম একাডেমি লন্ডন’ একটি সেচ্ছাসেবী সংগঠন। এখানকার কোন সদস্যকে কোন প্রকার আর্থিক সুযোগ-সুবিধা দেয়া হয় না। কোন সদস্য ‘কলম একাডেমি লন্ডন’- কে ব্যক্তিগত প্রয়োজনে ব্যবহার করবো না।

‘কলম একাডেমি লন্ডন’ একটি অসাম্প্রদায়িক এবং অরাজনৈতিক সংগঠন। আশা করি, কমিটির সদস্যগণ বিষয়টি তাঁদের কথায় এবং সংগঠন পরিচালনায় মনে রাখবেন।

আমি বিশ্বাস করি, আমাদের একটি রাজনৈতিক ও ধর্মীয় পরিচয় আছে। নিশ্চয়ই এ আমাদের অধিকার। তবে সে অধিকার আমরা কোন ভাবেই সংগঠনে চাপিয়ে দিতে চেষ্টা করবো না।

আমাদের লেখায়, আঁকায়, বক্তৃতায়, আমরা প্রতিটি দল ও ধর্মের প্রতি সম্মান রেখে চলবো। একজন সদস্য- যেহেতু সাহিত্যিক তিনি সংগঠনে না থাকলেও সামাজিক মমত্ববোধ রক্ষা করবেন। আমরা সদস্যরা কখনো কোনভাবে পদের অপব্যবহার করবো না। কোন সদস্য আরেক সদস্যের অথবা সংগঠনের ক্ষতির কারণ হবো না।

সাহিত্যের নামে মূলত আমরা সমাজসেবামূলক কাজ করতে চেষ্টা করি, সুতরাং এখানে পার্থিব শক্তি এবং সম্মান অর্জনের সুযোগ কম।

সাহিত্য, সমাজ এবং গরীব দুখির কল্যাণে আমরা যথাসম্ভব ভুল বুঝাবুঝির ঊর্ধ্বে থাকবো।
আমরা সাংগঠনিক কথা সাংগঠনিক ভাবেই সমাধান করবো। কান কথায় শয়তান থাকে। এতে করে ব্যক্তির, সংগঠনের, সমাজের, রাষ্ট্রের এভাবে বিশ্বমূল্যবোধের ক্ষতি হয়।

কোন বিষয়ে দ্বিমত পোষন করলে বা সংগঠনের কোন কাজ, চিন্তা ও চেতনায় অমিল আছে মনে করলে, যে কোনো মুহূর্তে যে কোন সদস্য কেন্দ্রকে অবহিত করে সংগঠন থেকে তাঁর নাম প্রত্যাহার করে নিতে পারবেন।

এ কমিটি অস্থায়ী কমিটি হিসেবে কাজ করবে।
কেন্দ্র এই কমিটি সংগঠনের স্বার্থে, যে কোনো সময়, যে কোনো কারণে বা বিনা কারণে বিলুপ্ত করতে পারবে। সংগঠনের প্রয়োজনে কেন্দ্র এ কমিটির সদস্য পদে রদবদল বা সদস্যের নাম প্রত্যাহার করতে পারবে।

এখানে যোগ্যজন্যকে সব সময় স্বাগত জানানো হয়। অনুগ্রহ করে সাহিত্যচর্চায় উৎসাহীদের যথাযথ মূল্যায়ন করবেন। কলমের জন্য সদস্য সংগ্রহে বা পদ পদবিতে আপনারা কখনো দল, ধর্ম, পরিচিত, আত্মীয়- এই দৃষ্টিকোণ থেকে দেখবেন না।”

Previous articleঅভিজাত শিক্ষালয়ে অসহায় শিক্ষকরা
Next articleসিলেটে নারী কনস্টেবলের একাদিক সংসার নিয়ে আলোচনার ঝড়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।