মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০২৪
Homeশিক্ষাজবির পরিবহন খাতে চালক সংকট, ভোগান্তিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

জবির পরিবহন খাতে চালক সংকট, ভোগান্তিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

তাসদিকুল হাসানঃ অনাবাসিক তকমাযুক্ত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়েছে নারী শিক্ষার্থীদের জন্য একটি মাত্র আবাসিক হল। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ হাজার শিক্ষার্থীর বিপরীতে  বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রী হলে আবাসিক ছাত্রী সংখ্যা মাত্র এক হাজার। পড়াশোনার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন জায়গা থেকে যাতায়াত করে আসে। ক্যাম্পাসে আসতে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দূর বসবাসকারী শিক্ষার্থীদের একমাত্র ভরসা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন ব্যবস্থা। শুধু শিক্ষার্থীই নয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরাও বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থার উপর নির্ভরশীল।
বি.আর.টি.সি থেকে ভাড়াকৃত দ্বিতল বাস রয়েছে শিক্ষার্থীদের পরিবহনের জন্য। এর বাইরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কাজ ও সাধারণ যাতায়াতের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ৫৬ টি বাস থাকলেও নিয়মিত চালক আছে কেবল ৪১ জন। যাদের মধ্যে কেবল ১৯ জন বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগপ্রাপ্ত আর বাকীরা চুক্তিভিত্তিক ভাবে সহায়তা করছে। অধিকাংশ বাসেই চালকের পাশাপাশি নেই নিয়মিত সহযোগী। সহযোগী সংকট থাকায় বাস চালকদের গাড়ি চালাতে যেমন বেগ পেতে হচ্ছে আছে দুর্ঘটনার ঝুঁকি।
জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন বিভাগে কর্মরত অফিস সহকারীরা বিভাগের কাজের পাশাপাশি বাসে সহযোগী হিসেবে সাহায্য করে। বিশ্ববিদ্যালয়ে দশ বছরের বেশী সময় ধরে নিয়োজিত থাকলেও চাকুরী স্থায়ি হয়নি অনেক চালকের। বিশ্ববিদ্যালয়ের চাহিদা অনুযায়ী পদ না আসায় চাকুরী স্থায়ী করা সম্ভব হচ্ছে বলে প্রশাসনিকভাবে বারবার বলা হচ্ছে।
এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা জানান, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে নানা সংকটের মধ্যে চালকে সংকটের বিষয়টা লক্ষনীয়। দেখা যায় বিভিন্ন বিভাগের প্রয়োজনে বাস দরকার পড়লেও তা সরবরাহ সম্ভব হয় না চালকের অভাবে। যদিও পরিবহন পুল সর্বোচ্চ চেষ্টা করে ব্যবস্থা করার। তবে চালকের কথা চিন্তা করে তা প্রায়ই দেওয়া সম্ভব হয় না। বাসের জন্য নির্দিষ্ট সহযোগী না থাকায় বাস পরিস্কার করা বাসের সমস্যা গুলো দেখে তা সমাধানের ব্যবস্থা নেওয়া এসব কাজ প্রায়ই ব্যাহত হয়। ‘
বিষয়টি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন পুলের প্রশাসক অধ্যাপক ড. সিদ্ধার্থ কুমার ভৌমিক বলেন, “হ্যাঁ, বিশ্ববিদ্যালয়ে চালক সংকট আছে। আমাদের একজন চালক মারা গেছেন, দুই জন চাকরি ছেড়ে চলে গেছেন। আর অন্যান্য যারা অনুপস্থিত তারা আদৌ কাজে ফিরবেন কিনা তা জানা নেই। কেউ কেউ অসুস্থ থাকায় বাস চালাতে পারে না। তখন সবগুলো রুটে বাস দেওয়া কষ্টকর হয়ে যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২১ সালে ১৪ জন নতুন চালককে চুক্তিতে নিয়োগ দেওয়ার লক্ষ্যে নির্বাচিত করা হলেও বিভিন্ন কারণে তাদেরকে নিয়োগ দেওয়া হয় নি। তবে বর্তমান উপাচার্য মহোদয় এ বিষয়টি নিয়ে জানান যে প্রয়োজন অনুযায়ী তাদের থেকে নিয়োগ দেওয়া হবে। এখন উপাচার্য মহোদয় অসুস্থ আর বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকায় তা করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে আমরা চেষ্টা করছি এ সমস্যা দ্রুত সমাধান করার।”
আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments