কাগজ ডেস্ক: ভারতীয় আটক পাইলটকে এক কাপ চা খাইয়ে বিশ্বে আলোড়ন তৈরি করেছে পাকিস্তানের সেনা বাহিনী। উইং কমান্ডার অভিনন্দন চা খাওয়ার পর কৃতজ্ঞতাস্বরূপ বলেছিলেন, খুবই চমৎকার চা হয়েছে। ধন্যবাদ।
পরবর্তীতে এই ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে গর্বে পাকিস্তানিদের বুকও ফুলে উঠে। কাজেই এই চা সহজপ্রাপ্য কিছু না। এটার মূল্য হচ্ছে ভারতের মিগ-২১ যুদ্ধবিমানের সমান।
ভারতীয় বিমান বাহিনীর এই বিমানটিকেই গুলি করে ভূপাতিত করেছিল পাকিস্তান।
পাইলট অভিনন্দন বুধবার মিগ-২১ যুদ্ধবিমান চালিয়ে কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখা অতিক্রম করে পাকিস্তান অংশে ঢুকে পড়েছিলেন। পাকিস্তানি সেনা বাহিনী যেটাকে গুলি করে মাটিতে নামায়।

এবার অভিনন্দনের পান করা সেই এক কাপ চায়ের দাম কত হবে, তা নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে নানা জল্পনা-কল্পনা চলছে।
এর মধ্যে একটি ক্যাশ মেমোও ভাইরাল হয়েছে। যাতে ওই এককাপ চায়ের দাম লেখা রয়েছে মিগ-২১।

পাকিস্তান বিমান বাহিনীর অফিসার্স মেসের ক্যান্টিনের এই ক্যাশ মেমোর সত্যতা নিশ্চিত হওয়া না গেলেও তা বেশ আলোচনায় এসেছে।
এর আগে পাকিস্তান থেকে ভারতে আসার আগে ভারতীয় বিমান বাহিনীর পাইলট অভিনন্দন বলেছেন, ভারতীয় গণমাধ্যম সবসময় অতিরিক্ত রঙ মেখে খবর প্রচার করে। তারা তুচ্ছ বিয়ষকেও মারাত্মক হিংসাত্মকভাবে বর্ণনা করে। এভাবে সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্তির পথে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।
কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখায় পাকিস্তানি গুলিতে ভূপাতিত ভারতীয় বিমানের পাইলটকে ছেড়ে দেয়ার আগে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে এসব কথা বলেন উইং কমান্ডার অভিনন্দন। শুক্রবার তাকে ভারতের হাতে সমর্পণ করে পাকিস্তানি রেঞ্জার্সরা।

সীমান্ত পাড়ি দেয়ার আগে তার একটি বিবৃতি ভিডিও করেন পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষ। যে কারণে তাকে হস্তান্তরে বিলম্ব করাও হয়েছে।
ভিডিওতে ভারতীয় এই উইং কমান্ডার বলেন, আমি ভারতীয় বিমান বাহিনীর উইং কমান্ডার অভিনন্দন। আমি ভারতীয় বিমান বাহিনীর একটি যুদ্ধবিমানের পাইলট। আমি একটি লক্ষ্যবস্তু খুঁজতে সীমান্তের নিয়ন্ত্রণ রেখা অতিক্রম করেছিলাম। কিন্তু পাকিস্তানি বিমান বাহিনীর গুলিতে আমার বিমান ভূপাতিত করা হয়েছে।
তিনি বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত বিমান থেকে আমি বের হয়ে আসতে পেরেছিলাম। যখন আমি বিমান থেকে বের হই এবং প্যারস্যুট দিয়ে মাটিতে নামি। তখন আমার হাতে একটি পিস্তল ছিল।
‘সেখানে অনেক লোক জড়ো ছিল। নিজেকে বাঁচাতে কেবল একটি উপায় ছিল আমার। আমি পিস্তুল ফেলে রেখে দৌড়ে পালাতে চেষ্টা করি।’
তিনি বলেন, লোকজন আমাকে তাড়া করেন। তারা খুবই আবেগ আপ্লুত ছিলেন। তখন পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর দুই কর্মকর্তা এসে আমাকে রক্ষা করেন। পাকিস্তানি আর্মি ক্যাপ্টেনরা আমাকে রক্ষা করেন এবং আমার আর কোনো ক্ষতি হতে দেয়নি। এরপর তারা আমাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালে পাঠান।
‘হাসপাতালে আরও কয়েকটি পরীক্ষার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে আমাকে। তারা আমাকে আরও সহায়তা করেন।’
৩৫ বছর বয়সী এই ভারতীয় পাইলট বলেন, পাকিস্তানি সেনাবাহিনী খুবই পেশাদার। তাদের মধ্যে আমি শান্তি দেখেছি। পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সঙ্গে আমি সময় কাটিয়েছি। তারা আমাকে অভিভূত করেছে।
ভারতীয় এই পাইলট বলেন, উত্তেজিত জনতার হাত থেকে পাকিস্তানি সেনারা আমাকে রক্ষা করেছেন। তারা খুবই পেশাদার ও তাদের আচরণে আমি অভিভূত।