সদরুল আইন: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হওয়া সকল এমপিরা অাজ বৃহষ্পতিবার সংসদ সচিবালয়ে শপথ গ্রহনের কথা থাকলেও এই শপথ অনুষ্ঠানে যায়নি জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচিত ৭ এমপি।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচিত ৭ এমপি হলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর (বগুড়া-৬ আসন), মোশারফ হোসেন (বগুড়া-৪), জাহিদুর রহমান (ঠাকুরগাঁও-৩), আমিনুল ইসলাম (চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২) ও হারুনুর রশিদ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩)।

গণফোরামের দুই এমপি হলেন: সুলতান মোহাম্মদ মনসুর (মৌলভীবাজার-২) ও মোকাব্বির খান (সিলেট-২)।

নির্বাচনের পরদিন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে অনুষ্ঠানিকভাবে বলা হয়, তারা নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে পুনরায় নির্বাচনের দাবি করেছেন বিধায় শপথ নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

কিন্তু কেউ কেউ এখনো ‘সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় শেষ হয়ে যায়নি’ বলেও ইঙ্গিত দিচ্ছেন।

এরপর ৩১ ডিসেম্বর বিকেলে বিএনপির স্থায়ী কমিটি ও পরে সন্ধ্যায় তাদের জোটের বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, কারচুপির প্রতিবাদে বিএনপি ও জোটের নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা শপথ নেবেন না।

তারা নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে পুনরায় নির্বাচনের দাবিতে অবস্থান জানিয়ে দেন।

বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিএনপির মহাসচিব ও ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, যেহেতু আমরা নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে পুনরায় নির্বাচনের দাবি করেছি, সেহেতু শপথ নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য ও জোটভুক্ত গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু বলেন, শপথ নেওয়ার সময় বৃহস্পতিবারই শেষ হয়ে যাচ্ছে না। আর আমরা এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্তে আছি শপথ নিচ্ছি না।

সিলেট-২ আসন থেকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত গণফোরামের সংসদ সদস্য মোকাব্বির খান বলেন, যে এলাকার জনগণ আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে তাদের মতামতের বিষয় আছে।

আমি একটা দলের মনোনয়নে নির্বাচিত হয়েছি, সে দলের বর্ধিত সভা আছে ৫ জানুয়ারি। দলের সিদ্ধান্তেরও একটা বিষয় আছে।

তাছাড়া শপথ গ্রহণ বৃহস্পতিবার শুরু হলেও ৯০ দিন সময় আছে, এর মধ্যেই ঠিক করা হবে আমি সংসদে শপথ নেবো কি নেবো না।