কাগজ প্রতিবেদক: পুড়ে যাওয়া শরীর নিয়ে গত কয়েকদিন অমানবিক যন্ত্রণা নিয়ে লড়াই চালিয়ে যাওয়া নুসরাতের মৃত্যু সংবাদ ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে প্রতিবাদের ঝড়। একই সঙ্গে এই বিচার যেন দ্রুত নিশ্চিত করা যায় সেটি মনিটরিংয়ের অঙ্গীকার নিয়ে হাজির হন হাজারও মানুষ। বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) একাধিক প্রতিবাদ সমাবেশের ঘোষণা ছড়িয়ে পড়তে থাকে। দাবি একটাই, নুসরাতকে বাঁচানো যায়নি, বিচার নিশ্চিত করতে হবে।

নারীবাদী লেখক সাদিয়া নাসরিন লিখছেন, “আমার যা হয় হোক, তার যেনো বিচার হয়”… কথাটার ওজন কি আমরা বুঝি? আমরা কি বুঝতে পারছি যে এই কাজটা আমাদের করতে হবে? করবো আমরা? এতোটুকু এতোটা লড়াই একলা করতে করতে পুড়ে মরেছে মেয়েটি, বাকিটুকু আমরা পারবো না? পারবো না আমরা?’

ভিকারুন্নুনিসা নুন স্কুলের শিক্ষক সৈয়দা তানজিনা ইমাম লিখেছেন, নুসরাতরা চলে যায়। চলে গিয়ে বেঁচে যায়। যারা থেকে যায় তাদের দাঁড় করিয়ে দেওয়া হয় বন্ধুর হন্তারক আর নিজের ধর্ষককে বাঁচানোর মিছিলে।’
এই বিচারকাজের মনিটরিং এবং ফলোআপ থেকে আমরা যেন বিচ্যুত না হই উল্লেখ করে অ্যাক্টিভিস্ট শামীম আরা নীপা লিখেছেন, ‘আমি এই অন্যায়ের প্রতিবাদ করবো শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত… আমি সারা বাংলাদেশের কাছে বলবো, সারা পৃথিবীর কাছে বলবো এই অন্যায়ের প্রতিবাদ করার জন্য, আমি এই অন্যায়ের প্রতিবাদ করবো…। নুসরাত জাহান রাফি মারা গেছে অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে করতে…। সমগ্র দেশ জাতি ও জগতের কাছে রাফি দাবি রেখে গেছে…। সমাজের মানুষগুলোর মানুষ হওয়ার, মানুষ করার, মানুষ জন্ম দেওয়ার শেষ সময়টাও চলে যাচ্ছে– তাও ঘুমাচ্ছে প্রাণীগুলো…!

Previous articleভাইয়ের চাওয়া পূরণ হলো না, চলে গেলেন নুসরাত
Next articleজুলাই থেকে ১৬ উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রান্না করা খাবার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।