বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নিরাপদ ভ্রমণের জন্য রেল যোগাযোগ এখন মানুষের কাছে অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশের ট্রেনের টিকেট অনলাইন এবং অফলাইন দুইভাবেই নেওয়া যেত কিন্তু কিছুদিন আগে অনলাইন টিকিট এর ক্ষেত্রে টেন্ডার জটিলতার কারণে অনলাইনে টিকিট বিক্রি বন্ধ হয়ে যায়।ফলে মাঝখানে অনলাইনে টিকিট না পেয়ে যাত্রীদের ভোগান্তি হলেও এর অবসান হতে চলেছে।অনলাইনে নতুন টিকেটিং সিস্টেম আজ থেকে চালু হওয়ার কথা রয়েছে।কিন্তু এবার সেই আগের মত ট্রেনের টিকিট কাটার পদ্ধতি চালু নেয়।

ট্রেনের টিকিট কাটার নতুন নিয়ম

ট্রেনের টিকেট কাটার বর্তমান পদ্ধতি আগের নিয়মের থেকে একেবারে আলাদা । আগে রেল সেবা অ্যাপ এর মাধ্যমে খুব সহজেই ট্রেনের টিকেট কাটা যেত কিন্তু এখন তা আর হচ্ছে না। এখন ট্রেনের টিকেট কাটার জন্যে ২ টি পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। নিচে ট্রেনের টিকেট কাটার নতুন পদ্ধতি আলোচনা করা হয়েছে ।
নতুন নিয়মে ট্রেনের টিকিট কাটার রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া

প্রথমে https://eticket.railway.gov.bd/ ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে হবে।ওয়েব সাইটটির নীচের দিকে “Registration” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

Create an Account” নামের নতুন একটি Page আসবে। এখানে “Personal Information” এর সংশ্লিষ্ট ঘরগুলো প্রয়োজনীয় তথ্যাদি দিয়ে পূরণ করতঃ Security code ঘরের পাশে প্রদর্শিত “Security Code” দিয়ে পূরণ করে Register বাটনে ক্লিক করতে হবে।

সকল তথ্যাদি সঠিক থাকলে “Registration Successful” নামে নতুন একটি Page আসবে।
ই-টিকেটিং সিস্টেম থেকে তাৎক্ষনিকভাবে আপনার প্রদত্ত ই-মেইল ঠিকানা Bangladesh Railway এর থেকে একটি ই-মেইল পাঠানো হবে।

আপনার ই-মেইল এর মেসেজ বক্সে Bangladesh Railway প্রদত্ত ই-মেইলটি খুলতে হবে। মেসেজের ভিতর রক্ষিত “Click” লিংকটিতে ক্লিক করতে হবে। এ প্রক্রিয়ার পর যাত্রীর Registration প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ হবে।

নতুন নিয়মে অনলাইনে ট্রেনের টিকিট ক্রয় প্রক্রিয়া
প্রথমে www.eticket.railway.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে হবে।

“Log in” এর প্যানেল ই-মেইল ঠিকানা, পাসওয়ার্ড এবং সিকিউরিটি কোড পূরণ করতঃ “Log in” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

এরপর যে Pageটি আসবে তাতে “Purchase ticket” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

এখানে যে Pageটি আসবে সে Page এ আপনার চাহিত ভ্রমণ তারিখ, প্রারম্ভিক স্টেশন, গন্তব্য স্টেশন, ট্রেনের নাম, শ্রেনী, টিকেট সংখ্যা যেভাবে রয়েছে তা পূরণ করতে হবে। এর পরের পেইজে “Registration Seat Available” দ্বারা চাহিত টিকেট এবং এর মূল্যমান জানিয়ে দেয়া হবে। টিকেট থাকলে “Purchase ticket” বাটন ক্লিক করতে হবে।

ক্রেডিট কার্ড, ক্যাশ কার্ড কিংবা ব্রাক ব্যাংকের একাউন্ট মারফত যাত্রির জমাকৃত টাকা থেকে টিকেট মূল্য কেটে নেয়া হবে এবং যাত্রীর ই-মেইলে ই-টিকেটটি পাঠিয়ে টিকেট নিশ্চিত করা হয়ে থাকে।

ই-মেইল মেসেজ বক্স থেকে প্রেরিত টিকেটটির প্রিন্ট নিয়ে ফটো আইডিসহ ই-টিকেট প্রদত্ত “Ticket Print Information” প্রদান করে সংশ্লিষ্ট সোর্স ষ্টেশন থেকে যাত্রার পূর্বে ছাপানো টিকেট সংগ্রহ করতে হবে।
অনলাইন ট্রেনের টিকিট প্রিন্ট আউট করতে হবে কি?

আপনি যদি নিজের NID ইউজ করে ট্রেনের টিকিট ক্রয় করে থাকেন। তাহলে আপনার ট্রেনের টিকিট প্রিন্ট আউট করার প্রয়োজন নেই। এবং আপনি চাইলে প্রিন্ট আউট করতে পারেন। কিন্তু আপনি যদি অন্য কারো এনআইডি দিয়ে টিকিট ক্রয় করে থাকেন। তাহলে নিজের সেফটির জন্য টিকিট প্রিন্ট আউট করে নিন। হতে পারে ট্রেনের ভিতর আপনাকে কোন রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় এই টিকিট প্রিন্ট আউট না করার কারণে।

ট্রেনের টিকেট বাতিল করার নিয়ম
এখন পর্যন্ত অনলাইনে টিকেট কেনার পর, টিকেট বাতিল বা ফেরত দেওয়ার কোন ব্যবস্থা নেই। তবে এক্ষেত্রে, ট্রেন স্টেশন ছাড়ার একটি নির্দিষ্ট সময় পূর্ব পর্যন্ত টিকেট বাতিল করার ব্যবস্থা রাখা গেলে যাত্রীদের জন্য ভাল হত। অনেকেই ট্রেনের টিকেট 4/5 দিন আগে কিনে রাখেন। কোন অনাকাঙ্খিত সমস্যার কারণে ভ্রমণ বাতিল হতেই পারে। তাই ট্রেনের টিকেট ফেরত বা বাতিল একটি জরুরী বিষয়।

Previous articleনোয়াখালীতে গৃহবধূ ও ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধার
Next article৪ দিন পর করোনায় একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ৮১
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।