আজকের কাগজ: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সারাদেশের রিটার্নিং অফিসাররা মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শুরু করেছেন। অনেকের মনোনয়নপত্র ইতোমধ্যে বাতিল করা হয়েছে। যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে তারা হলেন-

বিএনপি চেয়ারপরসন বেগম খালেদা জিয়ার ফেনী-১ আসন, হবিগঞ্জ-১ আসনে সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে রেজা কিবরিয়া ও সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, ঢাকা-১ আসনে ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু আশফাক ও নবাবগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান ফাহিমা হোসাইন জুবলি।
যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার বরখাস্ত হওয়া চেয়ারম্যান যশোর-২ আসনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী সাবিরা সুলতানার সাজা ও দন্ড স্থগিত করে দেওয়া হাইকোর্টের আদেশের ওপর চেম্বার আদালতের স্থগিতাদেশ চলমান রেখেছেন আপিল বিভাগ। কুড়িগ্রাম-৪ আসন (রাজিবপুর,রৌমারী ও চিলমারী উপজেলা) থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনের অংশ নিতে ইচ্ছুক গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার, ঢাকা-৬ আসনে বিএনপির প্রার্থী সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাক হোসেন, বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম আলম ওরফে হিরো আলম, মাদারীপুর-২ (সদরের একাংশ ও রাজৈর) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আল আমিন মোল্লা ও কাদের মোল্লা, সিলেট-৫-৬ আসনে বিরোধী দলীয় হুইপ সেলিম উদ্দিন, পটুয়াখালী-৩ আসনের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী গোলাম মাওলা রনি, যশোর-৩ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি শাহীন চাকলাদার,

সাজাপ্রাপ্ত হওয়ায় খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। খেলাপির অভিযোগে রেজা কিবরিয়ার মনোনয়নপত্রটি বাতিল করা হয়েছে। সিটি ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড ডিভিশন এবং ঢাকা ব্যাংক থেকে প্রেরিত অভিযোগের ভিত্তিতে তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকার কারণে কেয়া চৌধুরী এমপি’র মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।

এ নির্বাচনে ৩০০ আসনের জন্য ৩০৫৬ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। অনলাইনে জমা দিয়েছেন ৩৯ জন। তবে অনলাইনে মাত্র ২৩টি সঠিকভাবে জমা পড়েছে।