বিএনপি প্রার্থী নিজে প্রতিপক্ষের অফিসে লাথি মেরেছেন: কাদের

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গোপীবাগে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসি) নির্বাচনের প্রচারণায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের জন্য ধানের শীষ প্রতীকের মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনকে দুষেছেন ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
তিনি বলেছেন, বিএনপি প্রার্থী নিজেই প্রতিপক্ষের অফিসে লাথি মেরেছেন, ভিডিও ফুটেজে তা আছে। ইসির উচিত সঠিক তদন্ত করে সত্য উদঘাটন করা।
আজ সোমবার সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে প্রেস ব্রিফিংয়ে এক প্রশ্নের জবাবে কাদের এ কথা বলেন।
রোববার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে গোপীবাগে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেনের সমর্থকদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ বাঁধে। এতে এক সংবাদকর্মীসহ ডজনখানেক লোক আহত হন।
সংঘর্ষের পর ইশরাক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, তাদের জনপ্রিয়তায় ভীত হয়ে আওয়ামী লীগের লোকজন বিনা উসকানিতে হামলা করেছে। তবে তিনি এ ধরনের হামলায় ভীত নন বলেও জানান ইশরাক।
এ সংঘর্ষের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, নির্বাচন হওয়ার পথে বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ অন্তরায় হয়ে দাঁড়াবে না। ভিডিও ফুটেজ আছে। ফুটেজে যা কিছু আছে তাতে প্রমাণ হয় না যে আওয়ামী লীগের সমর্থকরা আগে হামলা করেছে।
তিনি বলেন, আমি মনে করি না, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বড় ধরনের কোনো সংঘর্ষ বা সংঘাত হয়নি। একটি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এটার ভিডিও ফুটেজ রয়েছে। ভিডিও ফুটেজে যেটা পাওয়া গেছে সেটাতো… গুলিটা কোন পক্ষ থেকে আসছে, তারপর অফিসে লাথি মারা- এটিও ফুটেজে আছে। প্রতিপক্ষের অফিসে প্রার্থী নিজেই লাথি মেরেছেন। সেটাও কিন্তু ফুটেজে আছে।
‘এটা নিয়ে আমরা আমাদের কথা বলব। আপাতদৃষ্টিতে মনে হবে প্রত্যেকেই নিজের পক্ষে কথা বলছে। বিএনপি তাদের কথা বলছে। বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের তারা (বিএনপি) বোঝাতে চাইছে যে, আক্রমণটা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে ভিডিও ফুটেজে যা কিছু আছে, তাতে কিন্তু সেটা মনে হয় না।’
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এখানে নির্বাচন কমিশনের উচিত সঠিক তদন্ত করে সত্য উদঘাটন করা। সত্য উদঘাটন করে অপরাধ যারই হোক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে নির্দেশ দিতে পারে নির্বাচন কমিশন।’
সংঘর্ষের ঘটনাটির বিষয়ে বিএনপির কর্মীরা বলছেন, মতিঝিল এলাকায় প্রচারণা চালিয়ে দুপুর ১টার দিকে ইশরাক মিছিল নিয়ে গোপীবাগে নিজের বাসার দিকে যাওয়ার সময় সেন্ট্রাল উইমেন্স কলেজের মোড়ে ‘আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা’ তাদের ওপর হামলা করেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ইশরাক মিছিল নিয়ে যাওয়ার সময় আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী রোকন উদ্দিন আহমেদ এবং সংরক্ষিত আসনের নারী কাউন্সিলর প্রার্থী লাভলী চৌধুরীর কর্মীরা উপস্থিত হন ওই মোড়ে। দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি স্লোগানের এক পর্যায়ে উত্তেজনা এবং ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। পরে তা ঢিল ও চেয়ার ছোড়াছুড়িতে রূপ নেয়।