বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ‘দেশের ব্যবাসায়ীরা প্রচণ্ড শক্তিশালী, ধরাছোঁয়ার বাইরে, করোনার টিকা নিয়ে ব্যবসা হতে পারে। যেটা টিকা ভাবছি হতে পারে তার ভেতর ডিস্ট্রিল ওয়াটার।’ কোভিড-১৯ মোকাবিলায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে উদ্ভাবিত করোনার টিকা আমদানিতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়ে এমন উৎকণ্ঠা প্রকাশ করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ার‌ম্যান ও মহাজোট সরকারের সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী জি এম কাদের।

তিনি বলেন, আমি খুবই উৎকণ্ঠিত হই যদিও হাস্যকর, উৎকণ্ঠিত হওয়া উচিৎ কিনা! টিকার নামে ভেজাল টিকা, হতে পারে ভেতরে ডিস্টিল ওয়াটার ভরে ভরে টিকা আসবে কিনা? যেসব টিকা আমাদেরকে দেয়া হবে সেগুলোর ব্যাপারে কে আমাদেরকে গ্যারান্টি দেবে?

বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে বিজয় দিবস উপলক্ষে জাতীয় সাংস্কৃতিক পার্টি আয়োজিত এক আলোচনায় তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, আমাদের বাচ্চাদের টিকা দিলাম, মনে করলাম ভালো। পরে দেখা গেলো ডিস্টিল ওয়াটার। এরকম ঘটনা আমাদের দেশে ঘটছে, এ জন্যই আমাদেরকে এসব কথা বলতে হচ্ছে।

মহাজোটের সাবেক এই বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, করোনার টিকা আমদানি বড় ধরণের একটা ব্যবসা হতে পারে, আমাদের ব্যবসায়ীরা খুবই শক্তিশালী। তারা বিভিন্নভাবে বিভিন্ন কাজ করে। ভালোও করে, খারাপও করে। তাদেরকে কেউ ধরা ছোঁয়ার আছে, বলে আমি মনে করি না। কখনো দেখিও নাই তাদের ধরা ছোঁয়া গেছে। এ পরিস্থিতি থেকে আমরা পরিত্রাণ চাই।

জিএম কাদের বলেন, আমেরিকার মতো ধনী দেশ তারা, তাদের জনগণকে বিনা পয়সায় টিকা দিবে। যদি আমাদের দেশে টাকা দিয়ে কিনে টিকা দিতে হয়, তাহলে যে মূল্য নির্ধারণ করা হবে তাতে ৯০ ভাগের বেশী টিকা দিতে পারবে না। কাজেই তাদের দিকে দৃষ্টি দিয়ে হলেও টিকাগুলো বিনা পয়সায় পৌঁছায় তার ব্যবস্থা করতে সরকারের কাছে আমি দাবি জানাচ্ছি।

জি এম কাদের আরও বলেন, করোনার টিকা সংরক্ষণ ও পরিবহনের জন্য যেসব ব্যবস্থা জরুরি সে বিষয়ে প্রস্তুতি আছে কিনা সেটাও দেখতে হবে। কারণ টিকা আনলাম, সেই টিকা দেয়ার আগেই নষ্ট হয়ে গেল সেই দিকে আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে।

ধর্ষণের অপরাধে মৃত্যুদণ্ড আইন করে কোনো লাভ হয়নি এমন অভিযোগ জিএম কাদেরের। তিনি বলেন, কি লাভ হয়েছে? মৃত্যুদণ্ডের আইন করে কোনো লাভ হয় নাই। ধর্ষণ বাড়ছে শুনছি। এরশাদ সাহেবের সময় মৃত্যুদণ্ডের কথা বললে মানুষ ভয় পেলেও এখন শুনলে মানুষ হাসে। কারণ তারা জানে কার মৃত্যুদণ্ড হবে আর কার হবে না।