বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে না পারার ব্যর্থতা স্বীকার করে ক্ষমা চাইলেন বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা। দলীয় চেয়ারপার্সনের নিঃশর্ত মুক্তি দাবিতে রাজধানীতে আয়োজিত সমাবেশে তারা বলেন, আমরা এতটাই দুর্ভাগা, এতটাই ব্যর্থ যে দলীয় প্রধানকে কারামুক্ত করার ব্যবস্থা করতে পারিনি।

সমাবেশে থেকে সরকারকে চাপে ফেলতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বানও জানান বিএনপি নেতারা।

২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

দলীয় প্রধানের কারাবন্দিত্বের ৩ বছর হওয়ায় সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের রাস্তায় প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে বিএনপি। কর্মী-সমর্থকের পাশাপাশি যোগ দেন দলের নীতি নির্ধারণী পর্যায়ের কয়েকজন নেতা। সমাবেশে বেগম জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন নেতারা। দাবি আদায়ে জোরালো আন্দোলন গড়ে তুলতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বানও জানান তারা।

আল জাজিরার প্রতিবেদন সম্পর্কে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর বলেন, আন্তর্জাতিক এই সংবাদ মাধ্যমটি কোন কোন তথ্য ভুল দিয়েছে তা সরকার ধরিয়ে দিলে ভালো হয়। সরকার ভয় পাবে এমন আন্দোলন করতে হবে। সারাদেশের রাস্তাঘাট দখলে নিয়ে সরকারকে সরিয়ে দেয়ার জন্য নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বানও জানান তিনি।

সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। বক্তব্যের শুরুতেই তিনি নিজেদের (বিএনপি নেতাদের) হতভাগা ও ব্যর্থ বলে অভিহিত করে বলেন, এতদিনেও আমরা বেগম জিয়াকে কারামুক্ত করার ব্যবস্থা করতে পারিনি। এ জন্য দলীয় চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে ক্ষমা প্রার্থনাও করেন আব্বাস।

সমাবেশে বেশ কয়েকবার বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এ সময় উপস্থিত নেতারা তাদের শান্ত হওয়ার জন্য মাইকে আহ্বান জানান।