সাংবাদিকদের সঙ্গে ইসির দুর্ব্যবহার
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার বের করে দিল ইসি
  • সাংবাদিকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করলেন ইসি সচিব

  • সাংবাদিকদের বের করে দিয়ে ভুল স্বীকার করলেন সিইসি

কাগজ প্রতিবেদক:একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের ব্রিফিং উপলক্ষে সাংবাদিকদের ডেকে এনে বের করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এ সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারও করা হয় ইসির পক্ষ থেকে। আজ শনিবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে অবস্থিত নির্বাচন ভবনে এই ঘটনা ঘটে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা সংক্রান্ত ব্রিফিংয়ের প্রথম দিন ছিল আজ। তিন দিনব্যাপী এই ব্রিফিং শেষ হবে আগামী সোমবার।

এর আগে ইসির জনসংযোগ শাখার সহকারী পরিচালক মো. আশাদুল হক গতকাল শুক্রবার সাংবাদিকদের এই অনুষ্ঠানে থাকার জন্য আমন্ত্রণ জানান। ডেকে এনে এভাবে বের করে দেওয়ায় সংবাদকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়।

ব্রিফিং থেকে বেরিয়ে আসার পর এক সাংবাদিক বলেন, ‘এভাবে বের করে দেওয়ায় সংবাদ সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি। এতে আমরা কষ্ট পেয়েছি।’

এর জবাবে পরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেন, ‘আগামীকাল থেকে থাকতে দেব।’

ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে দেখা যায়, আজ সকাল ১০টার দিকে নির্বাচন ভবনের ব্যাজমেন্ট-২’তে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের উদ্দেশে নির্বাচন আচরণ বিধিমালা সংক্রান্ত ব্রিফিং শুরু হয়। ব্রিফিংয়ে নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের (ইটিআই) মহাপরিচালক বক্তব্য দেওয়ার পর সাংবাদিকদের বের হয়ে যাওয়ার জন্য ঘোষণা দেয় ইসি।

তখন সাংবাদিকরা বারবার জানান, তাঁরা সিইসির বক্তব্য শুনে চলে আসবেন। তা না হলে সংবাদ তৈরি করা যাবে না। কিন্তু ইসি কোনো কথা না শুনে সাংবাদিকদের বেরিয়ে যেতে বলে।

সংবাদকর্মীরা বের হতে না চাইলে ইসির পক্ষ থেকে জনসংযোগ বিভাগের পরিচালক এস এম আসাদুজ্জামান রূঢ় আচরণ করেন এবং এরপর বেরিয়ে আসেন সংবাদকর্মীরা।

সভায় উপস্থিত ছিলেন সিইসি কে এম নুরুল হুদা, কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানমও অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শাহাদাত হোসেন চৌধুরী, ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, অতিরিক্ত সচিব মো. মোখলেছুর রহমান ও ইটিআই মহাপরিচালক মোস্তফা ফারুক।

ব্রিফিংয়ে আরো উপস্থিত ছিলেন ঢাকা, ময়মনসিংহ, কুমিল্লা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, কিশোরগঞ্জ, শেরপুরসহ কয়েকটি জেলার ২২৮ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

এর আগে রিটার্নিং কর্মকর্তা, সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা, স্থানীয় পর্যবেক্ষক, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিশেষ সভায় ভিডিও ফুটেজ ধারণ, ছবি নেওয়া, সিইসি, কমিশনার বা সচিবের বক্তব্য ধারণ করতে পারতেন সংবাদকর্মীরা। তবে আজ প্রথমবারের মতো রীতি ভেঙে অনুষ্ঠানের শুরুতেই সাংবাদিকদের বের করে দেওয়া হলো।