সাহারুল হক সাচ্চ: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় বছরের প্রধান ইরি-বোরো ধান ফসলের আবাদ করা শুরু হয়েছে। বিভিন্ন মাঠ এলাকায় কৃষকেরা ইরি-বোরো ধান চারা রোপন করছেন। এখন তাদের ব্যস্ততা বাড়ছে। মাঠের কাজে দিন মজুরদেরও চাহিদা বাড়ছে। এক বিঘা জমিতে পাওয়ার টিলারে হাল চাষে ৬’শ টাকা নেওয়া হচ্ছে। উপজেলা কৃষি বিভাগ সুত্রে, এবারের মৌসুমে উল্লাপাড়ায় মোট ৩০ হাজার ২’শ ৯০ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো ধান চাষের সরকারি লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়ন এলাকায় সবচেয়ে বেশি পরিমান জমি ইরি-বোরো ধান চাষে লক্ষ্যমাত্রা ধরা আছে। কৃষকেরা ব্রি-২৮, ব্রি-২৯, ব্রি- ৫৮ ও হাইব্রিড বিভিন্ন জাতের ধান নিজস্ব বীজতলা করেছেন। কৃষকেরা তাদের নিজস্ব বীজতলা চারা রোপন করছেন। উল্লাপাড়া অঞ্চলে ইরি-বোরো আবাদে জমিতে পানি সেচে গভীর নলকূপের পাশাপাশি বেশি সংখ্যক ব্যক্তিমালিকানাধীন অগভীর নলকূপের ডিজেল ও বিদ্যুত চালিত সেচ মেশিন ব্যবহার করে আসছে। বিভিন্ন মাঠে এরই মধ্যে সেচ মেশিন গুলো চালু করা হয়েছে। কৃষকেরা ইরি-বোরো আবাদে জমি তৈরি, বীজতলা থেকে চারা তোলা ও রোপনে ভরদিন ব্যস্ততায় সময় পার করছেন। উপজেলার বামনঘিয়ালা মাঠে সরজমিনে দেখা গেছে একটি মাঠে তিনটি সেচ মেশিন চলছে। কৃষকেরা পাওয়ার টিলারে জমিতে হাল চাষ ও চারা রোপন করছেন। একাধিক কৃষক জানান তারা আগাম করে ধান চাষ করছেন। স্থানীয় কৃষি অফিস থেকে জানানো হয়, উল্লাপাড়া অঞ্চলে রামকৃষ্ণপুর, সলংগাসহ বেশিকটি ইউনিয়ন এলাকায় বিভিন্ন মাঠে আগাম করে ইরি-বোরো ধান চাষ শুরু করা হয়েছে। এ সব জমিতে রোপা আমন ধান কেটে নিয়ে জমি প্রতিত না রেখে আগাম করে চাষ শুরু করা হয়েছে। উল্লাপাড়া সিনিয়র উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ খিজির হোসেন প্রামানিক জানান, কৃষি বিভাগের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাগন এখন সরাসরি মাঠে নেমে কৃষকদেরকে ইরি-বোরো ধান চাষে লাইন (সারিবদ্ধ) করে ধান লাগানো, লোগো পদ্ধতি বিষয়ে উৎসাহ ও পরামর্শ দিচ্ছেন।

Previous articleলক্ষ্মীপুরে পুলিশের সাথে সংঘর্ষের মামলায় ১০ যুবলীগ নেতার জামিন মঞ্জুর
Next articleরাজশাহীতে অপহৃত ২ স্কুলছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।