শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নিত করা হলেও সেখানে আজও জনবল বাড়ানো হয়নি। আগের জনবল ও চিকিৎসক দিয়েই চলছে সেবা। পূর্বের অনুমোদিত ৩১ শয্যার হাসপাতালের জনবল ও চিকিৎসক সংকটের কারনে জোড়াতালি দিয়ে চলছে ক্ষেতলাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা কার্যক্রম। সেবা নিতে আসা প্রসব কালিন গর্ভবতী মা ও বিভিন্ন রোগের রোগীরা তাদের কাঙ্খিত চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। জানা গেছে, ৩১ শয্যার ক্ষেতলাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ২০১১ সালে ৫০ শয্যায় উন্নিত করা হয়। সেখানে ৫০ শয্যার বিপরীতে প্রয়োজনীয় জনবল ও চিকিৎসক নিয়োগ না দিয়েই পূর্বের ৩১ শয্যার জনবল দিয়ে আজও চালানো হচ্ছে এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দাপ্তরিক কার্যক্রম ও চিকিৎসা সেবা। ফলে এলাকার রোগীরা বঞ্চিত হচ্ছে তাদের স্বাস্থ্য সেবা থেকে। আজও ৫০ শয্যার জনবল দেওয়া হয়নি সেখানে। জনবল কাঠামো অনুযায়ী যেখানে ২৫ জন চিকিৎসসহ ১৫ জন অতিরিক্ত আরও জনবল নিয়োগ দেওয়ার কথা, সেখানে আগের ৩১ শয্যার জন্য ১১ জন চিকিৎসকসহ মোট ৫৩ জনের পরিবর্তে বর্তমানে এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫ জন চিকিৎসকসহ মোট ২২ জনকে দিয়ে কোন রকমে চলছে সেবা কার্যক্রম। এলাকার জনসংখ্যার উপর ভিত্তি করে জুনিয়র ও সিনিয়রসহ ৫ জন কনসালটেন্ট থাকার কথা কিন্তু সেখানে মাত্র ২ জন কাজ করছে। এছাড়া ৪ জন চিকিৎসক এর পদে ২ জন, অফিস সহায়ক ৪ জনের পদে ১ জন. ক্লিনার ৫ জনের পদে ২ জন, নিরাপত্তা প্রহরী ২ জনের পদে ১ জন

আছে। এ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মোট ৫৩ জনের পদের বিপরীতে মাত্র ২২ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্মরত থাকলেও ৩১ টি পদ এখনো শূন্য রয়েছে। এদিকে অধিকাংশ কর্মকর্তা কর্মচারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিকে অবস্থান না করে নিজ বাসা-বাড়ী ও জেলা সদর থেকে এসে অফিস করারও অভিযোগ আছে তাদের বিরুদ্ধে। চিকিৎসা নিতে আসা রোগী একরামুল ইসলাম বলেন, যোহরের আযানের পর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তারদের পাওয়া যায়না। সময় মত ডাক্তার না থাকার কারনে অনেকেই বিপদে পড়ে। জরুরী বিভাগে রোগী নিয়ে এলে তাদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা না দিয়ে অন্যত্র চিকিৎসা পাঠান তারা। মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট আছমা খাতুন বলেন, ক্ষেতলাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের রোগ নির্নয় ও পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য এক্সরে ও আলট্রাসনোগ্রাম মেশিন প্রায় ৩ বছর ধরে বিকল হয়ে আছে। ইতিমধ্যে বিকল এক্সরে মেশিন পুরোপুরি অকেজো ঘোষনা করার কারণে সকল কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। তবে দাতা সংস্থার দেওয়া একটি এক্সরে মেশিন আজও চালু আছে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫ জন চিকিৎসকের পদ থাকলেও এখানে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক যোগদান না করায় পার্শ্ববর্তী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এনে জরুরী ভাবে রোগীর চিকিৎসা সেবা দেয়া হত। কিন্তু বর্তমানে সে সুযোগও বন্ধ হয়েছে। অবশেষে উপজেলার তুলশিগংঙ্গা ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে ডাঃ নবনিতা পাল ও বড়তারা ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে ডাঃ ইসমাঈল হোসেনকে এনে এই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। কর্তব্যরত আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ নবনিতা পাল বলেন, প্রয়োজনীয় চিকিৎসক না থাকায় তুলশিগংঙ্গা ইউনিয়ন উপ- স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে আমাকে এনে এখানকার ভারপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিকেল অফিসার হিসাবে দায়িত্ব দিয়েছেন। এ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসক ও প্রয়োজনীয় জনবলের অভাবে রোগীদের চিকিৎসাসহ অন্যান্য কাজ কর্মে বাঁধার সম্মক্ষীন হতে হচ্ছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মামুনুর রশিদ বলেন, ক্ষেতলাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কয়েক বছর ধরে চিকিৎসকসহ জনবল সংকট বিদ্যমান রয়েছে। এ সংকট নিরসনের জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে। এলাকার রোগীদের

কাঙ্খিত চিকিৎসা সেবা দেওয়ার একান্ত ইচ্ছা থাকা সর্ত্বেও তা সম্ভব হচ্ছে না। চিকিৎসক ও জনবল সংকটসহ রোগ নির্নয়ের প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সচল থাকলে আশা করি শতভাগ চিকিৎসা সেবা দেয়া সম্ভব হবে। বর্তমান এ্যানেসথেসিয়া বিশেষজ্ঞ না থাকায় সিজারসহ গুরুত্ত্বপূর্ন অপারেশানের রোগীকে অন্যত্র চিকিৎসা নিতে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।