তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার পৌরসভাসহ ১০টি ইউনিয়নের বাজারগুলোতে সরকারি নীতিমালা উপেক্ষা করে অবাধে বিক্রি হচ্ছে পেট্রোলিয়াম এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার। সরকারি নিয়ম-নীতিকে উপেক্ষা করে এবং সরকার থেকে বিস্ফোরক অধিদপ্তরের লাইসেন্স ছাড়াই দোকানের সমানে এমনকি ফুটপাতে সিলিন্ডার ফেলে রেখে ব্যবসায়ীরা এলপি গ্যাসের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। যত্রতত্র গ্যাস সিলিন্ডার ফেলে রেখে এমন রমরমা ব্যবসার নজির দেশের অন্য কোথাও নেই। ফলে যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছে সচেতন মহল। মঙ্গলবার (৫ মার্চ) বিকেলে ভ্রাম্যমান আদালত ৪ দোকানে অভিযান চালিয়ে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শিল্পী রাণী রায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কর্মকর্তা ও থানা পুলিশ কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। জরিমানাকৃত দোকান ও প্রতিষ্ঠান হলো, বামনী ইউনিয়নের বাংলাবাজার এলাকার রুপা ষ্টোর ৫ হাজার টাকা, রেহানা ট্রেডার্স এর ৪ হাজার টাকা, দক্ষিন কেরোয়া গ্রামের কিবরিয়া ষ্টোরের ৩ হাজার টাকা ও শহরের পীর ফয়েজ উল্যাহ সড়কের নাফিজা এন্টারপ্রাইজের ৩ হাজার টাকাসহ মোট ১৫ হাজার জরিমানা আদায় করা হয়। উল্লেখ্য, পৌর শহরসহ উপজেলার হায়দরগঞ্জ, খাঁেসরহাট, মোল্লারহাট, রাখালিয়া, মীরগঞ্জ, বর্ডার বাজার, গাজীনগর, বাসাবাড়ী ও মিতালী বাজারসহ ২৮টি বাজারের ডিপার্টমেন্টাল স্টোর, মুদি দোকান, হার্ডওয়্যার দোকান, ফাস্টফুড, কসমেটিকস দোকান, তেল বিক্রির দোকান, ফ্ল্যাক্সিলোডের দোকানসহ হাইওয়ে রাস্তার কাছে, ফুটপাতে গ্রামের রাস্তার মোড়ে, ফার্মেসিতে ও থান কাপড় বিক্রির দোকানে অবাধে বিক্রি হচ্ছে গ্যাস সিলিন্ডার। এলপি গ্যাস সিলিন্ডারগুলো দোকানের সামনে বা ভেতরে খোলামেলা অবস্থায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রাখা হচ্ছে। ফলে যে কোনো সময় ঘটতে পারে বিস্ফোরণ ও প্রাণহানির ঘটনা। এসব দোকানে ফায়ার সার্ভিসের অগ্নিনির্বাপক গ্যাস সিলিন্ডার রাখার নিয়ম থাকলেও অধিকাংশ দোকানই তা মানছে না। আবার কোনো কোনো দোকানে গ্যাস সিলিন্ডার থাকলেও তা বেশিরভাগই মেয়াদোত্তীর্ণ। গ্যাসের আবাসিক সংযোগ বন্ধ থাকায় দিন দিন এলপি গ্যাসের চাহিদা বেড়েই চলছে। বর্তমানে শুধু উপজেলা শহরেই গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় ৪ শতাধিক। চাহিদা মেটাতে একশ্রেণির ব্যবসায়ীরা সরকারি আইন ও নিয়মকে উপেক্ষা করে যত্রতত্র গ্যাস সিলিন্ডার ফেলে রেখে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। এলপি গ্যাস প্রস্তুতকারী কো¤পানিগুলো বিস্ফোরক অধিদপ্তরের সনদ নিলেও খুচরা ব্যবসায়ীরা শুধু দোকানের ট্রেড লাইসেন্স নিয়েই সিলিন্ডার বিক্রি করছেন। এর মধ্যে আবার অনেক দোকানের ট্রেড লাইসেন্সও নেই। একশ্রেণির মধ্যস্বত্বভোগী ব্যবসায়ীরা আইনের তোয়াক্কা না করেই দোকানের সামনে ও রাস্তায় এবং অবৈধ গুদামে গ্যাস সিলিন্ডার মজুদ রেখেই ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) লক্ষ্মীপুর জেলার সভাপতি প্রফেসর মাহাবুব মোহাম্মদ আলী মোবাইল ফোনে জানান, জনগণের দাবি যত্রতত্র অবাধে গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রির ফলে যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। তাই লাইসেন্সবিহীন সিলিন্ডার বিক্রি ঠেকাতে

প্রশাসনকে কঠোর নজরদারি ও হস্তক্ষেপ করতে হবে। একজন নাগরিক হিসেবে তিনিও মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে। উপজেলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শিল্পী রাণী রায় বলেন, দাহ্য পদার্থ বিক্রির সুনির্দিষ্ট বিধিমালা রয়েছে। যেখানে-সেখানে এলপি গ্যাস বিক্রির সুযোগ নেই। লাইসেন্স ছাড়া বিক্রি করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার ৩টি বাজারের ৪ দোকানে অভিযান চালিয়ে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।