কাগজ প্রতিনিধি: চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলায় ২২টি হাট-বাজার ও ১৭টি ফেরিঘাট ইজারা দেওয়ার দরপত্রে আগ্রহী ব্যক্তিদের সিডিউল ফেলতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। এসময় সিডিউল জমা দিতে যাওয়া বেশ কয়েকজনকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত ও সিডিউল বাক্স ছিনতাইয়ের চেষ্টারও অভিযোগ রয়েছে। এই ঘটনায় বুধবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এর কার্যালয়ে তুমুল হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ করে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ কর্মীদের সরিয়ে দিলে আগ্রহী সব ব্যবসায়ী সিডিউল জমা দিতে সক্ষম হন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শিবগঞ্জ উপজেলায় ২২টি হাট-বাজার ও ১৭টি ফেরিঘাট ইজারা দেওয়ার জন্য সম্প্রতি দরপত্র আহ্বান করে উপজেলা প্রশাসন। বুধবার ছিল দরপত্রের সিডিউল জমা দেয়ার শেষ দিন। কিন্তু এই হাটবাজার ও ফেরিঘাটগুলো নিজেদের দখলে রাখতে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের কিছু নেতা-কর্মী বুধবার সকাল থেকেই তৎপর হয়ে উঠেন। একাধিক মামলার আসামি উজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা ফয়েজ উদ্দিন ও শিবগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসিফ আহসানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের শতাধিক নেতাকর্মী লাঠিসোটা নিয়ে সকাল থেকেই শিবগঞ্জ ইউএনও অফিসের চারপাশে অবস্থান নেয়।

এসময় তাদের পছন্দমত ব্যবসায়ী ছাড়া অন্য কাউকেই তারা উপজেলা পরিষদের ভিতরে ঢুকতে দেয়নি। সিডিউল জমা দিতে যাওয়া বেশ কয়েকজনকে ধাওয়া ও লাঞ্ছিত করে উপস্থিত নেতা কর্মীরা।

দুপুরে শিবগঞ্জের নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম তার লোকজন নিয়ে সিডিউল জমা দিতে গেলে তাকেও বাধা দেয়া হয়। এই নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে তুমুল হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। পরে দুপুর পৌনে একটার দিকে শিবগঞ্জ থানার ওসি সিকদার মোঃ মশিউর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাঠিচার্জ করে সবাইকে ইউএনও অফিস থেকে সরিয়ে দেয়। এরপরেই পুলিশের উপস্থিতিতে সব ব্যবসায়ী সিডিউল জমা দেন। বর্তমানে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছেন।

এ ব্যাপারে উজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফয়েজ উদিনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি। তবে শিবগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসিফ আহসান জানান, তিনি নিজেই সিডিউল জমা দিতে গিয়েছিলেন। অন্য কাউকে সিডিউল জমা দিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।

শিবগঞ্জ থানার ওসি সিকদার মোঃ মশিউর রহমান জানান, কিছু লোকজন সিডিউল ফেলতে বাধা দেওয়ায় পুলিশ শক্তিপ্রয়োগ করে। পরে সবাই সিডিউল ফেলতে পেরেছেন বলে জানান তিনি।